নীড় পাতা » ব্রেকিং » পরিচয়হীন রাঙামাটি ডিএসএ!

পরিচয়হীন রাঙামাটি ডিএসএ!

রাঙামাটি জেলার খেলাধুলার অভিভাবক সংস্থা জেলা ক্রীড়া সংস্থা। জেলায় বিভিন্ন ধরনের খেলা আয়োজন এবং ভালো মানের খেলোয়াড় গড়ে তোলাই সংস্থাটির কাজ। জেলার এ অভিবাবক সংস্থাটি এখন ভূগছে পরিচয়হীনতায়। রাঙামাটি জেলা ক্রীড়া সংস্থা ও চিং হ্লা মং মারী স্টেডিয়ামের কোথাও কোনো নাম বা নামের ফলক নেই। স্টেডিয়ামের দেয়ালে বা অফিস ভবনের সামনে কোথাও নেই জেলা ক্রীড়া সংস্থার নামের কোনো সাইনবোর্ড। অপরিচিত কেউ রাঙামাটি আসলে তারা বুঝতেই পারবে না মাঠের নাম কী বা জেলা ক্রীড়া সংস্থার অফিস কোথায়?

রাঙামাটির সবচে বড় গুরুত্বপূর্ণ মাঠটি নামকরণ করা হয়েছে সাবেক জাতীয় ফুটবলার চিং হ্লা মং মারীর নামেই। মারীর নামে স্টেডিয়ামটি কাগজে কলমে হলেও দৃশ্যতঃ কোনো কিছুই দেখা মেলেনা। কাগজে কলমে ছাড়া আর জানার কোনো উপায়ও নেই স্টেডিয়ামটির নাম কী। স্টেডিয়ামটিতে নেই মারীর কোনো জীবনবৃত্তান্ত, নেই তার কোনো মুরাল বা প্রতিকৃত।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জেলা শহরের রাজবাড়ী এলাকায় অবস্থিত স্টেডিয়ামের প্রবেশ মুখেই রয়েছে একটি তোরণ যা অবশ্য দেখে বুঝার উপায় নেই গেইটটি কোন সংস্থার। পুরানো তোরণে নেই কোনো নাম। নেই কোনো মনোগ্রাম। অযতেœ পড়ে আছে তোরণটি। ময়লা আর বিভিন্ন পোস্টারের কিছু অংশ লেগে আছে। অযতœ আর তদারকির কারণে তোরণটি অবশ্য কারো কাছে আর আগ্রহ্যের কেন্দ্র নেই।

দীর্ঘদিন ধরে এভাবে নামের ফলক ছাড়া থাকাতে বিষ্ময় প্রকাশ করেছেন ক্রীড়ামোদী অনেকেই। এ জন্য তারা সংস্থার কর্তাদেরকেই দায়ী করছেন। কেন একটি সংস্থার নামফলক ও স্টেডিয়ামের নাম ফলক থাকবে না তাও তাদের প্রশ্ন। ঘটা করে নির্বাচন হয়, কমিটিও হয়। মাত্র নাম ফলকটি লাগানোর উদ্যোগও কেউ নেয় না। যা খুবই দুঃখজনক বলে অভিহিত করেন অনেকে।

এ বিষয়ে উইনস্টার ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বেনু দত্ত বলেন, এটা খুবই হতাশার ব্যাপার যে একটি সংস্থা বা স্টেডিয়ামের কোনো নামফলক নাই। নাম ফলক অবশ্যই থাকা উচিত।

আমির হোসেন নামের এক ব্যক্তি বলেন, কিভাবে একটি সংস্থা নামফলক ছাড়া চলে আমি বুঝি না। সব প্রতিষ্ঠানেরই নাম ফলক থাকে সেখানে এই সংস্থা আর মাঠের কোনো নামই নাই। যেখানে নাম ফলক লাগাতে পারে নাই, স্টেডিয়ামের নেতারা সেখানে কী করে ক্রীড়ার উন্নয়ন করবে বুঝতে পারছি না।’

জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম ভুট্টো বলেন, উদাসীনতা আর কী কাজ করতে হবে তা না জানার কারণেই এমনটা হচ্ছে। অবশ্যই একটি সংস্থা বা মাঠের নামফলক থাকা দরকার।

জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মো. শফিউল আজম বলেন, ‘আমরা উন্নয়ন বোর্ড থেকে একটি প্রকল্প নিচ্ছি। সে প্রকল্পের কাজের সময় নাম ফলকের কাজটিও করিয়ে নিব।’

Micro Web Technology

আরো দেখুন

প্রতিবন্ধী নারীকে ধর্ষণ চেষ্টা, যুবক গ্রেফতার

রাঙামাটিতে বুদ্ধি ও শারিরীক প্রতিবন্ধী এক নারীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। …

Leave a Reply