নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » দীঘিনালায় ওয়াদুদ গ্রুপ বিভক্ত : বিএনপি এখন তিন ভাগ

দীঘিনালায় ওয়াদুদ গ্রুপ বিভক্ত : বিএনপি এখন তিন ভাগ

wadud-bhuyan-pic-1

খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় বিএনপি (ওয়াদুদ)’র উপজেলা কমিটির সভাপতির স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ তোলে এখন বিভক্তি দেখা দিয়েছে। এর আগে ওয়াদুদ গ্রুপ এবং সমীরণ গ্রুপ পরিচয়ে দুই ভাগে বিভক্ত থাকলেও এখন দীঘিনালায় বিএনপি মূলত তিনভাগে বিভক্ত। গত বৃহষ্পতিবার খাগড়ছড়িতে অনুষ্ঠিত বিএনপির সমাবেশ উপলক্ষে দীঘিনালায় মঙ্গলবার সন্ধায় এক প্রস্তুতি সভায় চেয়ার ছুড়াছুড়ি করে সভা পন্ড হওয়ার মাধ্যমে সর্বশেষ ওয়াদুদ গ্রুপ দুইভাগে বিভক্ত হয়। রাতেই সভাপতি বিরোধীরা পৃথক একটি বৈঠক করে সভাপতির পক্ষের কোন কর্মকান্ডে না থাকার সিদ্ধান্ত নেয়।
বিএনপি এবং অংগ সংগঠনের নেতাকর্মীদের অভিযোগ, উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো: মোসলেম উদ্দিন বিভিন্ন সময়ে অংগসংঠনের কমিটি গঠনকালে সর্বোচ্চ সংখ্যক কর্মীর মতামতকে উপেক্ষা করে নিজের পছন্দের লোকদের গুরুত্বপূর্ন পদে অন্তর্ভূক্ত করেন। পরে সে কমিটি গোপনে অনুমোদন করিয়ে আনার পরই অন্যেরা জানতে পারে। উপজেলা বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মো: নুরুল আফছার ওরফে মোনাফ অভিযোগ করে জানান, চলতি মাসের ১৭ তারিখ মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মদল ও বাস্তুহারা দলের কমিটি গঠনের নির্ধারিত তারিখ ছিল । সেদিন সকল নেতাকর্মী উপস্থিত হলেও সভপাতি মোসলেম উদ্দিন অনুপস্থিত থাকায় কমিটি গঠন করা হয়নি। পরে সভাপতি কাউকে না জানিয়ে ঘরে বসে পছন্দের লোকদের দিয়ে কমিটি করে ফেলেন। এছাড়াও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক নেতাকর্মী জানান, সভাপতির একক ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটিয়ে কমিটি গঠনের কারণে সবার মধ্যে দীর্ঘদিন যাবৎ ক্ষোভ জমতে থাকে। সর্বশেষ মঙ্গলবার বাসটার্মিনাল সংলগ্ন স্থানে প্রস্তুতি সভাতে সভাপতির নিকট এসবের উত্তর চাওয়া হয়। কিন্তু সভাপতি কোন সদুত্তর না দিয়ে বরং উল্টো উত্তেজনা দেখালে উপস্থিত নেতাকর্মীরা ক্ষিপ্ত হলে হাতাহাতি এবং চেয়ার ছুড়াছড়ি শুরু হয়। এক পর্যায়ে সভা ভন্ডুল হয়ে যায়। এর পর সভাপতি বিরোধীরা থানাবাজারে গিয়ে প্রথক একটি বৈঠক করে। সভাপতির সাথে দলীয় কোন কর্মকান্ডে অংশ না নেওয়ার জন্য ওই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়। নিজেদের মধ্যে উত্তেজনার কারণে সভা ভন্ডুল হওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন উপজেলা বিএনপি’র সিনিয়র সহ-সভাপতি মো: মাসুদ রানা। অপরদিকে সভা পন্ড হওয়ার কথা স্বীকার করলেও এককভাবে কমিটি গঠনের অভিযোগ অস্বীকার করে মোসলেম উদ্দিন বলেন, ‘সকলের মতামত ও পরামর্শেই কমিটি গঠন করা হয়েছে।
প্রসঙ্গতঃ গত সংসদ নির্বাচনে ওয়াদুদ ভূইয়া প্রার্থী হতে পারেননী; বিএনপি থেকে মনোনয়ন পেয়ে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনবিএনপির করেন কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সমীরণ দেওয়ান। সেসময় ওয়াদুদ ভূইয়ার ভাতিজা দাউদুল ইসলাম ভূইয়া আনারস প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচন করেন। দীঘিনালার ওয়াদুদ অনূসারীরা তখন আনারস প্রতীকের পক্ষে নির্বাচন করেন। বিএনপির অপর একটি অংশ মূল ধারার সাথে থেকে ধানের শীষের পক্ষে সমীরণ দেওয়ানের নির্বাচন করেন। মূলত তখন থেকেই বিএনপি দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে ওয়াদুদ গ্রুপ এবং সমীরণ গ্রুপ হিসাবে পরিচিত।
একই ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার বাসটার্মিনাল সংলগ্ন গরুবাজার এলাকায় বিএনপি’র ওয়াদুদ সমর্থীত দুই পক্ষ এক বৈটকে বসে। সে বৈঠকে দুই পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাতাহাতিতে রুপ নেয়। দুই পক্ষ মোবাইল ফোনে বিভিন্ন গ্রাম থেকে নিজেদের পক্ষের কর্মী ডেকে আনে। দুই পক্ষের কর্মী সমর্থকরা লাঠি-সোঠা নিয়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু করে। ঘটনার সংবাদ পেয়ে পুরিশ উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে। এব্যাপারে উপজেলা বিএনপি’র সিনিয়ির সহ-সভাপতি মাসুদ রানা বলেন, ‘না বুঝে তরুন ছেলেদের উত্তেজনার কারনে এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিল। পরে অবশ্য সে ভুল বুঝাবুঝির অবসানের চেষ্টা করা হচ্ছে।’

Micro Web Technology

আরো দেখুন

মহালছড়িতে পানিতে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু

খাগড়াছড়ির মহালছড়ি উপজেলার মনাটেক গ্রামে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার দুপুর আড়াইটায় মনাটেক …

Leave a Reply