নীড় পাতা » ব্রেকিং » দুই উৎসব ঘিরে আবারো প্রাণচাঞ্চল্য

রাঙামাটি শহরে

দুই উৎসব ঘিরে আবারো প্রাণচাঞ্চল্য

রাঙামাটি শহরবাসীর জীবনে মেলার আমেজ বলতে গেলেই চলে আসে জগদ্ধাত্রী মেলা ও চীবর দান মেলা। এই দুইটি স্বল্পকালীন মেলা ছাড়া আর কোন মেলাই হয় না রাঙামাটিতে। সেই জগদ্ধাত্রী মেলাই এখন কড়া নাড়ছে রাঙামাটিবাসীর মনে। আগামী ৬ ও ৭ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে এই মেলা।

এই মেলা উপলক্ষে রাঙামাটির প্রাণকেন্দ্র খ্যাত বনরূপা থেকে শুরু করে হ্যাপিরমোড় পর্যন্ত রাস্তার পাশে বিভিন্ন স্টল তৈরি করতে শুরু করেছে ভাসমান দোকানীরা। জগদ্ধাত্রী মন্দিরে সামনে থেকে বনরূপার ফরেস্ট রেস্ট হাউজ গেইট পর্যন্ত বিস্তৃত হয় এই মেলা।

জগদ্ধাত্রী পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুজন মহাজন বলেন, প্রতিবারের মত এবারও এই মেলা অনুষ্ঠিত হবে। মন্দির কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধানে বনবিভাগের পাশের ফুটপাতে এ মেলা বসবে। মেলার প্রতিটি স্টলের জন্য আমরা পাঁচ ফুট করে স্থান বরাদ্দ করেছি। সে হিসাবে মোট ১৪৫টি স্টল হয়েছে। এসব স্টলে যারা থাকবেন তাদের সেনিটেশন সুবিধা ও বিদ্যুতের ব্যবস্থা করবে মন্দির কর্তৃপক্ষ। বিনিময়ে তারা ভাড়া হিসাবে যা দিবে আমরা তাই নিবো, এবং এই টাকা মন্দিরের কাজেই ব্যবহার করা হবে।

শত চেষ্টা করেও এই মেলা থেকে মন্দিরের কত আয় হয়, বা এই স্টল ভাড়া কত নেয়া হয় তা বলেননি বা এড়িয়ে গেছেন পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুজন মহাজন। কিন্তু তিনি বলেন, স্টল ভাড়া যা পাওয়া যায় তৃতীয় কোন পক্ষকে কিছু দিতে হয় না।

তবে তিনি বলেন, মেলার একপাশের দোকান বরাদ্দ দিয়েছি আমরা, অপর পাশে খালি থাকে যাতে মানুষ চলাচল করতে পারে। কিন্তু অন্য প্রান্তের দোকান মালিকরা যার যার দোকানের সামনের ফাঁকা স্থান ভাড়া দিয়ে দেয়, ফলে ভাসমান দোকানিরা ফুটপাতে এসে পড়ে। মানুষের চলাচলে সমস্যা হয়।

তিনি বলেন, এ ব্যাপারে এবার জেলা প্রশাসককের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে। তিনি আমাদের এই মেলার জন্য একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দিয়েছেন। তিনি এবার এসব বিষয় দেখবেন, আশা করি এবার আর সমস্যা হবে না। ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ বিষয়ে তিনি বলেন, আমরা পুলিশের কাছে সহযোগিতা চেয়েছি, তারা আমাদের আশ্বস্ত করেছেন মেলা চলাকালীন সময়ে এখানে ট্রাফিক পুলিশ মোতায়ন থাকবে, এছাড়াও মন্দিরের পক্ষ থেকে ২০ জন স্বেচ্ছাসেবক ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণে সার্বক্ষণিক কাজ করবে।

রবিবার সকাল থেকেই দেখা দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে দোকানিরা এসে তাদের নির্ধারিত স্থানে স্টল স্থাপনের কাজ শুরু করেছে। প্রতিবছর জগদ্ধাত্রী পূজা উপলক্ষে এই মন্দিরে ষোড়শ প্রহরব্যাপী নাম কীর্তনের আয়োজন করা হয়।

এদিকে আগামী ৭ ও ৮ নভেম্বর রাঙামাটি রাজ বন বিহারে কঠিন চীবর দানোৎসব ঘিরে মেলার প্রস্তুতি চলছে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

রাঙামাটিতে এক দিনেই ১১ জনের করোনা শনাক্ত

শীতের আবহে হঠাৎ করেই পার্বত্য চট্টগ্রামের রাঙামাটি জেলায় করোনা সংক্রমণে উল্লম্ফন দেখা দিয়েছে। বিগত কয়েকদিনের …

Leave a Reply