নীড় পাতা » বান্দরবান » জেএসএস’কে হুঁশিয়ারী আওয়ামীলীগের

জেএসএস’কে হুঁশিয়ারী আওয়ামীলীগের

JSS flag coverবান্দরবানে জনসংহতি সমিতি (জেএসএস)’কে চাঁদাবাজি-সন্ত্রাসী কর্মকান্ড বন্ধে হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করেছে আওয়ামীলীগ। বৃহস্পতিবার বান্দরবানে বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চে জেলা আওয়ামীলীগ আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে আওয়ামীলীগের নেতারা এই ঘোষণা দেন।

জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি শফিকুর রহমানের সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতা আবদুর রহিম চৌধুরী, একে এম জাহাঙ্গীর, সাধারণ সম্পাদক ও বান্দরবান পৌরসভার মেয়র মো: ইসলাম বেবী, যুগ্ম সম্পাদক লক্ষি পদ দাশ’সহ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

সমাবেশে আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতা আবদুর রহিম চৌধুরী বলেন, জেএসএস’র চাঁদাবাজি-সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে অতিষ্ঠ পাহাড়ের মানুষ। দুর্গমাঞ্চলে পাহাড়ী-বাঙ্গালী সকলেই জেএসএস’র সন্ত্রাসী বাহিনীর কাছে জিম্মি। অবিলম্বে চাদাবাজি-সন্ত্রাসী কর্মকান্ড বন্ধে হুঁশিয়ার করছি। সন্ত্রাসী কর্মকান্ড বন্ধ করা না হলে পার্বত্যাঞ্চল থেকে জেএসএস’কে উৎখাত করা হবে বলেও হুমকি দেন এই আওয়ামীলীগ নেতা।

আওয়ামীলীগ সহ-সভাপতি শফিকুর রহমান বলেন, জেএসএস অস্ত্রের দাপট দেখিয়ে পার্বত্যাঞ্চল শাসন করতে চায়। জনসংহতি সমিতি এবং পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের অব্যাহত চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ড বন্ধে সরকারের দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া দরকার। সরকারী সংস্থাগুলোতে জেএসএস’র সন্ত্রাসী কর্মকান্ড বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানান তিনি।

এদিকে সমাবেশে আগে জেলা শহরের রাজারমাঠ থেকে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা শহরে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি শহরে গুরুত্বপূর্ন সড়কগুলো প্রদক্ষিন মুক্তমঞ্চে গিয়ে শেষ হয়। মিছিল থেকে আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা জেএসএস প্রধান সন্তু লারমা এবং বান্দরবানের স্থানীয় নেতা কে এস মং মারমা’কে ‘চাঁদাবাজদের নেতা’ আখ্যায়িত করে তাদের ‘গালে গালে জুতা মার তালে তালে’ স্লোগান’সহ বিভিন্ন ধরণের স্লোগান দেন।
প্রসঙ্গত, জেলায় ইউপি নির্বাচনে ২৫টি ইউনিয়নের মধ্যে আওয়ামীলীগ ২০টি, বিএনপি ৩টি, জেএসএস স্বতন্ত্র প্রার্থী ১টি, এবং আওয়ামীলীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী ১টিতে জয়ী হয়েছেন। জেএসএস’র অভিযোগ, অভিনব কায়দায় জাল ব্যালট পেপারের মাধ্যমে ভোট কারচুপি করে জনগণকে ধোঁকা দিয়ে এবং ভোটাধিকারের মত জনগনের সাংবিধানিক অধিকার ভুলন্ঠিত করে বান্দরবানে চারটি ইউনিয়ন ছাড়া ২১টি ইউপি’তে আওয়ামীলীগের প্রার্থীদের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার জোরে অবৈধভাবে জয়ী ঘোষণা করা হয়েছে। তবে আওয়ামীলীগ জনসংহতি সমিতির এসব অভিযোগকে মিথ্যা,ভিত্তিহীন এবং পরাজিতের অপ্রপচার বলে মন্তব্য করেছে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

স্বাস্থ্য বিভাগকে সুরক্ষা সামগ্রী দিলো রাঙামাটি রেড ক্রিসেন্ট

নভেল করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে রাঙামাটির ১২টি সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কেন্দ্রসমূহে স্বাস্থ্য …

Leave a Reply