নীড় পাতা » ব্রেকিং » জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকী ঘিরে রাঙামাটিতে বর্ণাঢ্য আয়োজন

জাতির জনকের জন্মশতবার্ষিকী ঘিরে রাঙামাটিতে বর্ণাঢ্য আয়োজন

আগামী ১৭মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে রাঙামাটিতে বর্ণাঢ্য আয়োজনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। এদিন শত পাউন্ডের কেক কাটা হবে, আকাশে উড়বে বাহারি রঙের বেলুন ও শান্তির প্রতীক পায়রা। আয়োজন থাকবে বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও শিশু কিশোর সমাবেশের। সোমবার সকালে রাঙামাটি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী আয়োজনের প্রস্তুতি সভায় এসব কথা জানানো হয়েছে।

প্রস্তত্তিমূলক সভায় রাঙামাটির জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শিল্পী রানী রায়, রাঙামাটির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মাইনুদ্দিন, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হাজী মো. কামাল উদ্দিন, রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য ত্রিদিব কান্তি দাশ, জেলা শিক্ষা অফিসার উত্তম খীসা, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. খোশেদ আলম, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ফাতেমা তুজ জোহরা উপমা, কাউখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) শতরূপা তালুকদার প্রমুখ।

এসময় বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও মুজিববর্ষ উদযাপনের বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়। এতে সকলের মতামতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, রাঙামাটিতে ১৭মার্চ জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিতে শিশু সমাবেশ আয়োজন করা হবে রাঙাামাটি মারী স্টেডিয়ামে। বর্ণিল সাজে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও দলমত নির্বিশেষে সকল মানুষের উপস্থিতিতে আয়োজন করা হবে বর্ণাঢ্য র‌্যালি। যে র‌্যালিতে বর্ণিল সাজে সর্জ্জিত একশত শিক্ষার্থীর হাতে থাকবে বেলুন। কাটা হবে একশত পাউন্ডের কেক। মুক্ত আকাশে উড়ানো হবে পায়রা। চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হবে। থাকবে রাঙামাটি শিশু একাডেমি, শিল্পকলা একাডেমি ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী ইনস্টিটিউটের শিল্পীদের আলাদা আলাদা পরিবেশনাসহ তারকা শিল্পীদের পরিবেশনা। এছাড়াও সকালে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে অর্পন করা হবে পুষ্পমাল্য, সরকারি-বেসরকারি ও সায়ত্বশাসিত ভবনে উড়ানো হবে জাতীয় পতাকা।

জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মাইনুদ্দিন সভায় বলেন, মুজিব বর্ষকে ঘিরে যে কোনো আয়োজনে আমরা আপনাদের পাশে আছি। আমরা সকলে মিলে মিশে একসাথে এই মুজিববর্ষ পালন করব।

সভায় জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ জানান, ১৭মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীকে আমরা বর্ণিল ভাবে পালন করতে চাই এবং মুজিব বর্ষে আমরা নতুন প্রজন্মের কাছে বঙ্গবন্ধুকে তুলে ধরবো। দিনটিতে তিনি সকল সংগঠনকে আলাদা আলাদা আয়োজন না করে দলমত নির্বিশেষে সকলকে জেলা প্রশাসনের এই আয়োজনে সামিল হওয়ার আহবান জানান। এছাড়াও মুজিববর্ষের সারা বছর ঘিরে জেলা প্রশাসনের ৪৪টি কর্মসূচি আয়োজনে কথাও জানান তিনি।

রাঙামাটিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী পালনে কয়েকটি উপকমিটি করারও সিদ্ধান্ত নেয়া হয় সভায়। সভায় রাঙামাটি পৌরসভার প্যানেল মেয়র জামাল উদ্দিন, রাঙামাটি পাবলিক কলেজের অধ্যক্ষ তাছাদ্দিক হোসেন কবিরসহ বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, এনজিও প্রতিনিধি এবং রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত প্রস্তুতি সভা শেষে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপনে রাঙামাটিতে ২৫ ও ২৬ মার্চ প্রতিবছরের ন্যায় নানা অনুষ্ঠান আয়োজনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

পাহাড়ের বৈচিত্র্যময় সংস্কৃতি সংরক্ষণ-বিকাশে কাজ করছে সরকার: সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী এম খালিদ বলেছেন, ‘পাহাড়ের বৈচিত্রময় সংস্কৃতি সংরক্ষণ ও বিকাশে কাজ করছে সরকার। …

Leave a Reply