নীড় পাতা » বান্দরবান » থানচিতে হেডম্যান কার্যালয়ে আগুন

থানচিতে হেডম্যান কার্যালয়ে আগুন

বান্দরবানে থানচিতে মৌজা হেডম্যানের কার্যালয় আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। গত রোববার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে ৩৬২নং থানচি মৌজা হেডম্যানের কার্যালয়ে আগুন দেখা যায়। আগুনে কার্যালয়ের আসবাবপত্র প্রায় ৮ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে।

স্থানীয়রা জানান, জনসাধারণের সঙ্গে সার্বক্ষনিক যোগাযোগ ও মৌজাবাসীদের সাথে সভা বসার জন্য হেডম্যানের নিজস্ব উদ্যোগে ও নিজস্ব অর্থায়নের ২০০৮ সালে ৩৬২ নং থানচি মৌজা হেডম্যান কার্যালয় নির্মাণ করা হয়। ৩৬২ নং থানচি মৌজা হেডম্যান ও থানচি উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান হ্লাফসু র্মামা হেডম্যান ৫ বছর নিয়মিত ব্যবহারের পর ২০১৩ সালে হেডম্যান কার্যালয়টি যে ভূমিতে নির্মিত করা হয়েছিল তার ওপর ভূমি মালিকানা নিয়ে থানচি সদর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মৃত মংওয়েই মারমার ছেলে মংমংসিং মারমা আদালতে মামলা করা হলে আদালত ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিলে কার্যালয়টি অব্যবহৃত রয়েছে দীর্ঘদিন যাবৎ।

হ্লাফসু হেডম্যানের ভাই ও উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতা অংশৈসা মারমা জানান, ২০১৩ সালে ভূমি মালিকানা নিয়ে আদালতে মামলা হলে আদালত ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিলে ৭বছর ধরে অব্যবহৃত ছিল। কিন্তু হটাৎ কে বা কারা আগুন লাগিয়ে দিয়েছে তা জানিনা। অপব্যবহৃত বা পরিত্যক্ত থাকলেও আগুন লাগার মত কোনো কিছুই সেখানে নেই।

থানচি মৌজা হেডম্যান ও থানচি উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান হ্লাফসু র্মামা জানান, ‘আমি গত কয়েকদিন যাবৎ বান্দরবানের বাড়িতে অসুস্থ হয়ে চিকিৎসাধীন আছি। চিকিৎসকের পরামর্শ মতে বিশ্রামে রয়েছি। তবে সুস্থ হলে ঘটনা স্থলে গিয়ে সরেজমিনে দেখতে যাব। কার্যালয় নির্মাণ করতে ৮-৯ লাখ টাকা আসবাবপত্রসহ খরচ হয়েছে।’

এ ব্যাপারে থানচি থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. জোবাইরুল হক জানান, হেডম্যান কার্যালয়ে আগুন লাগানোর খবর আমরা পেয়েছি। পাহাড়ে পরিত্যক্ত ঘরে কেউ বিড়ি সিগারেট খেয়ে অসাবধানতাভাবে ফেলে দেয়ার কারণে হয়ত আগুন লাগতে পারে।’

Micro Web Technology

আরো দেখুন

প্রতিবন্ধী নারীকে ধর্ষণ চেষ্টা, যুবক গ্রেফতার

রাঙামাটিতে বুদ্ধি ও শারিরীক প্রতিবন্ধী এক নারীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। …

Leave a Reply