গানে গানে দ্রোহ আর প্রতিবাদ

udichi-01‘ছিঁড়ে ফেল দৃড় হাতে চক্রান্তের জাল’- এ শ্লোগানকে সামনে রেখে রাঙামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনষ্টিটিউট মিলনায়তনে দুদিনব্যাপী পার্বত্য চট্টগ্রাম গনসঙ্গীত উৎসবের দ্বিতীয় দিনে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী রাঙামাটির মনোমুগ্ধকর পরিবেশনা। উৎসবে দ্বিতীয় দিনে উদীচীর সর্বপ্রথম পরিবেশনা ছিল ‘আমরা মানুষের জয়গান গাই গেয়ে যাই,আমরা জীবনের জয়গান গাই হা-হা-হা-,যুদ্ধ চাই না আমরা ধ্বংস চাই না, আমরা পৃথিবীর শান্তির পতাকা উড়াই’- এ গানটি পরিবেশনার সময় উপস্থিত দর্শকরা শিল্পীদের সাথে কন্ঠে মেলাতে থাকেন।

এ গানটির পরে উদীচীর শিল্পীরা নিয়ে আসেন ‘ফুল খেলবার দিন নয় অদ্য,ধ্বংসের মুখোমুখি মুখোমুখি আমরা,চোখে আর স্বপনের সেই নীল মদ্য (আজ) কাঠ ফাটা রোদ সেঁকে চামড়া’- এ গানের সাথে হল ভর্তি দর্শকরা করতালিতে মুখরিত থাকেন।udichi-03

পরে ‘আমি আমার মাকে খুব ভালবাসতা’- এ কবিতাটি আবৃত্তি করে শোনান উদীচীর শিল্পী চায়না পাটোয়ারী। এরপর শিল্পী মেরিলিনের লীডে ‘বেয়োনেট হোক যতো ধারালো কাস্তেটা ধার দিয়ো বন্ধু,শেল আর বোম হোক ভারালো, কাস্তেটায় শান দিয়ো বন্ধু’-দলীয় গনসঙ্গীতটি পরিবেশন করেন।udichi-02

এর পরপর উদীচীর রিপন দাশ নিয়ে আসেন কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের দু:সময় কবিতার “যদিও সন্ধ্যা আসিছে মন্দিরে মন্থরে, সব সঙ্গীত গেছে ইঙ্গিতে থামিয়া। পিনের এ কবিতাটি আবৃত্তির সময় পুরো হল জুড়ে নেমে আসে শুনশান নিরবতা। যেন কোথাও কোন আওয়াজ শুনতে পাওয়া যাচ্ছে না। কবিতা আবৃত্তির পর আবারো মঞ্চে আসেন শিল্পী চায়না পাটোয়ারী। তিনি গেয়ে শোনান,‘একটু চুপ করে শোন তাহলেই শুনতে পাবে কোলাহল ঝাপিয়ে কান্নার রোল ভেসে আসে অসহায় মানুষের,শিশু আর নারীদের,আর্ত-আর্তনাদে ভরে গেছে।
গানটি পরিবেশনার পর রনজিৎ পাটেয়ারীর লীডে ‘(আঁই)মার জোয়ান হেঁইও,মার কষে টান তালে তালে ফেল বৈঠা নদীতে উজান’ এ গনসঙ্গীতটি।

এরপর জনপ্রিয় গনসঙ্গীত ‘এ লড়াই বাঁচার লড়াই এ লড়াই জিততে হবে, এ লড়াই মরনজয়ী করতে হবে রে’- এ দলীয় সঙ্গীতটি পরিবেশনার মাধ্যমে উদীচী তাদেও পরিবেশনার ইতি টানেন।udichi-04

উদীচীর গনসঙ্গীত পরিবেশনায় ছিল শিল্পী রনজিৎ পাটোয়ারী,মেরিলিন মারমা,চায়না পাটেয়ারী,স্বপন দাশ,রিপন দাশ,নাজমুল,তুষার ধর,শাওন বিশ্বাস, সেন্টু,বিপ্লব, শ্রাবন্তী,চৈতী,চিরন্তন মনি এবং বিজয় ধর। তবলায় ছিলেন,সাগর পাল ও সুবল বিশ্বাস।

গনসঙ্গীত পরিবেশন শেষে বাংলাদেশ গনসঙ্গীত সমন্বয় পরিষদের সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য ফকির সিরাজ বলেন, রাঙামাটি উদীচীর এ গনসঙ্গীত পরিবেশনা আমাদেরকে শিহরিত করেছে। আমিও উদীচীর একজন প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য। সত্যেন সেন এর সাথে আমরা উদীচী গঠন করি। সংস্কৃতির অন্যতম উপাদান হচ্ছে সঙ্গীত। মানুষের জীবনকে প্রভাবিত এবং নিয়ন্ত্রন করার ক্ষেত্রে গনসঙ্গীতের কোন বিকল্প নেই। গনসঙ্গীত সত্য ন্যায় প্রগতির পতাকাকে উর্ধ্বে তুলে ধরে। এরপরে বক্তব্য রাখেন পার্বত্য চট্টগ্রাম গনসঙ্গীত উদযাপন পরিষদের আহবায়ক সুনীল কান্তি দে,কালায়ন চাকমা।
পরে তিনি রাঙামাটি উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীকে বাংলাদেশ গনসঙ্গীত সমন্বয় পরিষদের পক্ষ থেকে সম্মাননা স্মারক ক্রেষ্ট তুলে দেন।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

কারাতে ফেডারেশনের ব্ল্যাক বেল্ট প্রাপ্তদের সংবর্ধনা

বাংলাদেশ কারাতে ফেডারেশন হতে ২০২১ সালে ব্ল্যাক বেল্ট বিজয়ী রাঙামাটির কারাতে খেলোয়াড়দের সংবধর্না দিয়েছে রাঙামাটি …

Leave a Reply