নীড় পাতা » ব্রেকিং » করোনাবন্দী জীবন নিয়ে কী বলছেন রাঙামাটির মানুষ ?

করোনাবন্দী জীবন নিয়ে কী বলছেন রাঙামাটির মানুষ ?

ফাইল ছবি

কেমন কাটছে করোনাবন্দী জীবন,জানতে চেয়েছিলাম আমাদের পাহাড়টোয়েন্টিফোর ডট কম এর পাঠকদের কাছে। নানাজন নানাভাবে ভিন্নরকম এই দিনযাপনের কথাই জানালেন।

সংবাদকর্মী আরমান খান জানালেন-‘ মুভি দেখি, বাচ্চাদের সময় দেই।’

তরুন সংগঠক দীপ্ত চৌধুরী তন্ময় জানালেন-‘ গ্রামে গ্রামে ঘুরে কীটনাশক দিয়ে প্রান্তিক মানুষ কে এর কুফল সম্পর্কে বুজাবার চেষ্টা করেছি।’

মজার উত্তর দিলেন আরেকজন সুজন চাকমা।তিনি লিখেছেন- ‘সারাদিন হাত ধোয়া ছাড়া আর কি করা আছে।’

আওয়ামীলীগ কর্মী জামিল মোস্তফা জানিয়েছেন- ‘বাসার কিছু কাজ, নামাজ আদায় করলাম আল্লাহ্ কাছে দোয়া চাইলাম করোনা ভাইরাস থেকে সবাই কে যেন রক্ষা করেন। আর ফেইসবুক নিয়ে ঘাটা ঘাটি। আপনি কি করলেন?’

রাজনৈতিক কর্মী রিপন ত্রিপুরা বাবু জানালেন-‘ স্ট্রোক করার পর থেকেই চারমাস বাসায়, আজ সারাদিন হোম কোয়ারেন্টাইনে, পরিবারে সদস্যদের সাথে।’

রাঙামাটি সরকারি কলেজের সম্মানের ছাত্র সাদেক হোসেন জানিয়েছেন-‘ সকালে ঘুম থেকে উঠলাম এরপর আবার ঘুমালাম এরপর ঘুম থেকে উঠে আবার ঘুমালাম এখন আবার ঘুমাবো এরপর ঘ থেকে উঠে আবার ঘুমাবো।’

সাব্বিরুল ইসলাম কাব্য জানালেন- ‘চার ভাই মিলে কেরাম খেললাম।’

রিপন সারোয়ার জানিয়েছেন, ‘আজ সারাদিন বাসায় বন্দী ছিলাম শুধু মাত্র নামাজ পড়ার জন্য মসজিদে গিয়েছিলাম।’

রাঙামাটিবাসির বিপদ আপদে ঝাপিয়ে পড়া পরিচিত মুখ যুবলীগ নেতা আবু তৈয়ব লিখেছেন-‘ আজ অনেক দিন পর বাচ্ছাদের সারাদিন সময় দিতে পারলাম।’

আরেক পাঠক রায়হানউদ্দিন লিখেছেন-‘ কাজ, এর পর থেকে শুধু কাহিনী ,পুলিশ আসছে , আত্নকিত এই ই কারণ এ একজন আহত কিছুক্ষণ আগে।’

আরেক পাঠক রাজেশ চাকমা লিখেছেন-‘ সারাদিন রুমে।’

দৈনিক পার্বত্য চট্টগ্রামের অনলাইন ইনচার্জ প্রান্ত রনি লিখেছেন- ‘এই যে একটু আগে পাহাড়২৪ অফিস থেকে বের হলাম।’

কভিড-১৯ বা করোনা ভাইরাসের কারণে ২৬ মার্চচ থেকে স্তব্ধ পার্ববত্য শহর রাঙামাটি। এই স্তব্ধ শহরে মানুষের দিনলিপি জানার চেষ্টা করেছে পাহাড়ের সবচে জনপ্রিয় ও সর্বাধিক পঠিত অনলাইন পোর্টাল পহাাড়টোয়েন্টিফোর ডট কম।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

সরকারের পায়ের নীচে মাটি নেই : মনিস্বপন

‘এই সরকারের পায়ের নীচে মাটি নেই। দেশ ভালো নেই, দেশের মানুষ ভালো নেই। গনতন্ত্র নেই, …

Leave a Reply