নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » জুরাছড়িতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সাথেই লড়াই জেএসএস’র

জুরাছড়িতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সাথেই লড়াই জেএসএস’র

Cover-Piccccরাঙামাটির জুরাছড়ি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সাথেই লড়বে আঞ্চলিক দল জেএসএস প্রার্থী। বিএনপি-আওয়ামীলীগসহ আর কোনো দলের প্রার্থী না থাকায় এ উপজেলায় আছে শুধু আঞ্চলিক দল পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি(জেএসএস) প্রার্থী। জেএসএস ছাড়াও পার্বত্যাঞ্চলে আঞ্চলিক দল জেএসএস(এমএনলারমা) ও ইউপিডিএফ-এর কার্যক্রম রয়েছে। কিন্তু পার্বত্যাঞ্চলের অন্যান্য উপজেলায় এসব আঞ্চলিক দল প্রার্থী দিলেও এ উপজেলায় নেই আর কোনো আঞ্চলিক দলের প্রার্থী।
নিবার্চন কমিশনে নিবন্ধিত বিএনপি-আওয়ামীলীগ ছাড়া আর কোনো দলের তেমন একটা প্রভাব বা কার্যক্রম নেই পার্বত্যাঞ্চলে। বিগত সংসদ নির্বাচনগুলোতে দেশের এ দুই বৃহৎ দলের প্রতিনিধিরাই নির্বাচিত হলেও এবার পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতে তিনবারের বিজয়ী আওয়ামীলীগ প্রার্থীকে পরাজিত করে নির্বাচিত হয়েছেন আঞ্চলিক দল পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি(জেএসএস) সমর্থিত প্রার্থী ঊষাতন তালুকদার।
সম্প্রতি অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জেলার নানিয়ারচর, বাঘাইছড়ি এবং বরকল উপজেলাগুলোতেও নির্বাচিত হয়েছেন আঞ্চলিক দলগুলোর প্রার্থী।
আগামী ২৩ মার্চ অনুষ্ঠেয় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জুরাছড়ি উপজেলায় বিএনপি কিংবা আওয়ামীলীগের প্রার্থী না থাকায় দলীয় কর্মী সমর্থক ও সাধারন ভোটারদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। উভয়দলের মুল শাখা সংগঠন ছাড়াও দলের অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনেরও শাখা রয়েছে এই উপজেলায়। সে হিসেবে উভয় দলের শক্ত অবস্থানও রয়েছে এখানে। এরপরেও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান কিংবা ভাইস-চেয়ারম্যান পদে দলের প্রার্থী না দেয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে নেতৃবৃন্দ আঞ্চলিকদলগুলোর অস্ত্রবাজিকেই দুষলেন। প্রার্থীদের নিরাপত্তার ভয়ে তারা প্রার্থী দেননি বলে জানান। তবে আঞ্চলিকদলগুলোর নেতৃবৃন্দ এ অভিযোগকে ভিত্তিহীন উল্লে¬খ করে জানান, নিজেদের পরাজয় নিশ্চিত জেনেই তারা দলীয় প্রার্থী ঘোষনা করেননি।

রাঙামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হাজী মোঃ মুছা মাতব্বর বলেন, বিগত উপজেলা নির্বচনে এ উপজেলায় আওয়ামীলীগের প্রার্থীই চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিল। কিন্তু এবার যেসমস্ত প্রার্থী সম্ভাব্য ছিল। তারা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করলে আঞ্চলিকদল জেএসএস প্রাননাশের হুমকি দিয়েছেন বলে জানান তিনি। মূলত প্রার্থীদের প্রাননাশের হুমকি প্রদানের কারণেই এ উপজেলায় দলীয় প্রার্থী নির্বাচন করছেন না।

রাঙামাটি জেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক মোঃ শাহ আলম দলীয় প্রার্থীকে আঞ্চলিকদগুলোর হুমকি-ধামকির বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, মূলত কৌশলগত কারণেই এ উপজেলায় দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করা হয়নি।

এদিকে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সহ তথ্য ও প্রচার সম্পাদক সজীব চাকমা এসব অভিযোগ ভিত্তিহীন উল্লে¬খ করে বলেন, এসব ডাহা মিথ্যা। তারা ভালো করে না জেনেই এমন মিথ্যাচার করছে। তিনি সুরেশ চাকমাকে বিএনপির’র এবং বিরঙ্গলাল চাকমাকে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে উল্লে¬খ করেন।
যদিওবা এ দুই প্রার্থী স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন।
এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে তিনজন, ভাইস-চেয়ারম্যান পদে তিনজন এবং মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান পদে দুইজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করছেন।
প্রসঙ্গত, এর আগে দেশের বৃহত্তম উপজেলা বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধিত দলগুলোর কোনোটিই অংশ নেয়নি। নির্বাচনে প্রার্থী ছিল পার্বত্য অঞ্চলের তিন আঞ্চলিক দল জেএসএস, ইউপিডিএফ ও জেএসএস(এমএনলারমা) সমর্থিত প্রার্থী।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লংগদুতে মাছের পোনা অবমুক্ত

রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদে কার্প জাতীয় মাছের উৎপাদন ও বংশবৃদ্ধির লক্ষে লংগদুতে পোনা অবমুক্ত করা হয়েছে। …

Leave a Reply