নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » এবার বনভন্তের জন্মদিনে শহরে ত্রিপিটক নিয়ে শোভাযাত্রা

এবার বনভন্তের জন্মদিনে শহরে ত্রিপিটক নিয়ে শোভাযাত্রা

DSCN2473আগামী ৮ জানুয়ারি সাধনানন্দ মহাস্থবির বনভন্তের জন্মদিবস পালনের লক্ষ্যে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদে সোমবার প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় এবং শৃঙ্খলার সাথে পালনের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভায় বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। জেলা পরিষদের হলরুমে অনুষ্ঠিত এ সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা।
বনভন্তের জন্মদিন ঘিরে ৮ জানুয়ারি রাঙামাটি শহরে একটি ধর্মীয় মোটর শোভাযাত্রা বের করা হবে। শোভাযাত্রাটি রাজবন বিহার থেকে শুরু হয়ে রিজার্ভ বাজারের প্রেসক্লাব মোড় ঘুরে রাঙামাটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় সড়ক হয়ে তবলছড়ির আনন্দ বিহার, আসামবস্তি, রাঙাপানি, মোনঘর, সংঘারাম বিহারসহ প্রধান প্রধান বৌদ্ধ বিহার প্রদক্ষিণ করার পরিকল্পনা নেয়া হয়। মোটর শোভাযাত্রায় সবার সামনে থাকবে পবিত্র ত্রিপিটকসম্ভার বহনকারী যান, এর পিছনে ভিক্ষুসংঘ ও পুণ্যার্থীদের গাড়ি থাকবে।

শোভাযাত্রা বিষয়ে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা বলেন, মহাপবিত্র ত্রিপিটক গ্রন্থ সারা রাঙামাটি শহর প্রদক্ষিণ করানোর মধ্য দিয়ে এক অন্যরকম আবহ তৈরি হতে পারে। রাঙামাটি রাজবন বিহারে ইতোমধ্যে সমগ্র ত্রিপিটক খন্ড আনা হয়েছে। এর মাধ্যমে ত্রিপিটক সম্পর্কে স্থানীয় লোকজন অবগত হতে পারবে। তাছাড়া মহাপবিত্র ত্রিপিটকের ছোঁয়ায় মানুষের মনও পবিত্র হয়ে উঠবে। এজন্য এটি অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ। ইতোমধ্যে যেসব এলাকায় রাস্তা সংস্কারের কাজ চলছে শোভাযাত্রার সময় তা বন্ধ রাখার বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের জানিয়ে দেওয়ার সভায় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। অনুষ্ঠানটি যাতে সুন্দর ও সুশৃঙ্খলভাবে সম্পাদন করা যায় সে বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য রাজবন বিহার উপাসিক-উপাসিকা পরিষদের নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।
সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রাঙামাটি পৌরসভার কাউন্সিলর কালায়ন চাকমা, সিভিল সার্জন ডা. মোস্তাফিজুর রহমান, কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম চৌধুরিসহ জেলা প্রশাসন ও জেলা পরিষদের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, রাঙামাটি রাজবন বিহার উপাসক-উপাসিকা পরিষদের প্রতিনিধি সুভাষ বড়ুয়া, অমিয় খীসা ও রনেন্দ্র চাকমা প্রমুখ।
এদিকে এ অনুষ্ঠানকে ঘিরে আগামী ২ জানুয়ারি থেকে ৮ জানুয়ারি রাজবন বিহারে সপ্তাহব্যাপী ধর্মপুজা অনুষ্ঠিত হবে। বনভান্তের নির্দেশনায় রাঙামাটি রাজবন বিহারে বাংলা, রোমান, বার্মিজ, হিন্দি, থাইল্যান্ডী, সিংহলী, তিব্বতী, লাউস ইত্যাদি বিভিন্ন ভাষা ও হরফে এবং পালি ভাষায় চাকমা হরফে পবিত্র ত্রিপিটকের চুরাশি হাজার ধর্মস্কন্ধ সংগ্রহ করে সংরক্ষিত রাখা হয়েছে। সপ্তাহব্যাপী ধর্মপূজায় অনুত্তর পুণ্যক্ষেত্র ভিক্ষুসংঘ নির্ধারিত সময়সুচি অনুযায়ী সুত্র,বিনয় ও অভিধর্ম বা পবিত্র ত্রিপিটকের চুরাশি হাজার ধর্মস্কন্ধ পাঠ করবেন বলে জানানো হয়েছে।
ধর্মপুজায় অর্জিত পুণ্যপ্রভাবে জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলের সুখ, শান্তি সমৃদ্ধি প্রার্থনা করা হবে পরিনির্বাপিত পরম পুজ্য বনভান্তের নিকট। অনুষ্ঠানের দিন শহর ও রাজবন বিহার এলাকার সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করাসহ নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ও পানীয় জলের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ জানানো হয়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বান্দরবানে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা

বান্দরবানের লামা উপজেলার রুপসীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাচিং প্রু মারমার বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের করা …

Leave a Reply