নীড় পাতা » পার্বত্য পুরাণ » ত্রিপুরা ভাষার কাব্যগ্রন্থ ‘এমাংনি খুমতাং’র মোড়ক উন্মোচন

ত্রিপুরা ভাষার কাব্যগ্রন্থ ‘এমাংনি খুমতাং’র মোড়ক উন্মোচন

মোড়ক উন্মোচিত হলো ত্রিপুরা ভাষায় রচিত মুকুল কান্তি ত্রিপুরার প্রথম কাব্যগ্রন্থ এমাংনি খুমতাং। যার অর্থ স্বপ্নের পুষ্পমাল্য। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাঙামাটি ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে প্রধান অতিথি হিসেবে কাব্যগ্রন্থের মোড়ক ও প্রচ্ছদ উন্মোচন করেছেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা, এনডিসি।

মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ বেতার রাঙামাটি আঞ্চলিক কার্যালয়ের পরিচালক মো. সেলিম, বিশিষ্ট কবি ও নাট্যকার মৃত্তিকা চাকমা, বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রীতি কান্তি ত্রিপুরা, রাঙামাটি ত্রিপুরা কল্যাণ ফাউন্ডেশনের সভাপতি সুরেশ কান্তি ত্রিপুরা, বেগম রোকেয়া পদকপ্রাপ্ত কথা সাহিত্যিক শোভা রাণী ত্রিপুরা, বিশিষ্ট কবি ও সাহিত্যিক হাসান মনজু প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কাব্যগন্থের রচয়িতা মুকুল কান্তি ত্রিপুরা। এসময় তিনি বলেন, ‘এমানিং খুমতাং’ ত্রিপুরা ভাষার দু’টি শব্দ। যার বাংলা অর্থ স্বপ্নের পুষ্পমাল্য। জুম-পাহাড়ের বৈচিত্রময় চিত্রগুলো এবং মনের গহীনের অব্যক্ত কথামালার মিশ্রিত প্রতিফলন হলো ‘এমানিং খুমতাং’।

প্রসঙ্গত, মুকুল কান্তি ত্রিপুরা; রাঙামাটি পাবলিক কলেজের ইতিহাস বিভাগের প্রভাষক। তিনি পার্বত্য চট্টগ্রামের খাগড়াছড়ি জেলার দীঘিনালা উপজেলার রামরতন কার্বারি পাড়ার খোকা রঞ্জন ত্রিপুরা ও কনিকা ত্রিপুরা দম্পতির জ্যেষ্ঠ সন্তান। তাঁর লেখালেখি শুরু কৈশরে ছড়া, কবিতা মধ্য দিয়েই। এমাংনি খুমতাং ছাড়াও তিনি আরও বেশ কয়েকটি গ্রন্থ লেখা ও সম্পাদনা করেছেন।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

কাপ্তাইয়ে করোনা সংক্রমণ কমছে

প্রশাসনের কঠোর নজরদারি এবং থানা পুলিশের তৎপরতায় রাঙামাটির কাপ্তাইয়ে করোনা সংক্রমন হার কমছে। কাপ্তাই উপজেলা …

Leave a Reply