নীড় পাতা » করোনাভাইরাস আপডেট » করোনা ফান্ডে ৫০ হাজার ১১ টাকা দিল ২০১১ ব্যাচ

ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে

করোনা ফান্ডে ৫০ হাজার ১১ টাকা দিল ২০১১ ব্যাচ

করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে বিশ্বের সকল মানুষ যেখানে ঘরবন্দী এবং নিম্ন আয়ের মানুষ যখন কর্মহীন হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। পার্বত্য জেলা রাঙামাটি তার ব্যতিক্রম নয়। জেলার সেই সকল মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে রাঙামাটির এসএসসি ২০১১ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা। ঈদ শপিং না করে ও হাত খরচের সেই অর্থ রবিবার দুপুরে তুলে দেয় জেলা প্রশাসকের করোনা ফান্ডে। তাদের সংগ্রহকৃত ৫০ হাজার ১১ টাকা এসময় জেলা প্রশাসকের কাছে তুলে দেন।

এসময় ১১ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা বলেন, ঈদে প্রত্যেকেই আমরা কমবেশি কেনাকাটা করে থাকি। এবার সেটা না করে করোনা মহামারির কারণে নিম্ন আয়ের মানুষের সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নেয়ার জন্য আমাদের এই প্রচেষ্টা। এভাবেই সকলেই যদি মানবিক দিক বিবেচনায় এগিয়ে আসে তাহলে শহরের নিম্ন আয়ের মানুষগুলো আরো সুন্দর ভাবে চলতে পারবে।

একই সাথে তারা তিন পার্বত্য জেলার জন্য রাঙামাটিতে একটি বিশেষায়িত হাসপাতাল, করোনা নমুনা পরীক্ষার জন্য রাঙামাটিতে পিসি আর ল্যাব, জেনারেল হাসপাতালে আইসিইউ ব্যবস্থার দাবি জানান সরকারের কাছে।

শিক্ষার্থীরা আরও জানান, স্কুল জীবন শেষে এটাই ছিল আমাদের প্রথম ঐক্যবদ্ধভাবে কিছু করার চেষ্টা। যা আমরা করতে সক্ষম হয়েছি, এটাই আমাদের আত্মতৃপ্তি যে মানুষের পাশে দাঁড়াতে পেরেছি। সব বন্ধুরা আমাদের এই কাজে সাড়া দিয়েছে, যারা পেরেছে যতটুকু পেরেছে তা দিয়েছে, বাকিরাও আমাদের পাশে ছিল এই কাজে। ভবিষ্যৎতেও ব্যাচ-১১ যেকোন দুর্যোগে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা থাকবে।

সাধারণ শিক্ষার্থীদের এমন অসাধারণ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশিদ বলেন, এই দুর্যোগকালীন সময়ে তাদের দেয়া ৫০ হাজার ১১ টাকা সাধারণ মানুষের জন্য ব্যয় করতে পারবো।

জেলা প্রশাসককে অর্থ প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন ১১ব্যাচে শিক্ষার্থী বিশাল চৌধুরী, সজিব আলম, স্নেহাশীষ চক্রবর্তী, মিশু দে, হোসেইন ইকবাল প্রমুখ।

করোনা ফ্রান্ডে দানের অর্থ বিদ্যালয়ভিত্তিক সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়গুলোর ১১ব্যাচের সাবেক শিক্ষার্থীরা। তাদের মধ্যে রাঙামাটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শরীফুল ইসলাম সবুজ, বিশাল চৌধুরী, রাঙামাটি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পারমিতা দাশ, সোনালী চাকমা, লেকার্স পাবলিক স্কুলের সজিব আলম, শাহ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের হোসেইন ইকবাল, মুজাদ্দেদি আল ফেসানীর শিক্ষার্থী হাবিব, তৈয়ব বিন ফরহাদ মুখ্য ভূমিকা পালন করেন।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

সরকারের পায়ের নীচে মাটি নেই : মনিস্বপন

‘এই সরকারের পায়ের নীচে মাটি নেই। দেশ ভালো নেই, দেশের মানুষ ভালো নেই। গনতন্ত্র নেই, …

Leave a Reply