নীড় পাতা » পাহাড়ের রাজনীতি » ‘এইসব রাজনৈতিক নোংরামি, ওরা চায়না বান্দরবানে আর কেউ ক্ষমতা পাক’…সুচিত্রা তঞ্চঙ্গ্যা

‘এইসব রাজনৈতিক নোংরামি, ওরা চায়না বান্দরবানে আর কেউ ক্ষমতা পাক’…সুচিত্রা তঞ্চঙ্গ্যা

suchitra-Pic‘আমি নাকি আওয়ামী লীগের কেইনা ! কেই না হলে আমি কি করে ৬/৭ বছর পৌর মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ছিলাম ? কিভাবে আমাকে জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটিতে সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে ? এইসব রাজনৈতিক নোংরামি, বান্দরবানে ওরা ছাড়া আর কেউ যেনো কোন ক্ষমতা না পায়,সেই জন্যই তারা এইসব নোংরামি করছে,প্রসন্ন কান্তি তঞ্চঙ্গ্যা আমার ভাই,এটাও হয়তো আমার অপরাধ ! ’- এইভাবেই নিজের ক্ষোভ আর বেদনার কথা জানালেন বান্দরবান জেলা থেকে নারী সংসদ সদস্য হিসেবে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া সুচিত্রা তঞ্চঙ্গ্যা। তার মনোনয়ন পাওয়ার পর জেলা আওয়ামীলীগ ও বীর বাহাদুরের সমর্থক নেতাকর্মীরা তাকে বাদ দেয়ার জন্য কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের দফতরে দরখাস্ত জমা দেয়া এবং নানান প্রচেষ্টা চালানোর বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি পাহাড়টোয়েন্টিফোর ডট কমকে এইসব কথা বলেন।

সুচিত্রা তঞ্চঙ্গ্যা বলেন,বীর বাহাদুর দা’র এপিএস সাদেক এবং জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কেশৈহ্লা এইসব করছে। প্রধানমন্ত্রী নিজে মহিলা সংসদ সদস্য হিসেবে আমাদের মনোনয়ন চূড়ান্ত করার পরও এইসব অপতৎপরতা নেত্রীর সিদ্ধান্তর প্রতি অবমাননার সামিল। আমার সাফল্যে ঈর্ষান্বিত হয়ে তারা এসব করছে।
সুচিত্রা তঞ্চঙ্গ্যা বলেন, আমি প্রসন্ন বাবু আত্মীয় এবং তঞ্চঙ্গ্যা হয়ে কি অপরাধ করেছি নাকি ? আমরা ক্ষমতা পেলে কেনো তাদের এতো ক্ষোভ ? এতো বেদনা ? সব ক্ষমতা কেনো শুধু তাদেরই লাগবে ?
বান্দরবানবাসীকে বঞ্চিত করার কোন অধিকার কারো নাই মন্তব্য করে এই নারী নেত্রী আরো বলেন,তারা এখন বলছে আমি খারাপ,কিন্তু সর্বশেশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমি যখন নৌকার জন্য ভোটে বীর বাহাদুরের সাথে ঘুরেছি,কাজ করেছি,তখন তো তাদের আমাকে খারাপ মনে হয়নি !
বান্দরবান আওয়ামী লীগের সবাই নয়,গুটিকয়েক ব্যক্তি ঈর্ষান্বিত হয়েই এইসব অপতৎপরতা চালাচেছ দাবি করে তিনি আরো বলেন,আমার নেত্রীর প্রতি বিশ্বাস আছে,আস্থা আছে। নেত্রী যেমন সবকিছু বিবেচনা করেই আমাকে মনোনয়ন দিয়েছেন,তেমনি এসব অপতৎপরতাও তার কাছে পাত্তা পাবেনা। সুতরাং আমারা মনোনয়ন বাতিল হওয়ার প্রশ্নই আসেনা।

সুচিত্রা তঞ্চঙ্গ্যা বলেন,বীর বাহাদুর যেমন জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য,আমিও তেমনি জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য। সুতরাং আমি কেউ না,এটা যারা বলে তারা ব্যক্তিগত ঈর্ষার কারণে এসব বলছে।

বান্দরবানবাসি তথা পার্বত্য এলাকার সকল মানুষের আশীর্বাদ কামনা বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করা সুচিত্রা তঞ্চঙ্গ্যা বলেন,পাহাড়ের মানুষের জন্য কাজ করার একটি সুযোগ তৈরি হয়েছে,আমি আমার সর্বোচ্চ চেষ্টা দিয়ে কাজ করব। কোন চক্রান্ত বা ষড়যন্ত্রই সফল হবেনা।

প্রসঙ্গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে পার্বত্য জেলা থেকে নারী সংসদ সদস্য হিসেবে ফিরোজা বেগম চিনু ও সুচিত্রা তঞ্চঙ্গ্যাকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

জনপ্রিয় হচ্ছে ‘তৈলাফাং’ ঝর্ণা

করোনার প্রভাবে দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল খাগড়াছড়ির পর্যটন ও বিনোদনকেন্দ্র। তবে টানা বন্ধের পর এখন খুলেছে …

One comment

  1. Good dicision and to look her attitude, behave she is very oversmart with under politics..

Leave a Reply

%d bloggers like this: