নীড় পাতা » ব্রেকিং » দুর্ঘটনার শঙ্কা, যানজট ভোগান্তি

সড়কেই ট্রাক!

দুর্ঘটনার শঙ্কা, যানজট ভোগান্তি

রাঙামাটি শহরের খুবই গুরুত্বপূর্ণ সড়ক হল পুরতন বাসস্ট্যান্ড সড়ক। সড়কের পাশেই অবস্থান রাঙামাটি পৌরসভার ট্রাক টার্মিনাল। যেখান থেকে প্রতিদিন প্রায় শত শত পণ্য বোঝাই গাড়ি ছেড়ে যায় দেশের বিভিন্ন শহরের উদ্দেশ্যে। ট্রাক টার্মিনালের বাহিরে প্রধান রাস্তায় সারি সারি ট্রাক রাখে ট্রাকের চালক ও মালিকেরা। রাস্তার ওপর ট্রাক রাখার কারণে বিভিন্ন সময়ে নানা ধরণের প্রতিবন্ধিকতা দেখা দেয়। রাস্তায় ট্রাক রাখার কারণে সড়ক অনেকটা সংকীর্ণ হয়ে গেছে। এমনকি মোড়ের একপাশ থেকে অন্য পাশের গাড়ি আসছে কিনা বুঝা যায় না।

অন্যদিকে রাস্তায় গাড়ি রাখায় প্রায় সময় আশঙ্কা দেখা দেয় দুর্ঘটনার। এমন কী বিভিন্ন সময় তৈরি হয় দীর্ঘ যানজটের। এ বিষয়ে দৈনিক পার্বত্য চট্টগ্রাম পত্রিকায় প্রতিবেদনও প্রকাশিত হয়। সে সময়ে কর্তৃপক্ষ রাস্তা থেকে গাড়িগুলো সরিয়ে নেয়ার কথা বললেও এখনও একইভাবে গাড়ি রাখছে সড়কের উপরেই!

গতকাল সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, টার্মিনালের বাহিরে রাস্তার দুপাশে সারি সারি করে রাখা আছে প্রায় আটাশটি ট্রাক যার কারণে সরু হয়ে গেছে যানবাহন চলাচলের প্রধান সড়কটি। এমনকি রাস্তায় ট্রাক রাখার কারণে টার্মিনালের পাশে যে ফুটপাত আছে তাও ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে গেছে। ফুটপাতটি ব্যবহার করে না কোনো পথচারীই। রাস্তা থেকে ফুটপাতটি দেখারও কোনো সুযোগ নেই শুধুমাত্র গাড়ি রাখার কারণে। দিন কিংবা রাতে এ রাস্তায় সব সময়ই পার্কিং করা থাকে ট্রাক। এতে নষ্ট হয়ে গেছে টার্মিনাল সংলগ্ন ফুটপাতটিও।

ট্রাক চালক কবির বলেন, টার্মিনালের পাশেইতো রাখছি। এতে কারো কোনো সমস্যা হওয়ার কথা না। আরেক ট্রাক চালক জসিম বলেন, একসাথে অনেক গাড়ি টার্মিনালের ভেতরে রাখা যায় না। তাই এখানে রাখি।

অটোরিকশা চালক রফিক মিয়া বলেন, তারা যেভাবে ট্রাক রাখে তাতে আমরা বায়তুশ শরীফ মোড়টা আসলে বিপরীত থেকে কোনো গাড়ি আসতেছে কিনা সেটা দেখি না। সেটা আমাদের জন্য একটা বড় সমস্যা।

পথচারী হাবিবুর রহমান বলেন, এভাবে গাড়ি রাখার কারণে কোনদিক থেকে কি গাড়ি আসতেছে তা দেখার সুযোগ নাই। ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। এখন আবার পর্যটনের মৌসুম চলে আসছে। পর্যটকদের গাড়ি আসবে তখন দুর্ঘটনার সম্ভাবনা আরও বেড়ে যাবে।

জেলা ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ ইসমাইল বলেন, আমরা বারবার তাদের সভাপতি সম্পাদকদের সতর্ক করে বলেছি সড়কে গাড়ি না রাখার জন্য। তারপরও তারা গাড়ি রাখে এখন আমাদের ব্যবস্থা আমরাই নিব। আশাকরি খুব শীঘ্রই গাড়ি রাখা বন্ধ হবে।

রাঙামাটি পৌরসভার মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘সড়কে যাতে গাড়ি না থাকে তার জন্য যিনি টার্মিনাল ইজারা নিয়েছেন তাকে চিঠি দিচ্ছি। তার সাথে আলাপ করে সেখানে গাড়ি রাখা যাতে বন্ধ হয় পাশাপাশি পুলিশ সুপারকেও চিঠি দিব তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে।’

Micro Web Technology

আরো দেখুন

প্রেমিকের সঙ্গে বিয়েতে পরিবারের অসম্মতি, অতপর…

বান্দরবানের আলীকদম উপজেলায় মুবিনা আক্তার নয়ন (১৬) নামের এক তরুনী গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে …

Leave a Reply