কেন্দ্রীয় সভাপতি’সহ ২০ জন আহত,ভাংচুর, আটক-৩

Bandarban-Lig-PiC_01বান্দরবানে ছাত্রলীগের সম্মেলনে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি’সহ ২০ জন আহত হয়েছে। এসময় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া এবং চেয়ার টেবিল ও যানবাহন ভাংচুর করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এসময় ঘটনাস্থল থেকে ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার বিকালে স্থানীয় রাজারমাঠে এই ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন চলাকালে বান্দরবানে রাজারমাঠে লাঠিসুটা নিয়ে ছাত্রলীগের সভাপতি প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীর সমর্থিত নেতাকর্মীরা হামলা চালায়। এসময় অপর গ্রুপের নেতাকর্মীরা পাল্টা ধাওয়া করলে উভয়পক্ষের নেতাকর্মীরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। সংঘর্ষে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি বদিউজ্জামান সোহাগ’সহ ২০ জন আওয়ামী নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। এসময় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সমাবেশস্থলের চেয়ার টেবিল, গেইট এবং যানবাহন ভাংচুর করেছে। চলে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনাও। সংঘর্ষের ঘটনায় ছাত্রলীগের সম্মেলন পন্ড হয়ে যায়। খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ৩ জনকে আটক করেছে। এদিকে সংঘর্ষের পর পুলিশি প্রহড়ায় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতারা বান্দরবান ত্যাগ করেছে। অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে বান্দরবান শহরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ আহমেদ জানান, সম্মেলনে ছাত্রলীগের একটি পক্ষ হামলা চালালে দু’গ্রুপের নেতাকর্মীরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। অনেকে আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে ছাত্রলীগ কর্মী সোহরাব হোসেন’সহ ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে শহরে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বীর বাহাদুর এমপি বলেছেন, ছাত্রলীগে কোনো সন্ত্রাসীর ঠাই নেই। হামলার ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিকভাবে ব্যবস্থা নেয়া হবে। জড়িতদের কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না।

জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তৌহিদুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে সম্মেলনকে ঘিরে আয়োজিত ছাত্র সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি বদিউজ্জামান সোহাগ, জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক লক্ষি পদ দাশ, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুজন চৌধুরী সঞ্জয়’সহ সংগঠনের নেতারা বক্তব্য রাখেন। ঘটনার পর ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী আহসানুল আলম রুমু’র নেতৃত্বে ছাত্রলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা কেন্দ্রীয় সভাপতিত্বে সম্মেলন প্রত্যাখান করে স্মারকলিপি দিয়েছেন। সম্মেলন পন্ড হয়ে যাওয়ায় ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি/সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করেনি কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি। তবে ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটি বিলুপ্ত করে দিয়ে কেন্দ্রীয়ভাবে বান্দরবান জেলা কমিটি ঘোষণার ঘোষণা দেন কেন্দ্রীয় নেতারা।

নির্ভরযোগ্য সূত্রেমতে, সম্মেলনে বান্দরবান জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি পদে রেজাউল করীম এবং সাধারণ সম্পাদক পদে জনি সুশীল’কে মনোনীত করা হয়। খবরটি জানাজানি হওয়ার পর সম্মেলন প্রত্যাখান করে বিরোধী পক্ষের নেতাকর্মীরা হামলা চালায়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

কারাতে ফেডারেশনের ব্ল্যাক বেল্ট প্রাপ্তদের সংবর্ধনা

বাংলাদেশ কারাতে ফেডারেশন হতে ২০২১ সালে ব্ল্যাক বেল্ট বিজয়ী রাঙামাটির কারাতে খেলোয়াড়দের সংবধর্না দিয়েছে রাঙামাটি …

Leave a Reply

%d bloggers like this: