নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » দীঘিনালায় বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদককে অবাঞ্চিত ঘোষণা

দীঘিনালায় বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদককে অবাঞ্চিত ঘোষণা

BNP-Flaggg-Picখাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব মেম্বারকে অবাঞ্ছিত ঘোষনা ও বহিস্কারের দাবী করেছে বিএনপির একটি অংশ। বিএনপির এই অংশটি সাধারণ সম্পাদককে প্রতিরোধে ৫১ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটিও গঠন করে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত আল্টিমেটাম দিয়েছে। সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে দলের মধ্যে অর্ন্তকোন্দল সৃষ্টি,বিভ্রান্তি ছড়ানোসহ ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ তুলেছে। শুক্রবার ৪ এপ্রিল বোয়ালখালী নতুন বাজারের হোটেল শাহজাহানের হল রুমে জরুরী বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তবে সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব মেম্বার দাবী করেছেন যারা তাঁকে অবাঞ্জিত করেছে তাঁরাই অটো অবাঞ্জিত হয়ে আছেন।

বৈঠকে অংশ নেয়া বিএনপির নেতা কর্মীরা জানান,উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব মেম্বার সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে দলের মধ্যে বিরোধ ও অর্ন্তকোন্দল সৃষ্টির পায়তারা করছেন। এছাড়াও তাঁর চারিত্রিক সমস্যার কারণে কয়েকবার অসামাজিক কার্যকলাপেও ধরা পড়েছে সে. যা বিএনপির নেতা,কর্মীরা বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছে। তাঁর ক্ষমতার অপব্যবহার ও স্বেচ্ছাচারিতার কারণে উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদককে গত ২০ মার্চ বহিস্কার করা হয়েছে। আবু তালেব মেম্বার দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে দীঘিনালায় গত পাঁচ বছর অনুপস্থিত ছিলেন। দলের কোন কর্মসূচীতে অংশ গ্রহণ করেনি। তাঁর স্বেচ্ছাচারিতার কারণে দল থেকে জনবিচ্ছিন্ন দুইজনকে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান মনোনয়ন দেয়ায় দুইজন প্রার্থীই জামানত হারিয়েছেন।

উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মো: ইসলাম বাঁচা বলেন,আবু তালেব মেম্বারের মত একজন চরিত্রহীন মানুষ দিয়ে দীঘিনালা উপজেলা সাংগঠনিক কার্যক্রম চলবে না। সে অসামাজিক কাজে লিপ্ত থাকা অবস্থায় কয়েকবার লোকজনের হাতে ধরা পড়েছেন। দলের নেতাকর্মীদের লজ্জ্বায় ফেলেছেন। তাঁর ইন্ধনে আমাকে বেআইনী ভাবে দল থেকে বহিস্কার করা হয়েছিল। আমরা শুক্রবার জরুরী সভা করে আবু তালেব মেম্বারকে অবাঞ্চিত ঘোষনা এবং তাঁকে দল থেকে বহিস্কারের দাবী করেছি। তাঁর কারণে দলে বিভ্রান্তি ও অর্ন্তকোন্দল সৃষ্টি হয়েছে।

প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুর রহমান মেম্বার বলেন,১১ এপ্রিলের মধ্যে দল থেকে চরিত্রহীন আবু তালেব মেম্বারকে বহিস্কার করা না হয় তাহলে আমরা আলাদা কমিটি গঠন করবো। একই তারিখের মধ্যে উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ইসলাম বাঁচা মেম্বারের বহিস্কার প্রত্যাহার করতে হবে। আমরা দলের সকল বিষয় গুলো লিখিতভাবে কেন্দ্রীয় কমিটিকে জানাবো।

অভিযোগ প্রসঙ্গে উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব মেম্বার বলেন,যারা আমাকে বৈঠক করে অবাঞ্চিত করার ঘোষণা দিয়েছেন তারাই অটো অবাঞ্চিত হয়ে আছেন। আমার বিরুদ্ধে যা অভিযোগ করা হয়েছে সব গুলোই মিথ্যা। যারা এ গুলো করছেন তাঁদেরকে দলে রাখা হবে না বলেও সতর্ক করে দেন তিনি।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

জনপ্রিয় হচ্ছে ‘তৈলাফাং’ ঝর্ণা

করোনার প্রভাবে দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল খাগড়াছড়ির পর্যটন ও বিনোদনকেন্দ্র। তবে টানা বন্ধের পর এখন খুলেছে …

Leave a Reply