নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » নীলাচলে সার্ক আর্টিস্ট ক্যাম্প শুরু

নীলাচলে সার্ক আর্টিস্ট ক্যাম্প শুরু

art-camp-coverপ্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি বান্দরবানে পাহাড়ের চূড়ায় নীলাচল ট্যুরিস্ট স্পটে ‘সার্ক আর্টিস্ট ক্যাম্প’ শুরু হয়েছে। সার্ক কালচারাল সেন্টারের সহযোগিতায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে বুধবার সকালে চারদিন ব্যাপী ‘সার্ক আর্টিস্ট ক্যাম্প ২০১৪’ আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি। শিল্পকলা একাডেমির নির্বাহী পরিচালক লিয়াকত আলী লাকি’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে সার্ক সংস্কৃতি কেন্দ্রের পরিচালক জিএল ডব্লিউ সামারাসিং, উপস্থিত ছিলেন সার্ক সংস্কৃতি কেন্দ্রের সহকারী পরিচালক শোয়ান্ডারিয়া ডেভিড রডরিগো, শ্রীলংকার দক্ষিণ প্রদেশের গর্ভনর কুমারী বালা চুরিয়া, সংস্কৃতি সচিব ড. রণজিৎ কুমার বিশ্বাস, বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈ হ্লা, জেলা প্রশাসক কেএম তারিকুল ইসলাম বক্তব্য রাখেন। এছাড়া বান্দরবান ৬৯ সেনা রিজিয়নের বিগ্রেডিয়ার জেনারেল নকিব আহমেদ চৌধুরী, জেলা পুলিশ সুপার দেবদাস ভট্টাচার্য, বান্দরবান ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউটের পরিচালক মংনু চিং মারমা’সহ মিডিয়া-সংস্কৃতিকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের উদ্বোধক ও প্রধান অতিথি সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি বলেছেন, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের কৃষ্টি-কালচার, বৈশিষ্ট্যতা অক্ষুন্ন রেখেই সংবিধানে পরিবর্তন এনেছি। ধারাবাহিকতাভাবে বৈচিত্রপূর্ণ সব অঞ্চলের আচার অনুষ্ঠানগুলো সংরক্ষণ করা হবে। পর্যায়ক্রমে সম্প্রসারিত করার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। মন্ত্রী আরো বলেন, প্রকৃতি আর ভিন্ন ভিন্ন ভাষাভাষির মিলন ক্ষেত্র হচ্ছে পাহাড়ী জেলা বান্দরবান। এখানকার প্রকৃতি ও মানুষের হৃদ্যতাকে আরো সৌর্ন্দয্যময় করে তুলেছে। চিত্রশিল্পীদের কল্পনাতে তুলে ধরতে বসেছে মিলন মেলা। সার্কভূক্ত সাতটি দেশের নবীন-প্রবীণ শিল্পীদের সমন্বয়ে বাংলাদেশে প্রথমবারের মত চারদিন ব্যাপি আর্টিস্ট ক্যাম্প শুরু হয়েছে। পাহাড়ী জেলা বান্দরবানের বৈচিত্রময় সৌন্দর্য এবং ভিন্ন ভাষাভাষিদের কৃষ্টি-কালচার সংস্কৃতির কথা মাথায় রেখেই বান্দরবান পার্বত্য জেলায় এই আয়োজন।art-camp-01art-camp-02
অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি সার্ক সংস্কৃতি কেন্দ্রের পরিচালক জিএল ডব্লিউ সামারাসিং বলেছেন, সার্কভূক্ত দেশগুলোর মধ্যে সংস্কৃতি বন্ধন সুদৃঢ় করতে বাংলাদেশে এই আয়োজন করা হয়েছে। এই সংস্কৃতি সর্বত্র ছড়িয়ে দিতে শিল্পীর রং তুলিতে তুলে ধরা হবে।
শ্রীলংকার দক্ষিন প্রদেশের গর্ভনর কুমারী বালা চুরিয়া বলেন, শ্রীলংকার ছোট ছোট অনেক জাতীপুঞ্জ রয়েছে। তাদের ভিতরে সংস্কৃতি আদান প্রদানে সর্ম্পক আরো গভীর করেছে। সার্কভূক্ত দেশগুলোর মধ্যকার সব জাতীপুঞ্জের বন্ধন এক সুতোয় বাধতে ‘সার্ক আর্টিস্ট ক্যাম্পের আয়োজন। সার্ক দেশসমূহের মধ্যে সাংস্কৃতিক বন্ধন ও শিল্পের বিনিময়ই এই ক্যাম্পের উদ্দেশ্য।
আয়োজকরা জানায়, বাংলাদেশের ১১ জনসহ সার্কভুক্ত সাতটি দেশের মোট ৩৬ জন চিত্রশিল্পী অংশ নিয়েছেন। চিত্র শিল্পীরা একক শিল্পকর্ম অঙ্কনের পাশাপাশি ৩০ ফুট বাই ৬ ফুট ক্যানভাসে সম্মিলিতভাবে চিত্রাঙ্কন করছেন সার্কভুক্ত দেশের শিল্পীরা। বান্দরবানের নীলাচল ট্যুরিজম স্পটে সার্ক আর্টিস্ট ক্যাম্পে শিল্পীদের আঁকা শিল্পকর্মগুলো নিয়ে আগামী ১৩-১৮ এপ্রিল বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা গ্যালারিতে একটি প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়াও এই ক্যাম্পে অংশ নেওয়া শিল্পীরা বিভিন্ন দেশ থেকে যে সকল চিত্রকর্ম সঙ্গে নিয়ে এসেছেন সেগুলোরও একটি প্রদর্শনী হবে।
প্রসঙ্গত, ২০১১ সালে প্রথমবার সার্ক আর্টিস্ট ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয় শ্রীলঙ্কার কলম্বোয়। দ্বিতীয়বারও অনুষ্ঠিত হয় শ্রীলঙ্কায়। তৃতীয়বারের মতো ২০১৩ সালে মালদ্বীপের কুদা বান্দোস দ্বীপে আয়োজন করা হয় সার্ক আর্টিস্ট ক্যাম্প। চতুর্থ পর্ব হিসেবে বাংলাদেশ প্রথমবার আয়োজন করছে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

রাঙামাটিতে করোনায় আরও এক নারীর মৃত্যু

রাঙামাটি শহরে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার ভোররাতে শহরের চম্পকনগর আইসোলেশন …

Leave a Reply