নীড় পাতা » করোনাভাইরাস আপডেট » নাইক্ষ্যংছড়িতে বেড়েছে দর্জিদের কর্মব্যস্ততা

লকডাউন শিথিলের পর

নাইক্ষ্যংছড়িতে বেড়েছে দর্জিদের কর্মব্যস্ততা

পবিত্র ঈদুল ফিতরকে কেন্দ্র করে লকডাউন শিথিলের পর বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতে বেড়েছে দর্জিদের কর্মব্যস্ততা। করোনা সংকটে দেশব্যাপি নিত্যপ্রয়োজনীয় দোকান খোলা থাকলেও বন্ধ ছিল কাপড়ের দোকানগুলো। কিন্তু লকডাউন শিথিল হওয়ায় আবারো কর্মে ফিরেছেন দর্জিরা। তবে এবারে দিনমজুররাই বেশি করে কাপড় সেলাই করছেন বলে জানিয়েছে দর্জিরা।

সোমবার সকালে উপজেলার বাইশারী বাজারের বিভিন্ন কাপড়ের দোকান ঘুরে দর্জিদের সাথে কথা বলে জানা যায়, দীর্ঘদিন তারা লকডাউনের কারণে কর্মস্থানে কাজ করতে পারেননি। ফলে সবার মত তাদেরও কিছুটা আর্থিক সংকটে ভোগতে হয়েছিল। কিন্তু লকডাউন শিথিলের পর পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ক্রেতারা নতুন কাপড় ক্রয়ে ছুটে আসছেন। এবারে দিনমজুর বা নিম্মবিত্তরাই কাপড় সেলাই করছেন বেশি। তাতে কমে গেছে আর্থিক সংকট।

দর্জি মোঃ সালমান ও ঝন্টু ধর জানায়, তারা একটি পাঞ্জাবি সেলাইয়ে দাম নিচ্ছেন ২০০ থেকে ২৫০ টাকা, প্যান্ট সেলাইয়ের দাম নিচ্ছেন ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা পর্যন্ত, শার্ট ২০০ টাকা এবং থ্রি-পিস নিচ্ছেন ১৫০ টাকা করে। দর্জি আমানুল হক জানায়, বাজারে প্রায় অর্ধশত দর্জি কাজ করে থাকেন। তার এখানে পাঞ্জাবী সেলাইয়ের সংখ্যাই বেশি। লকডাউন শিথিল হওয়ায় কাপড় সেলাইয়ে ফের ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন বাজারে থাকা দর্জিরা।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর বাইশারী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ফিরল ফুটবল

পার্বত্য বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার রাবার শিল্প নগরী হিসেবে পরিচিত বাইশারীতে দীর্ঘদিন পর মাঠে ফিরেছে ফুটবল। …

Leave a Reply