নীড় পাতা » রাঙামাটি » দিনের বেলায় ডাস্টবিন পরিষ্কার নিয়ে বিড়ম্ভনায় শহরবাসি

দিনের বেলায় ডাস্টবিন পরিষ্কার নিয়ে বিড়ম্ভনায় শহরবাসি

Dustbinরাঙামাটি পৌরসভা দিনের বেলায় রাঙামাটি শহর পরিষ্কার করলেও এনিয়ে অস্বস্তিতে রয়েছেন শহরের ব্যবসায়িরা। ময়লার দুর্গন্ধে ব্যবসায়ীরা এসময়টিতে ব্যবসা করতে পারেন না। অন্যদিকে ক্রেতারাও এসময় পণ্য কেনার জন্য দোকানে আসেন না বলে জানায় ব্যবসায়ীরা।

ব্যবসায়ীরা জানায়, প্রতিদিন দিনের বেলায় রাস্তাঘাটগুলো পরিষ্কার করে সব ময়লা ডাস্টবিনে ফেলা হয়। একই সাথে বাজারের ব্যবসায়ীরাও দোকানের ময়লা ডাস্টবিনে ফেলেন। বিশেষত ডাস্টবিনে ফেলা কাঁচা পণ্যগুলো পঁচে গ্যাস সৃষ্টি হয়। ময়লা অপসারণের সময় গ্যাস বেড়ি হয়ে গন্ধের তীব্রতা বাড়িয়ে দেয়। পৌরসভা ডাস্টবিনের ময়লা রাত্রে পরিষ্কার করলে ব্যবসায়ীদের জন্য আরো বেশি সুবিধা হতো।

রিজার্ভ বাজার কাঁচা বাজার সড়কের ব্যবসায়ী মঈনুদ্দিন বলেন, ময়লা পরিষ্কারের সময় দোকানে বসে বেচা-কেনা করা অসম্ভব হয়ে পড়ে এবং দোকানে কোনও ক্রেতা আসে না। ময়লা নিয়ে যাওয়ার পরও প্রায় ঘন্টা খানেক দুর্গন্ধ থেকে যায়।

রাসেল পাল বলেন, ময়লা পরিষ্কার দিনে না করে, যদি রাতে করা হত বা ভোরে লোক চলাচল করার আগে করা হয়, তাহলে কোনও সমস্যা হত না। স্থানীয় বাসিন্দা সাজু দে বলেন, রাঙামাটি পর্যটন নগরী হওয়ায় ময়লা পরিষ্কারের সময় দুর্গন্ধে বহু পর্যটকেরর চলাচলে ব্যাঘাত ঘটে।

রাঙামাটি পৌরসভার প্যানেল মেয়র মোঃ হেলাল উদ্দিন বলেন, এটা আমাদের আগে থেকে চিন্তা ছিল এবং সভায়ও আলোচনা করা হয়েছে। কিন্তু পরিষ্কার কর্মীদের যে বেতন দেয়া হয় তা দিয়ে তাদের রাতের বেলায় যাতায়াত করানো সম্ভব নয়। এই মুহুর্তে আর্থিক সংকটের কারণে তাদের বেতন বাড়ানো বা দুই শিফটে কাজ করানো সম্ভব হচ্ছে না। আমরা তাদের বাসস্থানের ব্যবস্থা করতে পারি নাই। যদি তাদের বাসস্থানের ব্যবস্থা করা যেত তাহলেও করা সম্ভব হত। অর্থ ও আবাসন সমস্যা নিরসন করতে পারলে এই ব্যবস্থা চালু করা সম্ভব হবে বলেও জানান তিনি।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বাজার তদারকিতে রাঙামাটির জেলা প্রশাসক

নভেল করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউের সংক্রামন রোধে চলমান লকডাউনে ও রমজান মাসে দ্রব্যমূল্যের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে …

Leave a Reply