নীড় পাতা » ব্রেকিং » ছুটিতে গিয়ে লাশ হলেন উপজেলা চেয়ারম্যানের দেহরক্ষী

বাড়িতেই গুলি করে হত্যা

ছুটিতে গিয়ে লাশ হলেন উপজেলা চেয়ারম্যানের দেহরক্ষী

ছুটিতে বাড়িতে গিয়ে লাশ হলেন রাঙামাটির নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের ব্যক্তিগত দেহরক্ষী ধীমান চাকমা। বাসায় তাকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। রোববার ভোররাতে জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলায় এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। ধীমান চাকমা ছুটিতে বাঘাইছড়ির নিজ বাড়িতে গিয়েছিলেন।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ধীমান চাকমা নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রগতি চাকমার দেহরক্ষী হিসেবে কাজ করতেন। গত শনিবার সন্ধ্যায় তিনি ছুটিতে বাড়িতে আসেন। রাতে তিনি বাড়িতে ঘুমিয়ে ছিলেন। এসময় একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাড়ি এসে গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়। বছরখানেক আগে তিনি সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) থেকে পদত্যাগ করে জনসংহতি সমিতি (এমএন লারমা) দলে যোগদান করেন। তাই এই কারণেই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটতে পারে বলে ধারণা করা যাচ্ছে।

বাঘাইছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশরাফ উদ্দিন জানায়, ‘আমরা ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করেছি। নিহত ব্যক্তি জেএসএস (এমএন লারমা) দলের সদস্য বলে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেছে। তবে কারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য খাগড়াছড়ি মর্গে পাঠানো হয়েছে।’

পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (এমএন লারমা) কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সুদর্শন চাকমা অভিযোগ করেন, ‘ভোররাতে রূপকারী ইউনিয়নের পাকুজ্জ্যাছড়ি নামক এলাকায় সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন জেএসএসের একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী ধীমান চাকমার বাসা থেকে তাকে ডেকে নিয়ে গুলি করে পালিয়ে যায়। আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। ঘটনায় সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানাই।’

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) বাঘাইছড়ি উপজেলা শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান সদস্য ত্রিদীপ চাকমা বলেন, ‘আমাদের দলে কোনো সন্ত্রাসী কার্যকলাপ নেই। এটি তাদের দলীয় কোন্দলের কারণেও ঘটতে পারে। আমরা পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য কাজ করছি।’

উল্লেখ্য, গত ২০১৮ সালের ৩ মে উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ে যাওয়ার নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও পার্বত্য জনসংহতি সমিতির (এমএন লারমা) কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট শক্তিমান চাকমাকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্ত। বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান প্রগতি চাকমাও নিরাপত্তার কারণে বাসায় থেকে তিতি সকল দাপ্তরিক কাজ করে থাকেন।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বঙ্গবন্ধু টি-২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্টে মুক্তিযোদ্ধার জয়

রাঙামাটি জেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে রাঙামাটি বঙ্গবন্ধু টি-২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্টে বড় জয় দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু …

Leave a Reply