নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » নবান্ন উৎসব খাগড়াছড়িতে

নবান্ন উৎসব খাগড়াছড়িতে

khg-01pic-khagrachari-02নবান্ন উৎসব বলে কথা। বারো মাসে তের পার্বনের দেশে উৎসব যেন লেগেই থাকে। আর তার সূচনা হয় বাংলার নবান্ন উৎসবকে অবগাহন করেন। শরত বিদায় নিয়ে আসে শীত। কৃষকের ঘরে ঘরে আসে নতুন ফসল। গ্রাম বাংলায় পড়ে যায় পিঠা খাওয়ার ধুম। নবান্নের এই উৎসবে মেতে উঠে সবাই।

নবান্ন উৎসবের সাথে মিশে আছে বাঙ্গালীর ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতি। এ যেন সত্যিই হৃদয়ের বন্ধনকে আরো গভীর করে দেয়ার উৎসব। আর এই কথার সত্যতা মিলল খাগড়াছড়িতে অনুষ্ঠিত নবান্ন উৎসব ও পিঠা মেলায়।
শনিবার সন্ধ্যায় ভীন্নধর্মী একটি দিন পেল খাগড়াছড়িবাসী। খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসনের সহযোগীতায় জেলা শিল্পকলা একাডেমী এবং শিশু একাডেমী যৌথভাবে অফিসার্স ক্লাব মিলনায়তনে আয়োজন করে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী নবান্নের উৎসব ও পিঠা মেলার।

কেউ মেলা ঘুরছে, কেউ কেউ পিঠা খেতে ব্যস্ত আবার অনেকে সুরে ছন্দে নিজেই মাতোয়ারা। মিলনাতন জুড়ে মানুষের সরব উপস্থিতিতে প্রাণময় খাগড়াছড়িতে আয়োজিত নবান্ন উৎসব ও পিঠা মেলা।

উক্ত মেলায় সরকারী, বেসরকারী এবং ব্যাক্তিগত উদ্যোগ মিলে মোট ১৬টি ষ্টল স্থান পাই। মেলায় ভাপা পিঠা, পুলি পিঠা, চিতল পিঠা, বিন্নি পিঠা, চোঙ্গা পিঠা, পাকুইশ পিঠা, দুধ পুলি, কলা পিঠাসহ প্রায় ১শ ২০ রকমের পিঠা স্থান পেয়েছে।

পিঠা মেলা উপলক্ষে আয়োজিত প্রতিযোগীতায় প্রথম স্থান অধিকার করেছে পুলিশ লাইন্স স্কুল, দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে যৌথভাবে খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ ও খাগড়াছড়ি রিজিয়ন এবং তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে আনন্দ। এর আগে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন জেলা পরিষদ সদস্য কংজরী চৌধুরী। এসময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোল্লা মিজানুর রহমান, সহকারী পুলিশ সুপার এনায়েত হোসেন মান্না, জেলা পরিষদ সদস্য নিগার সুলতানা, খাগড়াছড়ি সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা শ্রীলা তালুকদার খাগড়াছড়ি প্রেস ক্লাবের সভাপতি জীতেন বড়–য়া উপস্থিত ছিলেন।pic-khagrachari-05

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণে বিরোধীতার প্রতিবাদ রাঙামাটিতে

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য নির্মাণে বিরোধীতার নামে ‘উগ্রমৌলবাদ ও ধর্মান্ধগোষ্ঠীর জনমনে বিভ্রান্তির …

Leave a Reply