নীড় পাতা » ব্রেকিং » এমপির অভিযোগ নাকচ নির্বাচন কমিশনের

এমপির অভিযোগ নাকচ নির্বাচন কমিশনের

CHINU-APAএফপিএবি রাঙামাটি জেলার নিবার্চন প্রসঙ্গে সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনুর সংবাদ সম্মেলনে আনা অভিযোগসমূহ অস্বীকার করেছেন নির্বাচন কশিনার হিসেবে দায়িত্বপালন কারি এডভোকেট পরিতোষ দত্ত,অধ্যক্ষ তাসাদ্দিক হোসেন কবির এবং বর্তমান কমিটির সাধারন সম্পাদক মুজিবুর রহমান দীপু।

ফিরোজা বেগম চিনুর সংবাদ সম্মেলনে করা অভিযোগের জবাবে নির্বাচন কমিশনার এডভোকেট পরিতোষ দত্ত বলেন, মাননীয় এমপি যে অভিযোগ এনেছে তা মূল্যহীন। তিনি অভিযোগ করেছেন ১৪ তারিখ তফসিল/বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে ,১৫ তারিখে স্বাক্ষর করা হয়েছে,কিন্তু এখানে তফসিল ও বিজ্ঞপ্তি এক নয়। তিনি বিষয়টি সম্পর্কে ভালোভাবে জানেননা, ভালো করে এগুলো পড়লে ও জানলে তিনি বুঝতে পারতেন। একজন সংসদ সদস্যের এমন ভুল করা উচিত নয়।

আরেক নির্বাচন কমিশনার তাছাদ্দিক হোসেন কবীর বলেন, তিনি যে চিঠির কথা বলেছেন, সংগঠনটির কেন্দ্রীয়ভাবে নির্দেশনায় বলা আছে, নির্বাচনের ১২ দিন আগে নোটিশ বোর্ডে দিতে হবে। এখানেতো চিঠি আকারে দিতে হবে বলা নেই। আর দিয়েছে যখন তখনতো আরো ভালো হয়েছে।’আচরণ বিধি এবং তফসিল এক নয়’ দাবি করে এই নির্বাচন কমিশনার বলেন, আমি এটির সাথে ১৪ তারিখে যুক্ত হই, এদের যে ভোটার তালিকা, তাই আমরা দেখেছি। ওদের এখানে বলা আছে, একজন সংগঠন করে এমন অবস্থায় ৩ বছর হলে সে ভোট দিতে পারবে। যদি একদিনও কম হয় তবে সে ভোট দিতে পারবে না। আর তিনি যে বলেছেন বিভিন্ন সময়ে সদস্য নেওয়া হয়েছে ,তা হবে যুব সদস্য।

নিবার্চক তাছাদ্দিক হোসেন কবীর আরো বলেন, আমরা ১৫ তারিখে অন্য সব কাজ শেষ করে ১৬ তারিখ থেকে ১৮ তারিখ বিকাল পর্যন্ত অপেক্ষা করেছি, কোন অভিযোগ আসে কিনা। কিন্তু কোন প্রকার অভিযোগ আমাদের কাছে আসেনি।

এফপিএবি রাঙামাটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ মুজিবর রহমান দীপু বলেন, সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু বিভিন্ন সময় উল্লেখ করে বলেছেন, ওই সময়ে সদস্যভূক্ত করা হয়েছে, আসলে ওই সময়ে কোন সদস্য করা হয় নি, সদস্য হতে ইচ্ছুকদের রশিদ জমা নেওয়া হয়েছে।

যুব সদস্য প্রসঙ্গে সংসদ সদস্যের অভিযোগের জবাবে তিনি বলেন, ‘প্রতি তিন মাস অন্তর অন্তর কার্যনিবার্হী কমিটির সভা হয়, সেখানে সদস্যদের ব্যাপারে অনুমোদিত হয়, আমাদের শেষ সভা হয়েছিলো ১৯/০৯/১৫ইং। এর মধ্য কোনো সভা হয়নি। ফলে তিনি যে সময়গুলোর কথা বলছেন তার কোন মূল্য নেই,এই সময়ে কোন সভাই হয়নি। যদি তিনি এর প্রমাণ করতে পারে তবে আমরা এফপিএবি ছেড়ে চলে যাবো বলেও ঘোষনা দিয়েছেন।’

মুজিবুর রহমান দীপু আরো বলেন, ঘোষিত তফসিল অনুসারে ১৮ অক্টোবর পর্যন্ত কারো আপত্তি থাকলে জানানোর কথা ছিলো, কিন্তু এসময়ে কোন আপত্তি জানানো হয়নি। এমন কি ২২ অক্টোবর তার পক্ষের প্রতিনিধিরা সভায় উপস্থিত ছিলেন,তারা সেখানেও কোন আপত্তি করেননি। এমতাবস্থায় তার সংবাদ সম্মেলন কিংবা অভিযোগের বিষয়টি আমরা বুঝতে পারছিনা।’

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণে বিরোধীতার প্রতিবাদ রাঙামাটিতে

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য নির্মাণে বিরোধীতার নামে ‘উগ্রমৌলবাদ ও ধর্মান্ধগোষ্ঠীর জনমনে বিভ্রান্তির …

Leave a Reply