টিআইবি ও সনাকের কার্যক্রমে অসন্তোষ সাংবাদিকদের

tib-02যথাসময়েই শুরু হয় শুরু হয় মতবিনিময় সভা। শুরুতেই নিজেদের কার্যক্রম সম্পর্কে ধারণা দেয় প্রতিষ্ঠানটি। এরপর খোলামেলা আলোচনা আর সাংবাদিকদের মতামত চেয়ে ফ্লোর ওপেন করে দেয়া হয়।
শুরুতেই মাইক্রোফোন হাতে নিয়েই টিআইবি ও সনাকের বিভিন্ন কার্যক্রমের উপর আলোচনায় অংশ নিয়ে ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভি ও দৈনিক মানবকন্ঠের রাঙামাটি প্রতিনিধি হিমেল চাকমা টিআইবিকে প্রশ্ন করেন, কি এমন দুর্নীতি খুঁজে বের করেছেন যা আমরা নিউজ করতে পারবো। আপনাদের কার্যক্রম নিয়ে পজেটিভ রিপোর্ট করতে বলেন, কিন্তু পজেটিভ রিপোর্ট করার মতো কোনো কাজই তো আপনারা ইতোমধ্যে করতে পারেননি। আমরা তথ্য অধিকার আইনের মাধ্যমে বিভিন্ন অফিসের অনিয়ম-দুর্নীতি নিয়ে নথি পত্র সংগ্রহ করে টিআইবিকে দিই। আর টিআইবি সেসব নথি নিয়ে কোনো কাজই করেনা।’

সম্প্রতি জেলা পরিষদে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে টিআইবি’র নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ এনে তিনি বলেন, দুর্নীতির নিউজ করতে গিয়ে যখন সনাকের কোনো একজন সদস্যর বক্তব্য নিতে চাই,তিনি সরাসরিই বলেন, এসব বলা কি আমার উচিত হবে, আমিতো এসবের কিছুই জানিনা। সনাকের সদস্য হয়ে যদি এমন কথা বলেন, সেখানে তাকে কিভাবে আমরা সচেতন নাগরিক হিসেবে মনে করতে পারি।

তিনি আরো বলেন,আপনাদের সহযোগিতা করার জন্যই আপনাদের ডাকে সাড়া দিয়ে এখানে এসেছি। আপনারাতো এর জন্য কোনো টাকা-পয়সা দিবেন না। কিন্তু এখানে এসে আপনাদের কাছ থেকে এমন কোনো তথ্য পেলাম না, যা দিয়ে নিউজ করা যাবে। কোনো অফিসের অনিয়ম-দুর্নীতি সম্পর্কেও স্পষ্ট কোনো তথ্য দিতে পারেননি। শুধু অমুক জায়গায় মা সমাবেশ, তমুক জায়গায় লোকজনকে সচেতন করা, এইসবইতো দেখালেন।
তার বক্তব্য চলাকালিন সময়ে একাধিকবার টিআইবি’র কর্মকর্তারা মাইক্রোফোন হাতে বক্তব্য সংক্ষিপ্ত করার জন্য বলেন। এসময় পুরো হল জুড়ে পিনপতন নীরবতা।

হিমেলের বক্তব্যের পর দৈনিক প্রথম আলো’র রাঙামাটি প্রতিনিধি হরি কিশোর চাকমাও একই অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, আমি সনাকের একজন সদস্য হয়েও কোনো ধরনের দুর্নীতির তথ্যই পাইনি কোনো সময়। সনাক এভাবে কাজ করলে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কোনো কাজই হবেনা। যেসব দুর্নীতি অনিয়ম হয় সেসব বিষয়ে তদন্ত ও গবেষনার মাধ্যমে তথ্য প্রকাশ করলেই তবে সনাকের কাজ যথাযথ হবে বলে মনে করি।

রাঙামাটি প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও দৈনিক সংবাদের পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি সুনীল কান্তি দে বলেন, আপনারা ঢাকার চিন্তা মাথায় নিয়ে পাহাড়ে কাজ করতে পারবেননা। আপনাদের স্থানীয় বাস্তবতা,আইন ও বিধিবিধান জেনেই কাজ করতে হবে।

সাংবাদিকদের অভিযোগের পর টিআইবির পক্ষ থেকে বলা হয়, দুর্নীতির অনুসন্ধান কিংবা এর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়া টিআইবির কাজ নয়। টিআইবি মূলত: এডভোকেসির মাধ্যমে সচেতনতার কাজ করে থাকে। দুর্নীতি তদন্ত ও এর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়া দুদক এর কাজ বলেও জানান তারা।

শনিবার রাঙামাটিতে সনাক এর স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভাতেই পাহাড়ের সংবাদকর্মীদের তীব্র ক্ষোভের মুখে পড়ে সংস্থাটি।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

কারাতে ফেডারেশনের ব্ল্যাক বেল্ট প্রাপ্তদের সংবর্ধনা

বাংলাদেশ কারাতে ফেডারেশন হতে ২০২১ সালে ব্ল্যাক বেল্ট বিজয়ী রাঙামাটির কারাতে খেলোয়াড়দের সংবধর্না দিয়েছে রাঙামাটি …

Leave a Reply