নীড় পাতা » করোনাভাইরাস আপডেট » করোনার উপসর্গ নিয়ে রাঙামাটিতে ২৪ ঘন্টায় তিন জনের মৃত্যু

করোনার উপসর্গ নিয়ে রাঙামাটিতে ২৪ ঘন্টায় তিন জনের মৃত্যু

পাখির চোখে শহর রাঙামাটি। ছবি তুলেছেন জিয়াউল জিয়া

বৈশ্বিক মহামারী নভেল করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) উপসর্গ নিয়ে পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতে ২৪ ঘন্টার মধ্যেই তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের দুই জন জেলা শহর এবং একজন লংগদু উপজেলার বাসিন্দা। স্বাস্থ্যবিধি মেনেই তাদের দুজনের দাফন ও সৎকার সম্পন্ন করা হয়েছে। বুধবার মৃত ব্যক্তির সৎকারও স্বাস্থ্যবিধি করা করা হবে।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, নভেল করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে মঙ্গলবার রাতে রাঙামাটি জেলা শহরের তবলছড়িতে সুরত আলী নামের এক আওয়ামীলীগ কর্মী এবং লংগদু উপজেলায় অনিল দাশ নামের এক ব্যক্তি মারা যান। এদিকে বুধবার দুপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে রাঙামাটি শহরে আশীষ দাশ নামের আরও এক ব্যক্তি মারা যান। তিনি শহরের পূর্ব ট্রাইবেল আদাম এলাকার বাসিন্দা। এ নিয়ে চব্বিশ ঘন্টায় জেলায় করোনা উপসর্গ নিয়ে ৩ জন মারা গেলেন।

বিষয়টির নিশ্চিত করে জেলা সিভিল সার্জন অফিসের করোনাবিষয়ক ফোকাল পারসন ও মেডিকেল অফিসার ডা. মোস্তফা কামাল জানিয়েছেন, জেলা শহরের চম্পকনগর এলাকার আইসোলেশন সেন্টারে ভর্তি ছিলেন আশীষ দাশ। করোনার উপসর্গ ছিলো তার। বুধবার দুপুরে তার নমুনাও সংগ্রহ করা হয়। কিন্তু দুপুর তিনটার দিকে মারা যান তিনি। করোনায় সৎকার ও দাফনের সরকারি বিধিমেনেই তাকে সৎকার করা হবে। এর আগে মঙ্গলবার রাতে জেলা শহর ও লংগদুতে মারা যাওয়া দুজনেরও স্বাস্থ্যবিধি মেনে দাফন ও সৎকার করা হয়েছে।

তিনি আরও জানিয়েছেন, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সারাদেশে করোনায় মৃত্যুর হার শতকরা ৩ শতাংশ। রাঙামাটিতে যেহেতু এ পর্যন্ত প্রায় তিনশ’ এর কাছাকাছি আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে, সে হিসেবে বিষয়টি আমরা স্বাভাবিকভাবেই দেখছি। তবে আমরা চাইনা কেউই করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

রাঙামাটি সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্য মতে, ৬ মে দেশের সবশেষ জেলা হিসেবে রাঙামাটিতে প্রথম ধাপে চারজনের দেহে কভিড-১৯ শনাক্ত হয়। পরবর্তীতে এ সংখ্যা ক্রমান্বয়ে দাঁড়িয়েছে ২৯৯ জনে। তবে সবচেয়ে বেশি ১৭৩ জন আক্রান্দ শনাক্ত হয়েছে রাঙামাটি শহরেই। এখন পর্যন্ত জেলায় সবচেয়ে কম সংক্রমণ হওয়া উপজেলা হলো বরকল, সেখানে মাত্র ১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

ইতিমধ্যে জেলায় ১৪৪ জন করোনা রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। যার মধ্যে বুধবার নতুন করে সুস্থ হয়েছেন ৬ জন। বর্তমানে জেলায় প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে আছেন ১৫ জন এবং করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৬ জন। এছাড়া করোনা পরীক্ষার জন্য এ পর্যন্ত রাঙামাটি থেকে মোট ২১৩৩টি নমুনা পাঠানো হয়েছে। এরমধ্যে রিপোর্ট এসেছে ১৮৯১টি, যার ২৯৯টিই পজিটিভ। এখনো অপেক্ষমান নমুনা রিপোর্টের সংখ্যা ২৪২।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

রাজস্থলীতে মাস্ক না পরলেই গুনতে হচ্ছে জরিমানা

নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী মুখে মাস্ক না পরে ঘরের বাইরে আসায় বাজারে …

Leave a Reply