নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » ‘গ্রেনেড হামলায় ইউপিডিএফ জড়িত,নিষিদ্ধের দাবি’

‘গ্রেনেড হামলায় ইউপিডিএফ জড়িত,নিষিদ্ধের দাবি’

PCJSS-Flagপার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ কার্যালয়ে গ্রেনেড হামলায় ‘ইউপিডিএফকে’ দায়ী করে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি। মঙ্গলবার দুপুরে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি সহ-তথ্য ও প্রচার সম্পাদক সজীব চাকমা হামলার জন্য ইউপিডিএফকে দায়ী করেছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে জনসংহতি সমিতি ‘ ইউপিডিএফকে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বিরোধী সন্ত্রাসী সংগঠন’ উল্লেখ করে বলেন, ইউপিডিএফ সন্ত্রাসীরা রাঙামাটি শহরে বারবার সন্ত্রাসী হামলাসহ পার্বত্য চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় অব্যাহতভাবে খুন, অপহরণ, চাঁদাবাজি, নির্যাতন, বাড়িতে অগ্নিসংযোগসহ বিভিন্ন ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়ে যাওয়া সত্ত্বেও তাদের বিরুদ্ধে সরকারের কোনও পদক্ষেপ পরিলক্ষিত না হওয়ায় পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছে। হামলায় তাকে সহযোগিতার জন্য পাহাড়ি-বাঙালি আরও ৩ জন লোক নিয়োজিত ছিল বলেও জানা গেছে।

‘আঞ্চলিক পরিষদ কার্যালয়ের আনুমানিক ৩০-৫০ গজের মধ্যেই রয়েছে ডেপুটি কমিশনারের কার্যালয়, সেনাবাহিনীর ব্রিগেড ও সেন্ট্রিপোস্ট, সোনালী ব্যাংক ও এর সেন্ট্রিপোস্ট, সেনাবাহিনীর জলযানঘাটের সেন্ট্রিপোস্ট এবং রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের কার্যালয়। উক্ত গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ও নিরাপত্তা চৌকির মধ্যেও পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের কার্যালয়ে এই সন্ত্রাসী গ্রেনেড হামলা হওয়া অত্যন্ত উদ্বেগজনক ও দু:খজনক’ বলেও মন্তব্য করা হয় বিবৃতিতে।

‘পার্বত্য চট্টগ্রাম সমস্যার রাজনৈতিক সমাধান এবং এ অঞ্চলে সুষম উন্নয়ন ও শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি যথাযথ বাস্তবায়নের জন্য পার্বত্য চট্টগ্রামের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান এই পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ শুরু থেকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে চলেছে।’

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি মনে করে, এই হামলা কেবল আঞ্চলিক পরিষদ প্রতিষ্ঠানের ওপর নয়Ñএটি পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ার ওপর, উপরন্তু পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নকামী গণতান্ত্রিক ও শান্তিপূর্ণ প্রক্রিয়া এবং জনস্বার্থের উপর হামলার শামিল। পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি এই হামলাকে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি ও এর বাস্তবায়ন বিরোধী গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ বলে মনে করে।’

পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি উপরোক্ত ঘটনার যথাযথ ও নিরপেক্ষ তদন্তপূর্বক অবিলম্বে প্রকৃত হামলাকারী ও চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণসহ অচিরেই ইউপিডিএফকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে তাদের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড নির্মূলের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারের নিকট জোর দাবি জানান।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

স্বাস্থ্য বিভাগকে সুরক্ষা সামগ্রী দিলো রাঙামাটি রেড ক্রিসেন্ট

নভেল করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে রাঙামাটির ১২টি সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কেন্দ্রসমূহে স্বাস্থ্য …

Leave a Reply