নীড় পাতা » ব্রেকিং » ‘ছেলেদের সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে মেয়েরাও’

রাঙামাটিতে কন্যা শিশু দিবস পালিত

‘ছেলেদের সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে মেয়েরাও’

‘কন্যা শিশুর অগ্রযাত্রা, দেশের জন্য নতুন মাত্রা’- এই প্রতিপাদ্য নিয়ে পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতে পালিত হয়েছে জাতীয় কন্যা শিশু দিবস। দিবসটি উপলক্ষে সোমবার সকালে রাঙামাটি জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। রাঙামাটি জেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর যৌথভাবে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক হোসনে আরা বেগমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন রাঙামাটি জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন, রাঙামাটি পৌরসভার ৭, ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড কাউন্সিলর জোবাইতুন নেসা, জেলা মহিলা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ড্রাটিজের সভাপতি মনোয়ারা বেগম, অভিভাবকসহ প্রায় শতাধিক কিশোরী।

সভায় উন্মুক্ত আলোচনায় বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন কিশোরী সাদিয়া ইসলাম বলেন, আমাদের সমাজে এখনো কন্যা সন্তানকে অবহেলার চোখে দেখা হয়। আমাদের সকলকে এ দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টাতে হবে। আমি শরিরীর প্রতিবন্ধী হয়েও অনেক প্রতিকূলতা কাটিয়ে অনার্স লেভেলে পড়ছি। তাছাড়া বাল্য বিবাহের মতো অভিশাপ এখনো শতভাগ নির্মূল হয়নি, আছে ইভটিজিংও। আমরা সকলে সচেতন হলে এসব সমস্যা সমাধান করা সম্ভব।

কিশোরী সুইটি চাকমা বলেন, ছোট বেলা থেকেই প্রতিকূল পরিবেশে বড় হয়েছি। দারিদ্রতার কারণে অনেক কাজই ঠিক ভাবে করতে পারিনি। মনের ইচ্ছাকে পূরণ করকে পারিনি। তবে আজ পরিস্থিতির পরিবর্তন হচ্ছে। আশা করি, আমাদের মতো আর কোনো কন্যা শিশুকে প্রতিকূল পরিবেশ মোকাবেলা করে বড় হতে হবে না।

সভার প্রধান অতিথি ও জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ বলেন, ‘কন্যা শিশুদের জন্য সরকার বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছে। যাতে তারা স্বাভাবিকভাবে গড়ে ওঠতে পারে। সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের কারণে আমাদের দেশের মেয়েরা অনেক এগিয়ে গেছে। ছেলেদের সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে মেয়েরাই এগিয়ে গেছে। আমাদের বোর্ড পরীক্ষার ফলাফলেও সব সময় মেয়েরা এগিয়ে থাকতে দেখা গেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘অভিভাবকদেরও দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্ত হয়েছে। তারা এখন আর কন্যা শিশুকে আলাদা করে দেখেন না। বরং কন্যা শিশু ভুমিষ্ট হলে অধীক খুশি হয়। আগে আমাদের মাঝে কন্যা শিশু নিয়ে এক ধরণের হীনমন্যতা ছিলো। সরকারের যুগোপযোগি পদক্ষেপের কারণে তা কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হয়েছি। এছাড়া কর্মক্ষেত্রেও নারীরা অনেক এগিয়ে। তারা মমতাময়ী, তাই সকল কাজ অত্যন্ত মমতার সাথে সম্পন্ন করে। সর্বোপরি আমরা সবাই মিলে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবো এটাই আমাদের তথা সরকারের প্রধান লক্ষ্য।’

Micro Web Technology

আরো দেখুন

প্রেমিকের সঙ্গে বিয়েতে পরিবারের অসম্মতি, অতপর…

বান্দরবানের আলীকদম উপজেলায় মুবিনা আক্তার নয়ন (১৬) নামের এক তরুনী গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে …

Leave a Reply