নীড় পাতা » ব্রেকিং » ‘এটা অমূলক ধারণা,অমূলক শংকা’

‘এটা অমূলক ধারণা,অমূলক শংকা’

Untitled-1পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন আইন কার্যকর হলে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসকারি বাঙালীরা ভূমি থেকে উচ্ছেদ হবেন, এমন শংকাকে ‘অমূলক ধারণা ও অমূলক শংকা’ বলে মন্তব্য করেছেন কমিশনের চেয়াম্যান অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি আনোয়ার উল হক। তিনি বলেন ভূমি কমিশন শুধুমাত্র বিরোধপূর্ণ ভূমি নিয়েই কাজ করবে। ’

রবিবার রাঙামাটিতে ভূমি কমিশনের আইন সংশোধিত হওয়ার পর অনুষ্ঠিত প্রথম সভা শেষে সাংবাদিকদের এমন কথা বলেন তিনি। সকাল সাড়ে দশটায় শুরু হওয়া সভাটি শেষ হয় বেলা আড়াইটায়।

সকালে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড সম্মেলন কক্ষে সভা হওয়ার কথা থাকলেও বাঙালী সংগঠনগুলোর ডাকা হরতালের কারণে সার্কিট হাইজেই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভা শেষে দেয়া প্রতিক্রিয়ায় পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান ও জনসংহতি সমিতির সভাপতি জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা এবং চাকমা সার্কেল চীফ ব্যারিষ্টার দেবাশীষ রায়ও কমিশনের কার্যক্রম শুরুকে স্বাগত জানিয়ে বলেছেন, প্রাথমিকভাবে আজ কমিশনের কার্যক্রম নিয়ে আলোচনা হলেও আমরা আশাবাদী এই কমিশন পার্বত্য চুক্তি মোতাবেক পাহাড়ের ভূমি সমস্যা সমাধানে কাজ করে যাবে।

বৈঠক শেষে দৃশ্যত: হাস্যজ্জ্বল মুখে সন্তু লারমা সাংবাদিকদের প্রশ্নে জবাবে বলেন, আমরা কমিশনের কার্যপদ্ধতি কি হবে না হবে সেসব নিয়েই আলোচনা করেছি। এর বাজেট, জনবল নিয়োগ নিয়ে আলোচনা করেছি। ‘সন্তুষ্ট কিনা’ এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন,সবেমাত্র তো আজকেই বৈঠক করলাম,আমরা তো আশাবাদী। এগিয়েতো নিতেই হবে, আপনাদের সহযোগিতাও লাগবে। সরকার এগিয়ে এসেছে,সরকারের সহযোগিতার মনোভাব নিয়ে, আমরাও সরকারকে সহযোগিতা করতে হবে। আমরা আশা করছি এই কমিশনের মাধ্যমেই বিরাজমান যে ভূমি সমস্যা,তার নিরসন করতে পারবো।’21

চাকমা সার্কেল চীফ ব্যারিষ্টার রাজা দেবাশীষ রায় বলেন, আজকে মূলত আমরা কি প্রক্রিয়ায় দরখাস্ত আহ্বান করবো,আমাদের জনবলের বিষয় আছে,সার্ভেয়ার-কানুনগো লাগবে,২০১০ সালে যে পদগুলো সৃষ্টি করা হয়েছিলো সেই পদগুলোও পূরণ করতে হবে,অফিস করতে হবে,এখনতো যেকোন পার্বত্য জেলাতেই অফিস করা যাবে এবং শাখা অফিস লাগবে-এসব এবং আনুসঙ্গিক বিষয় নিয়েই আলোচনা হয়েছে। ‘ভূমি কমিশনের সংশোধনীর কারণে এর কাঠামোগত পরিবর্তন হয়েছে কিনা’ এমন এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নতুন বা পুরাতন বলে কিছুটা,২০০১ সালের আইনটিতে পার্বত্য চুক্তির সাথে অসামঞ্জস্যপূর্ণ যেসব ধারা ছিলো তা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন সদাশয় সরকার দূর করেছেন। এখন নতুন আর পুরাতন কিছু না ধরে, আমরা সংশোধনীসহ ২০০১ সালের মূল আইনকে ধরেই কাজ এগিয়ে নিবো। ’
সভায় কমিশনের নয় সদস্য অংশগ্রহণ করেছেন। সভা আনুষ্ঠানিকভাবে শুরুর আগে প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্রবিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী,পার্বত্য সচিব নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা এবং সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার কমিশন সদস্যদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেন।

এদিকে ভূমি কমিশনের সংশোধিত আইনকে বাঙালীবিদ্বেষি,কমিশনকে পক্ষপাতদুষ্ট এবং কমিশনে বাঙালী সদস্য বাড়ানোর দাবিতে বাঙালী সংগঠনগুলোর ডাকে তিন পার্বত্য জেলায় চলমান হরতালে কার্যত অচল হয়ে পড়েছে পার্বত্য রাঙামাটি। সকাল থেকে শহরের আভ্যন্তরীন ও দুরপাল্লার সব ধরণের যান চলাচল বন্ধ আছে। হরতালের সমর্থনে শহরের বিভিন্নস্থানে পিকেটিং করেছে বাঙালীরা। শহরে অতিরিক্ত পুলিশ ও বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

জুরাছড়িতে গুলিতে নিহত কার্বারির ময়নাতদন্ত সম্পন্ন

রাঙামাটির জুরাছড়ি উপজেলায় স্থানীয় এক কার্বারিকে (গ্রামপ্রধান) গুলি করে হত্যা করেছে অজ্ঞাত বন্দুকধারী সন্ত্রাসীরা। রোববার …

Leave a Reply