নীড় পাতা » বান্দরবান » উপজেলা পরিষদ নির্বাচন: বান্দরবানে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌঁড়ঝাপ

উপজেলা পরিষদ নির্বাচন: বান্দরবানে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌঁড়ঝাপ

সংসদ নির্বাচন শেষ হওয়ার সাথে সাথে বান্দরবানে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দৌঁড়ঝাপ শুরু হয়ে গেছে। নির্বাচন কমিশন আগামী মার্চ মাসে নির্বাচনের সম্ভাব্য মাসের কথা সংবাদ মাধ্যমকে জানানোর পর এই দৌঁড়ঝাপ শুরু হয়। তবে এই দৌঁড়ঝাপ আপাতত ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান উভয় পদেই অনেক আগ্রহী দেখা যাচ্ছে। তবে বিএনপি বা অন্য কোনো দলের প্রার্থীদের আগ্রহ এখন পর্যন্ত দেখা যায়নি।

জানা গেছে, আগামী মার্চ মাসে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন হতে পারে। সে অনুযায়ী ফেব্রুয়ারি মাসে সম্ভাব্য তফসিল ঘোষণা হতে পারে। এদিকে, উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বান্দরবান জেলার সাতটি উপজেলায় উপজেলা নির্বাচনের নির্বাচনী হাওয়া লেগেছে। আওয়ামীলীগ নেতারা সবাই দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করার কথা ভাবছেন। ইতিমধ্যে অনেকে দলীয় মনোনয়ন পেতে নেতাকর্মীদের কাছে লবিংও শুরু করেছেন।

গতবার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ৭ উপজেলায় আওয়ামীলীগের ভরাডুবি হওয়ার কারণে এবার আগে থেকে যোগ্য সম্ভাব্য প্রার্থীরা সিনিয়র নেতাদের মন জয় করার চেষ্টা চালাচ্ছেন। গতবার যে সব কারণে ভরাডুবি হয়েছে এবার সেসব কারণগুলো বিচার বিশ্লেষণ শুরু করেছে জেলা আওয়ামীলীগ। প্রার্থীরা যাতে পরাজিত না হন সে জন্য যোগ্য প্রার্থীদের বাছাই করে নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়া হবে বলে আওয়ামী লীগের একটি দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বেবী জানান, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের বিষয় নিয়ে এখনো দলীয় কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে তৃণমূল পর্যায়ে নেতাকর্মীদের সাথে আলাপ-আলোচনা করে যোগ্য প্রার্থীদের মনোনয়ন দেয়া হবে।

ইতিমধ্যে জেলা আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের তৃণমূল পর্যায়ে নেতাকর্মীদের মুখে বান্দরবান সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন, বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি একে এম জাহাঙ্গীর, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকও পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য লক্ষীপদ দাশ, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য মোজাম্মেল হক বাহাদুর, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ৩নং ওয়ার্ড পৌর কাউন্সিলর অজিত কান্তি দাশ ও বর্তমান উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ জামাল উদ্দিন চৌধুরী।

নাইক্ষংছড়ি উপজেলায় যাদের নাম শোনা যাচ্ছে, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক মো. শফিউল্লাহ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান তসলিম ইকবাল চৌধুরী ও সাবেক সভাপতি মোঃ তাহের কোম্পানী।

লামায় বর্তমান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ ইসমাইল ও গজালিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বাথোয়াই চিং মার্মা এর নাম শোনা যাচ্ছে। আলীকদম উপজেলায় বর্তমান সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ জামাল উদ্দিন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মংব্রাচিং মামা, মোজাম্মেল হক ও নাছির উদ্দিনের নাম আলোচিত হচ্ছে। থানচি উপজেলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মংথোয়াই ম্যায় রনি, সাবেক সভাপতি বাশৈসিং মার্মা, সহ-সভাপতি উবামং মার্মা ও অলসেন ত্রিপুরার নাম শোনা যাচ্ছে। রুমা উপজেলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি উহ্লাচিং মার্মা, অ্যাডভোকেট বাসিং থোয়াই মার্মা ও সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়াম্যান শৈমং চিং মারমা শৈবং’ এর নাম আলোচনায় রয়েছে। রোয়াংছড়ি উপজেলায় যাদের নাম শোনা যাচ্ছে, তারা হলেন, আলেক্ষ্যং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি বিশ্বনাথ তঞ্চঙ্গ্যা, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি চহাই মং মারমা, বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদিকা মাউসাং ও আওয়ামীলীগ নেতা সাহ্লা মং মারমা।

এদিকে, বিএনপি ও অন্যান্য দলের প্রার্থীদের এখনো কোন তোড়জোড় লক্ষ্য করা না গেলেও আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল জনসংহতি সমিতির পক্ষ থেকে সম্ভাব্য বেশ কয়েকজন প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

রাঙামাটিতে করোনায় আরও এক নারীর মৃত্যু

রাঙামাটি শহরে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার ভোররাতে শহরের চম্পকনগর আইসোলেশন …

Leave a Reply