নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » চার বছরেও চালু হয়নি দীঘিনালায় কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত পানি শোধনাগার

চার বছরেও চালু হয়নি দীঘিনালায় কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত পানি শোধনাগার

 

02আয়রনমুক্ত বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য ২০০৪ সালে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলা সদরে কোটি টাকা ব্যয়ে পানি শোধনাগার নির্মাণের উদ্যোগ নেয়। ২০০৮ সালে শোধনাগারের নির্মাণ শেষ হলেও তিন বছরেও পানি শোধনাগারটি চালু করা হয়নি। দীর্ঘদিন পরিত্যক্ত থাকায় শোধনাগারের মূল্যবান যন্ত্রাংশ চুরি হয়ে যাচ্ছে। ২০১১ সালের জুন মাসে শোধনাগারটির প্রায় দুই লাখ টাকার বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম চুরি হয়েছে। দীর্ঘদিন বৈদ্যুতিক মটর গুলো চালু না করায় নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। অপরদিকে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড পিডিবি কর্মকর্তা জানিয়েছেন,শোধনাগারটি স্থাপনের পূর্বে পিডিবি’র অনুমোদন নেয়া হয়নি। এ ধরণের প্রকল্প নেয়ার পূর্বে পিডিবি’র অনুমোদন নেয়া প্রয়োজন। আইনগত সমস্যা থাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে সমস্যা হচ্ছে।
জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর জানায়,২০০৪ সালে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের তরান্বিত প্রকল্পের আওতায় ৯৬ লাখ টাকা ব্যয়ে দীঘিনালা উপজেলা সদরে আয়রনমুক্ত পানি শোধনাগার নির্মাণ করা হয়। ২০০৮ সালে শোধনাগার নির্মাণ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এন.এস ইঞ্জিনিয়ারিং শোধনাগারটি জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরকে বুঝিয়ে দেয়। ২০০৮ সালে সম্পূর্ণ বুঝে নেয়ার পরও চার বছরেও চালু করতে পারেনি। শোধনাগারটিতে প্রতিদিন দুই লাখ গ্যালন পানি শোধন করে ৫শ গ্রাহকের মাঝে বিতরণের ধারণ ক্ষমতা রয়েছে।
দীঘিনালা উপজেলার বৃহত্তম পাইকারি বাজার বোয়ালখালী নতুন বাজার পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক হাজি মোহাম্মদ জসিম বলেন,পানি শোধনাগারটি চালু হলে বেশি উপকার হতো বাজারের ব্যবসায়ীদের। পাহাড়ের উপরে বাজারে বড় সমস্যা পানির। তাই পানি শোধনাগারটি দ্রুত চালু করে পানি সরবরাহের জন্য ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে দাবী জানাচ্ছি।
জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের দীঘিনালার দায়ীত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপ-সহকারী প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর আলম সরকার জানান,বিদ্যুৎ সমস্যার কারণে শোধনাগারটি চালু করা যাচ্ছে না। দীর্ঘদিন পড়ে থাকায় শোধনাগারের মূল্যবান যন্ত্রাংশও চুরি হয়ে যাচ্ছে। বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য টাকা জমা দেয়া হয়েছে,সংযোগ পেলেই পানি সরবরাহ চালু করা হবে।
পিডিবি’র দীঘিনালা উপ-কেন্দ্রের আবাসিক প্রকৌশলী যতœ মানিক চাকমা বলেন,পানি শোধনাগারটি নির্মাণের পূর্বে পিডিবি’র কোন অনুমোদন নেয়নি। ফলে বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে আইনগত সমস্যা হচ্ছে। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে ব্যাংকে জমানতের টাকাও জমা করেছে। উর্ধ্বত্বন কর্তৃপক্ষের অনুমোদন পেলে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হবে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

মা-বাবাসহ ৩ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

খাগড়াছড়িতে পৃথক ধর্ষণের ঘটনায় বাবা-মাসহ ৩ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। খাগড়াছড়ি নারী ও শিশু …

Leave a Reply