নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » কুশীনগর বনবিহারে দানোত্তম কঠিন চীবর দানোৎসব

কুশীনগর বনবিহারে দানোত্তম কঠিন চীবর দানোৎসব

DSC05835-copyপার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ির লক্ষীছড়ি উপজেলায় সমগ্র দেশবাসীর হিত সুখ আর মঙ্গল কামনার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হলো কঠিন চীবর দান উৎসব। ৪ ও ৫ নভেম্বর দুই দিন ব্যাপী এ অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন লক্ষীছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সুপার জ্যোতি চাকমা।
উৎসবে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন নানিয়াচর রতœাঙ্কুর বনবিহারের অধ্যক্ষ বিশুদ্ধানন্দ মহাথরো, এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন ইপিজেড বনবিহারের অধ্যক্ষ শ্রীমৎ জ্ঞান রক্ষিত মহাস্থবির সুবলং বনবিহারের অধ্যক্ষ লোকানন্দ স্থবির, রাঙ্গামাটি রাজবন বিহারের ধর্ম্ম বংশ স্থবির, কুশিনগর বন বিহারের অধ্যক্ষ শান্তপদ ভন্তে লংগদু ছাড়াও খাগড়াছড়ি শাখা বনবিহারের শতাধিক ভন্তে শ্রমণ উপস্থিত ছিলেন।
ধর্মীয় সভায় উপস্থিত দায়ক-দায়িকাদের উদ্দেশ্যে প্রধান অতিথি বিশুদ্ধানন্দ মহাস্থবির বলেন, লক্ষীছড়ি বাসীর মনে ধর্মীয় চেতনাকে আরো গভীর ভাবে জাগ্রত করতে হবে তাছাড়া এই বনবিহার নির্মাণ শেষ হলে পার্বত্য এলাকা তথা লক্ষীছড়িবাসীর ধর্মীয় চেতনা বোধ ইতিহাস হয়ে থাকবে।
অনুষ্ঠানের ধর্মীয় রীতি অনুসারে সুতাকাটার মাধ্যমে চব্বিশ ঘন্টার মধ্যে চীবর (পরিধেয় কাপড়) তৈরি উদ্বোধন করা হয়। রাতব্যাপী চীবর তৈরি, বিভিন্ন দানীয় বস্তু প্রদান এবং শীর্ষ স্থানীয় ভন্তেদের মাধ্যমে ধর্মীয় দেশনা প্রদান চলতে থাকে।
এদিকে অনুষ্ঠানের প্রথম দিনেই কুশিনগর বনবিহার পরিদর্শনে যান, লক্ষীছড়ি জোন কমান্ডার লে. কর্ণেল মো. নুরুল আমিন (পিএসসি)। পরিদর্শনকালে তিনি অনুষ্ঠানের ধর্মীয় তাৎপর্য সম্পর্কে সভাপতির সাথে আলোচনা করেন এবং অনুষ্ঠান উপলক্ষ্যে আর্থিক অনুদান প্রদান করেন। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন লক্ষীছড়ি জোন উপ-অধিনায়ক মেজর ফারুকী।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণে বিরোধীতার প্রতিবাদ রাঙামাটিতে

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য নির্মাণে বিরোধীতার নামে ‘উগ্রমৌলবাদ ও ধর্মান্ধগোষ্ঠীর জনমনে বিভ্রান্তির …

Leave a Reply