নীড় পাতা » ব্রেকিং » তরুণদের দ্রুত বেগে গাড়ি চালানো নিয়ন্ত্রণ করা হবে: পুলিশ সুপার

রাঙামাটিতে আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায়

তরুণদের দ্রুত বেগে গাড়ি চালানো নিয়ন্ত্রণ করা হবে: পুলিশ সুপার

রাঙামাটিতে আইন-শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার সকালে রাঙামাটি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে রাঙামাটির জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদের সভাপতিত্বে ও অতিরিক্তি জেলা প্রশাসক শিল্পী রানী রায়ের পরিচালনায় উপস্থিত ছিলেন রাঙামাটির পুলিশ সুপার আলমগীর কবির, রাঙামাটি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. মঈন উদ্দিন, সিভিল সার্জন শহীদ তালুকদার, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য হাজী মো. কামাল উদ্দিন, রাঙামাটি প্রেসক্লাবের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন রুবেল, রাঙামাটি জেলা পরিষদের সদস্য ত্রিদীব কান্তি দাশ, উপজেলা চেয়ারম্যানগণ, উপজেলা নির্বাহী অফিসারবৃন্দসহ রাঙামাটির বিভিন্ন দপ্তরের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও সামাজিক নেতৃবৃন্দ।

মাসিক আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় জেলার নানা সমস্যা ও সমাধানের বিষয় নিয়ে আলোচনায় করা হয় এবং মুজিববর্ষ পালনে বিভিন্ন বিভাগগুলো যাতে আলাদা আলাদা প্রোগ্রাম হাতে নেয়, শহরে সড়কে যততত্র মালামাল রাখার বিরুদ্ধে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা, মোটরসাইকেল চালকদের লাইন্সেস ও হেলমেট আছে কিনা সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়াসহ বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নেয়া হয় এই সভায়।

রাঙামাটির জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশিদ বলেন, রাঙামাটির উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের নিয়ে আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভা হয় এতে অনেক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বা জনপ্রতিনিধিদের সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড বা সরকার বিরোধী বক্তব্য চলে আসে, আপনি যখন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বা জনপ্রতিনিধি হয়েছেন তখন সরকারের একজন কর্মকর্তা হিসেবে পরিগণিত হবেন সুতরাং সেখানে সরকারের উন্নয়নের স্বার্থে দেশের উন্নয়নের স্বার্থে কথা বলতে হবে। পরবর্তীতে এইসভাগুলোতে যদি কোন সরকার বিরোধী বক্তব্য আসে আমরা তা সিরিয়াসলি নেব। এই ধরনের ঘটনা যে কোন একটি উপজেলাই হয়েছে। এছাড়াও তিনি মুজিব বর্ষ পালনে সকল বিভাগকে আলাদা আলাদা প্রোগ্রাম করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার বিভিন্ন পরার্মশ দেন।

রাঙামাটির পুলিশ সুপার আলমগীর কবীর আইন-শৃঙ্খলা সভার কয়েকজন সদস্যের উত্তরে বলেন, রাঙামাটিতে লাইন্সেস বিহীন অল্পবয়সী ছেলেদের মোটরসাইকেল আপনারা চালাতে দেন কেন? অভিভাবকরা মোটরসাইকেল চালাতে দেয় বিধায় কম বয়সী এইসব তরুণ গাড়ি চালাতে পারে। এটা নিয়ে আপনাদেরই সামাজিক সচেতনতা গড়ে তুলতে হবে। অভিভাবকরা সচেতন হলে দ্রুত গতিতে মোটরসাইকেল তো দূরের কথা এসব তরুণ মোটরসাইকেলও চালাতো না। আমি আমার বাবার মোটসাইকেলে হাত দিতে পেরেছিলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর। তারপরও তরুণদের দ্রুত বেগে গাড়ি চালানো নিয়ন্ত্রণ করা হবে।

আমাদের মুজিব বর্ষের প্রতিপাদ্য হতে পারে ‘টাইমলি আমাদের যে সার্ভিসগুলো আছে তা দেওয়া’ এতে করে জনভোগান্তি কমে যাবে, আমাদের উদ্দেশ্যও সফল হবে। তাহলে আমরা প্রত্যেকটা বিভাগ কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছে যাব।

এতে রাঙামাটি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. মঈন উদ্দিন বলেন, রাঙামাটিতে কোন এক সময় অর্ধেক ভাড়াই শিক্ষার্থীরা বাসে চড়তো। কিন্ত কয়েক বছর আগে সে ব্যবস্থাটি বন্ধ হয়ে যায়। তিনি শিক্ষার্থীদের অর্ধেক ভাড়াই বাসে যাতায়াতের আবেদনের কথা জানিয়ে বিষয়টি নিয়ে বাস মালিক সমিতির সাথে জেলা প্রশাসকে কথা বলার আহবান জানান।

রাঙামাটিতে নতুন যোগদান করা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী জানান, আমরা রাঙামাটির আসামবস্তি-কাপ্তাই সড়ক সংস্কারের প্রকল্প হাতে নিয়েছি। আশা করছি আগামী ডিসেম্বর জানুয়ারিতে দরপত্র আহবান করতে পারবো।

দীর্ঘদিন শূন্য থাকার পর রাঙামাটির সড়ক বিভাগে যোগদান করা নির্বাহী প্রকৌশলী ফাহিম আফসানা জানান, আমি কিছুদিন আগে যোগদান করেছি। যে সকল সড়ক সংস্কারের প্রয়োজন আমি তা দ্রুত ব্যবস্থা নিব।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

কাপ্তাইয়ে ওষুধ সম্পর্কে মতবিনিময় সভা

বাংলাদেশ কেমিস্ট এন্ড ড্রাগিস্ট সমিতি কর্তৃক নকল, ভেজাল ও মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ সম্পর্কে জনসচেতনতা ফিরিয়ে আনতে …

Leave a Reply