নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » দীঘিনালা হামলায় জড়িতরা বহিরাগত শিবিরকর্মী

দীঘিনালা হামলায় জড়িতরা বহিরাগত শিবিরকর্মী

shibir-picখাগড়াছড়ির দীঘিনলায় বহিরাগত শিবিরকর্মীদের উপিস্থিতির তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। বর্তমানে সরকার বিরোধি আন্দোলনে শিবির কর্মীরা নিজেদের কর্মসূচির নামে পরিকল্পিতভাবে হামলারও অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ উঠেছে, বহিরাগত শিবিরকর্মীদের স্থানীয় দুইজন শিক্ষক (স্থানীয় জামাত ও শিবির নেতা) নিজেদের বাড়িতে রেখে সার্বিক সহযোগিতা করছেন। রবিবার এক আওয়ামীলীগকর্মীর উপর আক্রমনের পরে স্থানীয় জনতা এক শিবির নেতাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। এসময় অন্যরা পালিয়ে যায়। আটককৃত শাহাদত হোসেন (২০) রাঙামাটির লংগদু উপজেলার আটারকছড়া ইউনিয়নের ইয়ারিংছড়ির ইউছুফ আলীর ছেলে। তবে সে স্থানীয় আক্কাছ মাষ্টারের বাড়িতে থেকে শিবিরের দীঘিনালা উপজেলা শাখার সভাপতির দায়িত্ব পালন করছে বলে জানায়। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ঘটনার সময় শাহাদাতের সাথের অধিকাংশরা বহিরাগত বলে তথ্য পাওয়া গেছে। শাহাদাতকে সোমবার আদালতে হাজির করে পুলিশ তিন দিনের রিমান্ডের আবেদন করলে আদালত জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রবিবার উপজেলার মধ্যবোয়ালখালী এলাকায় শিবিরকর্মীদের অতর্কিত হামলায় গুরুতর আহত হয় মেরুং ইউনিয়ন (উত্তর) আওয়ামীলীগের সদস্য এনামুল হক ওরফে দুলাল খান (৩৮)। লাঠির আঘাতে তার মাথা ফেটে যায়। তখন জনতা এক শিবিরকর্মীকে আটক করে পুলিশে দেয়। এ ঘটনায় আক্কাছ মাষ্টার, হেলাল মাষ্টার ও আটককৃত সাহাদত হোসেনসহ ছয়জনকে আসামি করে থানায় মামলা করেছেন আহতের স্ত্রী শিল্পি বেগম।

স্থানীয়দের অভিযোগ, আক্রমনকারীদের অধিকাংশ বহিরাগত। একই কথা জানিয়ে মধ্যবোয়ালখালী এলাকার বিএনপি নেতা সাইফুল ইসলাম (পিসি) জানান, স্থানীয় কয়েকজনের ছত্রছায়ায় থেকে বহিরাগত কিছু ছেলে এলাকার পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করছে। একই কথা স্বীকার করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই এহতেশামুল হক। তদন্ত কর্মকর্তা আরো জানান, বহিরাগতদের সনাক্তকরাসহ মামলার অপরাপর আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

অপরদিকে আহত দুলাল খান জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক শ্যামল চাকমা জানান, দুলালের মাথার তিন অংশে ৮টি সেলাই করে তাকে জেলা সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী মোঃ জাফর জানান, পুরো ঘটনার নেতৃত্ব দিয়েছেন অনাথ আশ্রম আবাসিক উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মোঃ আক্কাছ আলী ও রসিকনগর দাখীল মাদ্রাসার শিক্ষক মোঃ হেলাল উদ্দিন। এ ছাড়া একই মাদ্রাসার আনিছুর রহমান নামে অপর আরেক শিক্ষকও ঘটনার সময় সাথে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন বলেও তিনি দাবী করেছেন তিনি। আক্কাছ আলী উপজেলা জামাতের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন এবং হেলাল উদ্দিন শিবিরের জেলা শাখার সাবেক সেক্রেটারি বলে দাবী করেছেন উপজেলা আওয়মীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নিউটন মহাজন। অপরদিকে আটককৃত শাহাদত উপজেলা শিবিরের সভাপতি বলে স্বীকার করলেও নিজের সম্পৃক্ততার অভিযোগ আস্বীকার করেছেন আক্কাছ মাষ্টার।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

মহালছড়িতে পানিতে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু

খাগড়াছড়ির মহালছড়ি উপজেলার মনাটেক গ্রামে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার দুপুর আড়াইটায় মনাটেক …

Leave a Reply