নীড় পাতা » পার্বত্য পুরাণ » জেসমিন সুরভী’র কবিতাগুচ্ছ

জেসমিন সুরভী’র কবিতাগুচ্ছ

নির্মম

কি নির্মম এই পৃথিবী,
কি নির্মম এই বাস্তবতা?
কত যে কত নিকৃষ্টতা,
কোথায় যে আছে মানবতা?

দিন পেরিয়ে দিন আনা,
রাত পেরিয়ে ভোর।
বৃত্তের মতো ঘুরে ঘুরে,
কাটছে কতো ঘোর।

কেউ পায়, কেউ পায় না,
কেউ আবার ফিরেও চায় না।
শত দুয়ার ঘুরে ঘুরে,
শূন্য হাতে ঘরে ফিরে।

ধনীর দুয়ার বন্ধ থাকে,
প্রভুর দুয়ার খোলা থাকে।
সব ধনী প্রভু হয় না,
কিছু মানুষ কভূ পায় না।

স্বপ্নজুড়ি

কিছু স্বপ্ন অনুভব করা যায়, ছোঁয়া যায় না।
শরৎ চলে গেলে, হেমন্ত আসে।
স্বপ্নগুলো তালাবদ্ধ হয়ে রয়েই যায়।
মনে লুকায়িত স্বপ্ন পূরণের আশা থাকে।

আকাশ আমাকে ভাবায়, কখনো শেখায়।
নীল, সাদা,কালো, ধূসর মেঘ ঘুরে বেড়ায়।
এক প্রান্তে এসে জমে থাকে আবার হারায়।
আকাশের ভাষা বুঝা অতটা সহজসাধ্য নয়।

আসলে জীবন যার, বাস্তবিক উপলব্ধি তার।
আকাশে উড়ানো ঘুড়ির সুতোর মতো টান।
নয় আধিপত্য নয় বিস্তার শুধু হাসিটুকু বেঁচে থাক।
কিছু স্বপ্ন লুকায়িত থেকেই যাক।

একদিকে স্বপ্ন পূরণের দ্বার উন্মোচিত হয় না।
অন্যদিকে এগিয়ে যাও, ভয় পেয়ে থেমে থাকতে নেই।
তোমার জীবন একান্তই তোমার তুমি এগিয়ে যাও।
হঠাৎ স্বপ্নগুলো সুতোয় টান টান ঘুড়ির মতো উড়বে।

বিলাসিতা

সকালের সূর্য খুঁজেছো, কিন্তুু সকাল গড়িয়ে দুপুর খুঁজোনি
পড়ন্ত বিকেল খুঁজেছো, কিন্তু পড়ন্ত দুপুর খুঁজোনি
সন্ধ্যার আকাশ খুঁজেছো, কিন্তুু সন্ধ্যা গড়িয়ে রাত খুঁজোনি।
রাতের আকাশে তারা খুঁজেছো, কিন্তু মধ্যরাতের আকাশ খুঁজোনি
সবসময় গোলাপ নিতে চেয়েছো, ডোবার জলে শাপলাকে ফিরেও তাকাওনিঅ

লাভ বার্ড খুঁজেছো, চড়ুই খুঁজো নি!
ধনীকে বন্ধু বানিয়েছো, গরীবকে বন্ধু নামে তুচ্ছ করেছো।
বাড়ির সামনে বৃদ্ধ লোককে তাড়িয়ে দিয়েছো,
খোলা ময়দানে লোক দেখিয়ে বৃদ্ধকে জড়িয়ে নিয়েছো।
নিজেকে জনদরদী প্রকাশ করেছো, মধ্যবিত্তকে সাহায্যের নামে কাঁদিয়ে দিয়েছো।
অন্যের পেটে ছুরি মেরে, ঠিকই সব হাতিয়ে নিয়েছো।

লাল গালিচায় হেঁটে হেঁটে, কত টাকা ছুঁড়ে দিয়েছো।
নিজের প্লেটে বিরিয়ানি আর অন্যের প্লেটে নুন-পানতা,
তবুও তোমার বিলাসিতা, আকাশ কুসুম বিলাসিতা…

আর কোনো অপেক্ষা নেই

প্রতিটি ভোরে সূর্যের সাথে আমার ঘুম ভাঙে, তাই
আর কোনো অপেক্ষা নেই।
আকাশে মেঘের গর্জন শুনে মন শিউরে উঠে,
আর কোনো অপেক্ষা নেই।

নীল দিগন্তের কাছে এসে দাড়িয়ে থাকি, তবু
আর কোনো অপেক্ষা নেই।
অজস্র বৃষ্টি পড়ে উঠোন তলিয়ে গেলেও,
আর কোনো অপেক্ষা নেই।

গোধুলী বিকেলের হাওয়ায় পাখিগুলো নীড়ে ফিরলেও,
আর কোনো অপেক্ষা নেই।
জোড়া শালিক একসাথে বসে থাকে, তবু
আর কোনো অপেক্ষা নেই।

অদূরে আকাশ হতে সন্ধ্যা নেমে আসলেও,
আর কোনো অপেক্ষা নেই।
তরুণী সাঝে জানালা বন্ধ ঘরে চুপচাপ বসে থাকলেও,
আর কোনো অপেক্ষা নেই।

রাত্রি অবধি প্রিয়টার কথা অতি জানার ইচ্ছা থাকলেও,
আর কোনো অপেক্ষা নেই।
রাতে ভুতুম পেঁচা আওয়াজ করলেও,
আর কোনো অপেক্ষা নেই।

যেখানে হারিয়ে যাওয়া নিশ্চিত সেখানে,
আর কোনো অপেক্ষা নেই।
সব শেষে রাত্রি তারা গুণলেও,
আর কোনো অপেক্ষা নেই।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

জেসমিন সুরভী’র কবিতাগুচ্ছ

গন্তব্যের পথিক হাস্যরসাত্মক এই পৃথিবীর বুকে, পথিক চিন্তায় মগ্ন থাকে প্রতিটি ক্ষণে! কখনো ঘুরে দাঁড়ানোর …

Leave a Reply