নীড় পাতা » ব্রেকিং » ‘পার্বত্য চুক্তির অধিকাংশ ধারাই বাস্তবায়িত হয়েছে’

‘পার্বত্য চুক্তির অধিকাংশ ধারাই বাস্তবায়িত হয়েছে’

DSC00213‘পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির অধিকাংশ ধারাই বাস্তবায়িত হয়েছে’ বলে দাবি করেছেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলার আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক পার্বত্য মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার। তিনি রাঙামাটিতে মঙ্গলবার জেলা আওয়ামীলীগ এর কার্যালয়ের সামনে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তির ১৭ তম বর্ষপূর্তির আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রদানকালে এ দাবি করেন।
তিনি আরো বলেন, জেএসএস বার বার বলছে শান্তি চুক্তির কোন ধারাই নাকি বাস্তবায়ন করা হয়নি। গত ২৯ তারিখ সন্তু লারমা স্বীকার করেছে যে, ২৫টি ধারা বাস্তবায়ন হয়েছে, এই জন্য ওনাকে ধন্যবাদ জানাই, অন্তত্য সত্য কথাটি স্বীকার করার জন্য।

দীপংকর তালুকদার বলেন, আজ চুক্তির ১৭ বছর পূর্তি উদযাপন করা হলেও আমরা ক্ষমতায় ছিলাম ৮ বছর ৪ মাস, বাকীটা সময়ে বিএনপি ও তত্ত্ববধায়ক সরকার ছিল তখন তারা তো একবারের জন্য তাদের সাথে চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য বলতে শুনিনি। আপনারা যদি ভাবেন অন্য কোন দল এই চুক্তি বাস্তবায়ন করবে তাহলে আপনার ভূল জগতে আছেন।
তিনি বলেন,ঊষাতন তালুকদার বলছে সরকার নাকি মৌলিক বিষয়গুলো বাদ দিয়ে চুক্তি বাস্তবায়ন করছে। আমি ঊষাতন বাবু বলতে চাই ৭২টি ধারাই আমাদের কাছে মৌলিক এবং খুব গুরুত্বপূর্ণ। কোনটা আমাদের কাছে কম গুরুত্বপূর্ণ নয়।
আলোচনা সভায় জেলা আওয়ামীলীগ এর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বরকল উপজেলার সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান সন্তোষ কুমার চাকমা বলেন, এই সন্তু লারমারা বঙ্গবন্ধুর মৃত্যু পর অস্ত্র হাতে নিয়ে সাধারন জুম্ম জনগনকে বলেছিলো যে আমরা পার্বত্য চট্টগ্রাম স্বাধীন করবো, এসব বলে সাধারন মানুষের হাতে তারা অস্ত্র তুলে দিয়েছিল। আমরা দেখতে পাই এরশাদ সরকারের সময় তাদের মুখের বুলি পাল্টে যায়, তখন থেকে তারা আর পার্বত্য চট্টগ্রাম স্বাধীনের কথা বলে না।
এই আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, জেলা ছাত্রলীগের সভপতি, শাহ এমরান রোকন, জেলা শ্রমিক লীগের সাধারন সম্পাদক শামসুল আলম, জেলা আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেত্রীবৃন্দ।
অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ রাঙামাটি জেলা শাখার সাধারন সম্পাদক হাজী মোহাম্মদ মুছা মাতাব্বর।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বিবর্ণ পাহাড়ের রঙিন সাংগ্রাই

নভেল করোনাভাইরাসের আগের বছরগুলোতে এই সময় উৎসবে রঙিন থাকতো পাহাড়ি তিন জেলা। এই দিন পাহাড়ে …

Leave a Reply