নীড় পাতা » ব্রেকিং » পর্যটনে ভূমিকা রাখতে চায় চট্টগ্রাম চেম্বার

পর্যটনে ভূমিকা রাখতে চায় চট্টগ্রাম চেম্বার

chamber-02‘দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া, ঘর হতে শুধু দুই পা ফেলিয়া, একটি ধানের শিষের উপরে একটি শিশির বিন্দু’- কবিগুরুর গানের সুরেই রাঙামাটির রূপ-রঙ আর সৌন্দর্য্যের বন্দনায় মেতে উঠেছিলেন নৌপরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান।

সোমবার বিকালে রাঙামাটির আরণ্যক টুরিষ্ট স্পটে চট্টগ্রাম চেম্বার আয়োজিত সমাপনি অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলছিলেন।

নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাহাজাহান খান আরো বলেন, প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি রাঙামাটি অত্যন্ত খুবই সুন্দর, চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স রাঙামাটির পর্যটন উন্নয়নের জন্যে এ আয়োজন অত্যন্ত প্রশংসনীয়।

চট্টগ্রাম চেম্বারের সভাপতি মাহবুবুল আলমের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোক্তাদির চৌধুরী এমপি, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতা আলাউদ্দিন চৌধুরী নাসিম,রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা, পর্যটন বিষয়ক মনিটর পত্রিকার সম্পাদক কাজী ওয়াহিদুল আলম, চেম্বারের সাবেক সভাপতি এম এ লতিফ এমপি, চট্টগ্রাম চেম্বারের পরিচালক দিদারুল আলম এমপি, চেম্বারের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট নুরু নেওয়াজ সেলিম ও ভাইস প্রেসিডেন্ট শহীদ জামান আহমেদসহ চেম্বারের নেতৃবৃন্দ ।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোক্তাদির এমপি বলেন, পুরো পার্বত্য চট্টগ্রামকে নতুন আঙ্গিকে দেখতে চাই। কাশ্মীরের ডাল লেক রাঙামাটি কাপ্তাই হ্রদের সৌন্দর্যের কাছে কিছুই না । সারা বাংলাদেশে অর্থনৈতিক যে কর্মকান্ড আছে তার নেতৃত্ব দিতে পারে এ পার্বত্য চট্টগ্রাম। চট্টগ্রামকে বানিজ্যিক ও শিল্পের রাজধানী হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

তিনি বলেন, পর্যটনকে নিয়ে চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স রাঙামাটিতে যে আলোচনা সভায় আয়োজন করেছে, তা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এ পার্বত্যঞ্চল পর্যটনের অপার সম্ভাবনা আছে। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভুমি হচ্ছে পার্বত্য চট্টগ্রাম। এখানে কাপ্তাই হ্রদ আছে পাহাড় আছে এর পাশাপাশি বৈচিত্র্যপূর্ণ জীবনধারায় সমৃদ্ধ মানুষের বসবাস রয়েছে। বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর কৃষ্টি সংস্কৃতি রয়েছে। এ পার্বত্য রাঙামাটিকে পর্যটনের উন্নয়নে কাজে লাগাতে পারলে ভবিষ্যতে এ জেলা পুরো বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিবে।
চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্সের সাবেক সভাপতি এম এ লতিফ এমপি বলেন,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৬ সালকে পর্যটন বর্ষ হিসেবে ঘোষণা করেছেন। সারা বিশ্বের মানুষকে দেখাতে চাই, চট্টগ্রামের হাজার বছরের যে ঐতিহ্য রয়েছে এবং এর পাশাপাশি তিন পার্বত্য জেলার পর্যটন সম্ভাবনাময় স্থানগুলোকে চট্টগ্রাম চেম্বার আরো সৌন্দর্য্যমন্ডিত স্থান হিসেবে গড়ে তুলতে ভূমিকা রাখবে।

তিনি বাংলাদেশের অন্যান্য প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানগুলোকে পাহাড়ের পর্যটন শিল্পে বিনিয়োগ করার জন্য আহ্বান জানান।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

জুরাছড়িতে গুলিতে নিহত কার্বারির ময়নাতদন্ত সম্পন্ন

রাঙামাটির জুরাছড়ি উপজেলায় স্থানীয় এক কার্বারিকে (গ্রামপ্রধান) গুলি করে হত্যা করেছে অজ্ঞাত বন্দুকধারী সন্ত্রাসীরা। রোববার …

Leave a Reply