নীড় পাতা » আলোকিত পাহাড় » নম্রতা’র নাচের ঝলক দেখলো বাংলাদেশ

নম্রতা’র নাচের ঝলক দেখলো বাংলাদেশ

nomrota-cover-02মা বাবার আগ্রহ মেয়ে গান শিখুক আর মেয়ের আগ্রহ নাচে। যে কোনো নাচ খুব সহজেই আয়ত্ত্ব করতে পারে সে। যখন থেকে সে একটু একটু হাঁটতে শিখে তখন থেকেই গান শুনলেই নাচতে চাইতো সে। মেয়ের এমন আগ্রহে স্কুল শিক্ষক মা বাবাও মেয়েকে নাচ শেখায়। রাঙামাটির দুর্গম বিলাইছড়ি উপজেলার কুতুবদিয়া গ্রামের মেয়ে নম্রতা তঞ্চঙ্গ্যা। আর সেই ছোট্ট মেয়েটি অল্প সময়েই প্রত্যন্ত পাহাড়ী অঞ্চল থেকে রাজধানী ঢাকাসসহ সারাদেশের হাজারো শিশু শিল্পীর সাথে সাথে প্রতিযোগিতা করে সেরাদের মাঝে স্থান করে নিয়েছে। বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল “আরটিভি’র মা ও সন্তানদের নিয়ে রিয়েলিটি শো “ডেটল সেরা আমি সঙ্গে মা সিজন-২”এর গ্রান্ড ফাইনালে দ্বিতীয় রানার আপ হয়েছেন বিলাইছড়ির নম্রতা।

রাঙামাটির দুর্গম বিলাইছড়ি উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম কুতুবদিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী নম্রতা তঞ্চঙ্গ্যা। বাবা রঞ্জন তঞ্চঙ্গ্যা এবং মা মনীষা দেওয়ান দুইজনেই একই বিদ্যালয়ের শিক্ষক। নম্রতার এমন অর্জনে গর্বিত মা বাবা,স্বজনসহ এলাকার সকলে।
পাহাড়ি এ ছোট্ট শিল্পীর পারফরম্যান্স মন কেড়েছে আয়োজক ও বিচারকদের। আর তাইতো বিচারকের চেয়ারে বসা নৃত্য শিল্পী সাবেরী আলম, মুনমুন, লিংকন,চম্পা রেজাসহ সকলে আদুরে চেহারার নম্রতার পারফরম্যান্স দেখে শুধু বিস্মিতই হননি,নানাভাবে বিশেষায়িতও করেছে তাকে বারবার। আর গুনী এই শিল্পীদের প্রশংসা ও পরামর্শে মুগ্ধ নম্রতা ও তার মা মনীষা দেওয়ান।

প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে ঢাকা শহরের অভিজাত পরিবারের সকল সুবিধা নিয়ে বড় হওয়া সন্তান আর সারাদেশের অসংখ্য প্রতিযোগির সাথে পেরে উঠতে পারার আশংকাটা বারবার তাড়া করেছে নম্রতার মা বাবাকে। বিনয়ী পিতা-মাতার যোগ্য উত্তরসুরীই বলতে হয় নম্রতাকে। কারণ তার প্রতিভা ভরা চোখে মুখে বিনয়ীভাব যেকোনো ব্যক্তিকেই আকৃষ্ট করে সহজে। nomrota-pic-02

‘নম্রতার প্রতিভাই বলে দেয় সে অনেক দুর এগিয়ে যাবে একদিন’-বিচারকদের এমন মন্তব্যে বারবার মনে সাহস খুঁজে পায় নম্রতার মা বাবা। ফলে প্রথম রাউন্ড থেকে প্রায় দুই শতাধিক প্রতিযোগির সাথে প্রতিযোগিতায় নামে নম্রতা। প্রতি রাউন্ডের  পর মা বাবার আশংকা ‘এ বুঝি এবার হেরে গেল নম্রতা’। কিন্তু পরক্ষণেই যখন বিচারকরা ইয়েস কার্ড হাতে ধরিয়ে দেয় তখনই আবারো যেন নব উদ্যোমে এগিয়ে যেতে থাকেন তারা। ঢাকায় আত্মীয়ের বাড়িতে থেকে প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় নম্রতা। দুইদিন পর পরই অডিশনে ডাক পড়ে। আর এভাবে কেটে গেল এক মাস। অবশেষে কঠিন সব রাউন্ড অতিক্রম করে পৌঁছে যায় ফাইনাল রাউন্ডে। গত শুক্রবার আরটিভিতে সরাসরি প্রচার করা হয় ফাইনাল রাউন্ড। ফাইনালে পার্বত্যাঞ্চলের উপজাতীয় গানের সাথে নৃত্য করে উপস্থিত সবাইকে তাক লাগিয়ে দেয় মা মেয়ে দুইজনেই। অবশেষে ফলাফলে নম্রতা দ্বিতীয় রানার আপ নির্বাচিত হন। আর চ্যাম্পিয়ন হন ঢাকার মেয়ে নিত্রা। nomrota-pic-03

মেয়ের এমন অর্জনে খুশী মা বাবা আত্মীয় স্বজন সহ সকলে। নম্রতার নাচের শিক্ষক যুঁথি চাকমা জানান, নম্রতা যেকোনো গান একবার শুনলেই আয়ত্ব করতে পারেন। অন্যান্য শিক্ষার্থীদের যেভাবে সময় দিতে হয় সেভাবে তাকে দিতে হয়না। তার আগ্রহ আর একাগ্রতাই তাকে অনেকদুর এগিয়ে নেবে।

বিলাইছড়ির স্থানীয় সাংবাদিক জসীম উদ্দিন তালুকদার জানান, নম্রতা বিলাইছড়ির যেকোনো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে পারফরম্যান্স করছে শুনলেই সংস্কৃতিপ্রেমিরা উৎসুক হয়ে উঠে। সে উপজেলা ও জেলা পর্যায়ের বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে সেরার পুরস্কারটি জিতেছে। সে লোকনৃত্য, সাধারন নৃত্য, চাকমা নৃত্য, দেশাত্ববোধক গান, ছড়াগান, রবীন্দ্র সঙ্গীত প্রভৃতি বিষয়ে পারদর্শি। ইতোমধ্যে ২০১১সালে সে মা ও শিশু কল্যান মন্ত্রনালয়ের অধিনে শিশু একাডেমি আয়োজিত শিশুদের মৌসুমী প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে জেলা পর্যায়ে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে। তবে এর পরের বছর অর্থাৎ ২০১২ সালে চট্টগ্রাম বিভাগীয় পর্যায়ে জিতে নেয় প্রথম পুরস্কার। এছাড়াও সরকারী বেসরকারী বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে সে বারবারই জিতেছে সেরা পুরস্কারটা।
বড় হয়ে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার স্বপ্ন দেখে নম্রতা। পাশাপাশি দেশ-বিদেশের নৃত্য শিল্পীদের সাথে প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে নিজের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমান করতে চায় সে।  নম্রতা স্বপ্ন দেখে জীবনের যে পর্যায়েই যতদূরই যাক না কেনো, নাচ যেনো থাকে ভালোবাসা হয়ে। নাচের প্রতি শিশুশিল্পী নম্রতার ভালোবাসা আর টানই হয়তো একদিন আরো বড় কোন সাফল্য এনে দিবে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

কারাতে ফেডারেশনের ব্ল্যাক বেল্ট প্রাপ্তদের সংবর্ধনা

বাংলাদেশ কারাতে ফেডারেশন হতে ২০২১ সালে ব্ল্যাক বেল্ট বিজয়ী রাঙামাটির কারাতে খেলোয়াড়দের সংবধর্না দিয়েছে রাঙামাটি …

One comment

  1. এই সংবাদের প্রতিবেদক ইয়াসিন রানা সোহেল ভাইকে অনেক অনেক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।
    আপনার মত বিজ্ঞ সাংবাদিকরাই বিশ্ববিখ্যাত তারকাদের সিঁড়ি।আপনাদের এমন প্রতিবেদনের উপর ভর করে ধীরে ধীরে শিখরে উঠে আসুক নম্রতার মত আরো অনেক প্রতিভাবান শিল্পী এই কামনায় আবারও ধন্যবাদ ইয়াসিন ভাই।
    রঞ্জন তঞ্চঙ্গ্যা
    বিলাইছড়ি।

Leave a Reply

%d bloggers like this: