নীড় পাতা » পাহাড়ের অর্থনীতি » পার্বত্যাঞ্চলে উদ্যোক্তাদের জন্য বিশেষ সুদের হার নির্ধারনের আহ্বান সন্তু লারমার

পার্বত্যাঞ্চলে উদ্যোক্তাদের জন্য বিশেষ সুদের হার নির্ধারনের আহ্বান সন্তু লারমার

Rangamati-Uddokta-Pic-02‘পার্বত্য চুক্তি পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন না হওয়ায় চুক্তির আওতায় আঞ্চলিক পরিষদ ও জেলা পরিষদ আইন কার্যকর না হওয়ায় পাহাড়ি অঞ্চলের মানুষ অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যেতে পারছে না। চুক্তিতে পার্বত্যাঞ্চলকে একটি বিশেষ এলাকা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হলেও, বিশেষ এলাকা হিসেবে এই এলাকার জনগণ যে সুবিধা পাওয়ার কথা তাও পাচ্ছে না। পার্বত্যাঞ্চল একটি বিশেষ এলাকা বিবেচনা করে উদ্যোক্তাদের জন্য ঋণের ক্ষেত্রে একটি বিশেষ সুদের হার নির্ধারণের আহ্বান জানাচ্ছি। বৃহস্পতিবার রাঙামাটিতে ২য় পার্বত্য উদ্যোক্তা মেলার উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা (সন্তু) এসব একথা বলেন।
রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমার সভাপতিত্বে মেলার উদ্বোধন করেন চাকমা সার্কেল চিফ ব্যারিস্টার দেবাশীষ রায়। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক মাসুম কামাল ভূঁইয়া, জেলাপ্রশাসক মোস্তফা কামাল, জিএম মাসুম পাটোয়ারি, পুলিশ সুপার আমেনা বেগম, মেয়র সাইফুল ইসলাম চৌধুরী, সোনালী ব্যাংকের জিএম দিদার মোঃ আব্দুর রউফ, জনতা ব্যাংকের জিএম আবু নাসের চৌধুরী, কৃষি ব্যাংকের জিএম মোয়াজ্জেম হোসেন, রূপালী ব্যাংকের জিএম স্বপন কুমার বড়–য়া, উত্তরা ব্যাংকের জিএম আশরাফুর জামান, বাংলাদেশ ব্যাংকের ইভিপি আমিরুল ইসলাম, ডিজিএম আবুল বশর, অগ্রণী ব্যাংকের ডিজিএম কামরুল জামান, উদ্যোক্তা ধর্মেশ খীসা। স্বাগত বক্তব্য রাখেন উদ্যোক্তা উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি শামীম হায়দার ও সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব চাকমা।
উদ্বোধক সার্কেল চিফ ব্যারিস্টার দেবাশীষ রায় বলেন, পার্বত্যাঞ্চলকে একটি বিশেষ এলাকা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হলেও কার্যকর অর্থে এটি বাস্তবায়ন হয়নি। বিশেষ অঞ্চল হিসেবে এখানকার উদ্যোক্তারা যে সুবিধা পাওয়া কথা, তাও পায়নি পাহাড়ি অঞ্চলের জনগণ। এখানকার জনসাধারণের মাথাপিছু যে আয় তা হিসেব করলে দেখা যায় অর্থনীতিতে রাঙামাটি কতটা পেছনে রয়েছে। তিনি পার্বত্যাঞ্চলে উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে ব্যাংকগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।
সভাপতির বক্তব্যে নিখিল কুমার চাকমা বলেন, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সৃষ্টিলগ্ন থেকে এই এলাকায় উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে কাজ করে যাচ্ছে। কিন্তু, সরকারের একার পক্ষে এই কাজটি করা সম্ভব নয়। তাই বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, পাহাড়ে উৎপাদিত বিভিন্ন কৃষিজ পণ্য সংরক্ষণের জন্য হিমাগার তৈরিতে কোনো প্রতিষ্ঠান এগিয়ে আসলে জেলা পরিষদ সহযোগিতা করবে।
পার্বত্যাঞ্চলের স্থানীয় উদ্যোক্তাদের উৎপাদিত পণ্যসমূহের অভিগম্যতার ক্ষেত্র তৈরি, উদ্যোক্তাদের মাঝে আন্তঃসম্পর্কের পরিধি বৃদ্ধি এবং ব্যাংকার ও উদ্যোক্তাদের মধ্যে যোগাযোগ স্থাপনের লক্ষ্যে ২০১৩ সাল থেকে রাঙামাটিতে এই মেলার আয়োজন করা হচ্ছে। স্থানীয় সকল উদ্যোক্তা ও সাধারণ ভোক্তাদের মেলায় উপস্থিত হয়ে পার্বত্য উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করার জন্য আয়োজকদের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

ফুটবলের বিকাশে আসছে ডায়নামিক একাডেমি

পার্বত্য এলাকা রাঙামাটিতে ফুটবলকে আরও জনপ্রিয় করে তোলা, তৃনমূল পর্যায় থেকে ক্ষুদে ফুটবল খেলোয়াড় খুঁজে …

Leave a Reply