নীড় পাতা » ব্রেকিং » পার্বত্য যুবফ্রন্টের বিবৃতি

পার্বত্য যুবফ্রন্টের বিবৃতি

jubafront-logoশনিবার রাঙামাটিতে পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের অবরোধকে ঘিরে সংঘাতের ঘটনায় এক বিবৃতি দিয়েছে পার্বত্য যুব ফ্রন্ট। শনিবার বিকেলে সংগঠনটির পক্ষ থেকে দেয়া বিবৃতিটি হুবহু তুলে দেয়া হলো-

‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক রাংগামাটি মেডিক্যাল কলেজ এর শ্রেণি কার্যক্রম উদ্বোধন কে কেন্দ্র করে পাহাড়ী সন্ত্রাসীদের দ্বারা সমগ্র রাংগামাটি শহর জুড়ে নৈরাজ্যকর তান্ডব চালিয়ে বাঙ্গালী এলাকাগুলোতে ঢুকে নারী-পুরুষ-শিশুদের উপর ন্যাক্কারজনকভাবে হামলা, কয়েকটি মসজিদে হামলা ও ভাংচুর, রাংগামাটি মেডিক্যাল কলেজ বাস্তবায়ন সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলম মুন্নাকে বহনকারী গাড়ির উপর উপর হামলা, বাঙ্গালীদের দোকানপাটে হামলা, ভাংচুর ও লুটতরাজ ও সাধারণ ও নিরীহ বাঙ্গালীদের উপর বিনা উস্কানীতে হামলা ও জখম করায় তীব্র ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানিয়ে সম-অধিকার আন্দোলন এর কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক জাহাঙ্গীর কামাল ও রাংগামাটি জেলা কমিটির ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারী মু. ইউনুচ, রাংগামাটি মেডিক্যাল কলেজ ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বাস্তবায়ন সংগ্রাম পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক কাজী মোঃ জালোয়া ও সদস্য সচিব আব্দুল্লাহ আল মামুন, পার্বত্য যুবফ্রন্ট এর কেন্দ্রীয় সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার নুরুল্লাহ আরাফাত সবুজ ও কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহজাহান এক যুক্ত বিবৃতি প্রদান করেন।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামকে আবারও অশান্ত করার চক্রান্ত শুরু হয়েছে। আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান সন্তু লারমা এবং সাংসদ উষাতন তালুকদার এর প্রত্যক্ষ নির্দেশে আজ অকারনে বাঙ্গালী জনগোষ্ঠি ও তাদের জান মালের উপর হামলা করা হয়েছে। তারা পাহাড়ের বিভিন্ন জায়গা থেকে পাহাড়ী লোকজনকে ভয়ভীতি দেখিয়ে এবং ভাড়া করে শহরে নিয়ে এসে এসব নৈরাজ্য চালিয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে সরকার সমর্থকদের সাথে বিরোধে জড়ালেও পরবর্তীতে তারা নিরীহ বাঙ্গালী জনগোষ্ঠির উপর ঝাপিয়ে পড়ে।তারা হামলা করে গুরুতরভাবে আহত করেছে পার্বত্য যুবফ্রন্ট নেতা মোঃ আলমগীর হোসেন সহ কমপক্ষে ৮ জন সাংবাদিককে। তারা নিরীহ লোকজনদের বাড়ি ঘরে হামলা করেই শুধু ক্ষ্যান্ত হয়নি তারা হামলা-ভাংচুর করেছে মুসলমানদের পবিত্র স্থান কোর্ট বিল্ডিং কালেক্টরেট জামে মসজিদ, ফরেষ্ট কলোনী জামে মসজিদ, পাবলিক হেলথ জামে মসজিদ সহ বেশ কয়েকটি মসজিদ।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, বিগত কয়েক মাস বিশেষ করে বিগত কয়েকদিন ধরে এসকল সন্ত্রাসীরা এজাতীয় হামলা-ভাংচুরের হুমকি প্রদান করা হলেও সরকার কিংবা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ সকল সন্ত্রাসীদের হাত থেকে জানমাল রক্ষার জন্য কোন ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। উপরন্তু নিরীহ বাঙ্গালীদের উপর হামলার সময়ও সরকারী পুলিশ বাহিনীর নির্বিকার অবস্থান আমাদেরকে হতবাক করেছে।

নেতৃবৃন্দ সরকারকে ৭২ ঘন্টার সময় বেঁধে দিয়ে বলেন, উল্লেখিত সময়ের মধ্যে এ সকল চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে শাস্তির আওতায় নিয়ে না আসলে এবং ক্ষতিগ্রস্থ বাঙ্গালীদের যথোপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দেয়া না হলে কঠোর কর্মসূচীর ঘোষনা দেয়া হবে।’ (প্রেসবিজ্ঞপ্তি)

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বিবর্ণ পাহাড়ের রঙিন সাংগ্রাই

নভেল করোনাভাইরাসের আগের বছরগুলোতে এই সময় উৎসবে রঙিন থাকতো পাহাড়ি তিন জেলা। এই দিন পাহাড়ে …

%d bloggers like this: