নীড় পাতা » ব্রেকিং » ক্লাশ শুরু কবে রাঙামাটি কলেজে ?

ক্লাশ শুরু কবে রাঙামাটি কলেজে ?

BSLLLগত ১৭ অক্টোবর রাঙামাটি কলেজে তুচ্ছ একটি বিষয় নিয়ে পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগের মধ্যে ছাত্র সংঘর্ষের পর বন্ধ হয়ে যায় রাঙামাটি কলেজের শ্রেণী কার্যক্রম। এরপর দীর্ঘ আড়াই মাস পার হলেও এই সমস্যার সমাধান এখনো হয়নি। চালু হয়নি কলেজের শ্রেণী কার্যক্রম। বৃহস্পতিবার সভায় বসেও সংকট সমাধানে এক মত হতে পারেননি ছাত্রনেতারা।

বৃহস্পতিবার কলেজের এই সমস্যা সমাধানের জন্য রাঙামাটি জেলা প্রশাসকের উদ্যোগ্যে এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়। দুপুর ১২টা থেকে শুরু হয়ে আলোচনা সভা চলে বিকাল ৩.৩০ পর্যন্ত। কিন্তু র্দীঘ আলোচনার পরেও সুরাহা হয়নি সংকটের,বরং সিদ্ধান্ত হয় ৭ দিন পরে আবারো বসার এবং তার পরেই সিদ্ধান্ত কলেজ চালুর বিষয়ে।

বৃহস্পতিবার রাঙামাটি জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে রাঙামাটির জেলা প্রশাসক মোঃ সামসুল আরেফিন এর সভাপতিত্বে সভায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) চিত্তরঞ্জন পাল, রাঙামাটি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মফিজ আহম্মেদ সহ বিভিন্ন বিভাগের প্রভাষকবৃন্দ, জেএসএস এর জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক নিলোৎপল খীসা, সাংগঠনিক সম্পাদক শরৎজ্যোতি চাকমা, বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলেজের প্রাক্তন ছাত্র সুনিল কান্তি দে, আবুল কাশেম, রাঙামাটি সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি সুলতান মাহামুদ বাপ্পা, সাধারণ সম্পাদক আহমেদ ইমতিয়াজ রিয়াদ, কলেজ ছাত্রদলের সভাপতি ইমরান চৌধুরী সুজন, সাধারণ সম্পাদক অলি আহাদ, পিসিপির সভাপতি অন্তিক চাকমা, সাধারণ সম্পাদক রিন্টু চাকমা উপস্থিত ছিলেন।

এতে পিসিপির জেলা সভাপতি অন্তিব চাকমা পিসিপির নেতা কর্মীদেরকে হয়রানি মূলক ভাবে মামলা দেওয়া হয়েছে দাবি করে বলেন, যে নেতা কর্মীরা সে দিন রাঙামাটিতে ছিলো না, তাদেরকেও সেদিন মামলার আসামী করা হয়েছে।

‘এক হাতে তালি বাজে না’ এমন প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, শুধু বলা হচ্ছে সংঘর্ষ নাকি পিসিপি করেছে। এতে কি ছাত্রলীগেরও দোষ নেই? শুধু একজনের কথা বললে হবে না।
তিনি সকলে এই কলেজে পড়ালেখা করতে হবে জানিয়ে আরো বলেন, এই কলেজটি রাঙামাটির এক মাত্র উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, এখানে সবার পড়ালেখা করতে হবে। তাই অতিদ্রুত মামলা তুলে নেয়ার দাবি জানান তিননি এবং এর পরে কলেজ খুললে তাদের কোন প্রকার হস্তক্ষেপ থাকবেনা বলেও জানান।

কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি সুলতান মাহামুদ বাপ্পা বলেন, রাঙামাটি কলেজে সিসি ক্যামেরা বসাতে হবে। রাঙামাটি কলেজের বাউন্ডারির যে পেছনে যে একটি ফটক খোলা রয়েছে সেটা বন্ধ করতে হবে। কারণ এদিক দিয়ে বহিরাগতরা কলেজে প্রবেশ করে বলে তিনি দাবি করেন।DSC02380

তিনি আরো জানান, রাঙামাটি কলেজে সকল শিক্ষার্থীদের জন্য কলেজ ড্রেস নিধারর্ণ করে দেওয়া হোক, যাতে করে বোঝা যায় কে কলেজ শিক্ষার্থী আর কারা বহিরাগত।

মামলার বিষয়ে তিনি বলেন, আমি এই ব্যাপারে এখন কিছু বলতে পারবো না। আমি আমার ছাত্রলীগের জেলা কমিটি, জেলা আওয়ামীলীগ এবং নেতাদের সাথে কথা বলে জানাবো।

কলেজ ছাত্রদলের সভাপতি ইমরান চৌধুরী সুজন বলেন, কলেজের যে সমস্যা তা অতিদ্রুত সমাধান করে কলেজের ক্লাস চালু করে দেওয়া হোক। কারণ কলেজ বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন প্রকার সমস্যা হচ্ছে, সামনে পরীক্ষা। তাই এখন ক্লাস করা খুবই জরুরী বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সাংবাদিক সুনিল কান্তি দে বলেন, সে কলেজে আমি ৫১ বছর আগে পড়ালেখা করে এসেছি। আমাদের সময়ে যে সমস্যা হতো তা আমরা নিজেরা মিটিয়ে নিতা,ম প্রয়োজনে শিক্ষকদের সহযোগিতা নিতাম।
তিনি সকল শিক্ষার্থীদেরকে সহবস্থানে থেকে নিজেদের একের প্রতি অন্যের ভালোবাসা বাড়িয়ে একসাথে কলেজে পড়ালেখা করাসহ নিজেদের মধ্যে সম্পর্ক সুন্দর ও সুদৃঢ় করার আহ্বান জানান।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার চিত্তরঞ্জন পাল বলেন, কলেজে শিক্ষার্থীদের মধ্য সমস্যা হবে। এই সমস্যাগুলো কলেজের চার দেওয়ালের মধ্য রাখলেই ভালো হয়। কারণ এটি যখন দেয়ালের বাহিরে চলে আসে, তখন এটি কারো জন্যই ভালো হয় না।

কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মফিজ আহম্মেদ বলেন, আমরা এই আড়াই মাসে চেষ্টা করেছি সমস্যাটি সমাধান করার জন্য, কিন্তু ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা একসাথে বসতে রাজি হয়নি বলে এটি এত দীর্ঘায়িত হচ্ছে। কলেজ বন্ধ থাকা কারো জন্যই ভালো নয় বলে জানিয়ে তিনি আরো বলেন, আড়াই মাসেও আমরা এই সমস্যা সমাধানে ব্যর্থ হয়েছি। সামনে পরীক্ষা আসছে, তাই সকলের প্রয়োজন এই সমস্যা সমাধান করে অতিদ্রুত কলেজের ক্লাস চালু করা ।

সবার বক্তব্য শোনার পর জেলা প্রশাসক মোঃ সামসুল আরেফিন বলেন, কলেজ বন্ধ থাকাটা কারো জন্যই ভালো হবে না বরং খারাপ হবে।

ছাত্রলীগের মামলার ব্যাপারে কি করা যায়,এটি জানার জন্য তিনি ছাত্রলীগের নেতাদের কাছে জানতে চাইলে তারা এর জন্য ১০ দিনের সময় চাইলে জেলা প্রশাসক ৭ দিন সময় দেন এবং সিদ্ধান্ত তা জানানোর জন্য অনুরোধ করেন। এই ৭ দিন পরে আবার সভায় বসে ফলপ্রসূ আলোচনার ভিত্তিতে ক্লাশ চালু করা সম্ভব হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

জুরাছড়িতে গুলিতে নিহত কার্বারির ময়নাতদন্ত সম্পন্ন

রাঙামাটির জুরাছড়ি উপজেলায় স্থানীয় এক কার্বারিকে (গ্রামপ্রধান) গুলি করে হত্যা করেছে অজ্ঞাত বন্দুকধারী সন্ত্রাসীরা। রোববার …

Leave a Reply