নীড় পাতা » ব্রেকিং » জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে সকলকে সচেতন হতে হবে

জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে সকলকে সচেতন হতে হবে

DDCC-Meeting-Pic-28-08-16-0রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা বলেছেন, সবার সহযোগিতা ও সঠিক পরামর্শের মাধ্যমে জেলায় বসবাসরত মানুষের সামগ্রিক কল্যাণে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। তিনি বলেন, জেলার উন্নয়নের স্বার্থে পরিষদের প্রতিটি মাসিক ও সমন্বয় সভায় প্রতিষ্ঠান প্রধানদের উপস্থিত থাকা প্রয়োজন। তিনি বলেন, জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে সমাজের সকলকে সচেতন হতে হবে।

রোববার রাঙামাটি পর্যটন কমপ্লেক্স সম্মেলন কক্ষে জেলা উন্নয়ন কমিটির সমন্বয় সভায় সভাপতির বক্তব্যে চেয়ারম্যান এ কথা বলেন।

রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম জাকির হোসেনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় রাঙামাটি পৌরসভা মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী, রাঙামাটি পুলিশ বিভাগের সহকারী পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) চিত্তরঞ্জন পাল, জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার মোঃ ফারুক সুফিয়ান, পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা ছাদেক আহমদ, নির্বাহী প্রকৌশলী কাজী আবদুস সামাদসহ জেলার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিভাগীয় প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় পৌর মেয়র বলেন, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও চাঁদাবাজ বন্ধ করতে পারলে এ জেলা পর্যটনখাতে বিশাল মুনাফা অর্জন করতে পারবে। অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও চাঁদাবাজি বন্ধে সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন। তিনি বলেন, এ জেলাকে একটি আধুনিক মডেলের পর্যটন নগরী হিসেবে গড়তে পৌরসভা থেকে একটি মাস্টার প্ল্যান করা হচ্ছে। এ বিষয়ে তিনি জেলা পরিষদের সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি বলেন, ইতিমধ্যে রাঙামাটি সরকারি কলেজের কলেজ প্রাঙ্গণ থেকে প্রিন্সিপালের বাসভবন পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণ ও ২ হাজার গাছের চারা রোপণ করা হয়েছে।

সভায় সহকারী পুলিশ সুপার বলেন, জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ যাতে মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে না পারে এ বিষয়ে জেলার পাড়ায় পাড়ায় কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির মাধ্যমে সচেতনতা বাড়ানো হচ্ছে। এছাড়া যে সকল শিক্ষার্থী দীর্ঘদিন ধরে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত রয়েছে তাদের তালিকা জমা দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানান। আগামী ঈদুল আযহা সুষ্ঠুভাবে পালনের লক্ষ্যে পুলিশ প্রশাসন থেকে প্রয়োজনীয় পুলিশি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এছাড়া জেলার যেসমস্ত এলাকায় অনৈতিক, অসামাজিক ও সন্ত্রাসী কার্যক্রমের খবর পাওয়া যাচ্ছে তা বন্ধে পুলিশ প্রশাসন সর্বদা কাজ করছে। জেলার আইনশৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে তিনি সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। যে কোন ধরনের উদ্ভুত পরিস্থিতি ও আইন-শৃংখলা রক্ষার প্রয়োজনে সরাসরি পুলিশ বিভাগকে ফোনে জানানোর অনুরোধ জানান তিনি।

জেলা প্রশাসকের প্রতিনিধি জানান, টিটিসি এলাকার যেসব স্থানে অবৈধ দখল হচ্ছে তা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ফায়ার সার্ভিস সিভিল ডিফেন্স এর কর্মকর্তা বলেন, জেলার কাউখালী উপজেলায় ফায়ার স্টেশনের কাজ শেষ হয়েছে। শীঘ্রই উদ্বোধন করা হবে।

জেলা খাদ্য কর্মকর্তা জানান, বর্তমানে রাঙামাটি খাদ্য ভান্ডারে ৩৪৪১ মেট্রিক টন খাদ্যশস্য মজুদ রয়েছে। মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন কর্মকর্তা জানান, কাপ্তাই হ্রদে গত ৩মাস যাবৎ মৎস্য শিকার বন্ধ থাকার পর এ বছর রেকর্ড পরিমাণ মাছ উৎপাদন হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এছাড়া সভায় উপস্থিত অন্যান্য বিভাগীয় কর্মকর্তাগণ স্ব স্ব বিভাগের উন্নয়ন কাজের প্রতিবেদন সভায় পেশ করেন। চেয়ারম্যান বিভিন্ন বিভাগের সমস্যাবলী সমাধানে পরামর্শ প্রদান করেন।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

জুরাছড়িতে গুলিতে নিহত কার্বারির ময়নাতদন্ত সম্পন্ন

রাঙামাটির জুরাছড়ি উপজেলায় স্থানীয় এক কার্বারিকে (গ্রামপ্রধান) গুলি করে হত্যা করেছে অজ্ঞাত বন্দুকধারী সন্ত্রাসীরা। রোববার …

Leave a Reply