নীড় পাতা » ব্রেকিং » আস্থা ও বিশ্বাসের প্রতিষ্ঠান উন্নয়ন বোর্ড

আস্থা ও বিশ্বাসের প্রতিষ্ঠান উন্নয়ন বোর্ড

পার্বত্য অঞ্চলকে সার্বিকভাবে উন্নয়নের জন্য ৪০ বছর ধরে কাজ করে যাচ্ছে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড। এই বোর্ডের প্রতি অত্র এলাকার মানুষদের রয়েছে বিশ্বাস ও আস্থা। অত্র অঞ্চলের মানুষরা জানেন উন্নয়ন বোর্ড তাদের কল্যাণের জন্য কাজ করবে এবং তাদের সুযোগ-সুবিধার জন্য বিভিন্ন ধরনের প্রকল্পের মাধ্যমে কাজ করবে। এই আস্থা ও বিশ্বাস লাভের ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা ছিলো অত্র প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের। তাদের আন্তরিক প্রচেষ্টা অত্র বোর্ড পার্বত্য অঞ্চলে সার্বিক উন্নয়ন’র মাধ্যমে মানুষের মাঝে ভালোবাসার স্থান করে নিয়েছে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড কর্মচারী কল্যাণ পরিষদের ৩০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন, শিক্ষা বৃত্তি প্রদান এবং অভ্যন্তরীণ ক্রীড়া প্রতিযোগিতা পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব ও পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা, এনডিসি এসব কথা বলেন। বুধবার সন্ধ্যায় পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের মাইনী হল রুমে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

পাবর্ত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড কর্মচারী কল্যাণ পরিষদের সভাপতি নমিতা দেওয়ান’র সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব অনামিকা ত্রিপুরা, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত সচিব) বীর মুক্তিযোদ্ধা তরুণ কান্তি ঘোষ, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব কামাল উদ্দিন তালুকদার। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড কর্মচারী কল্যাণ পরিষদের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন।

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা আরো বলেন, কর্মচারীরা পার্বত্য এলাকার উন্নয়নে কাজ করছে। এখন নিজের জন্যও কিছু করার প্রয়োজন। নিজেও ভালো থেকে অন্যকে ভালো রাখতে হবে। পাড়া কেন্দ্র প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, পার্বত্য এলাকার আমাদের বিশেষ সাফল্য হচ্ছে পাড়া কেন্দ্র। এই কেন্দ্রটি যে প্রকল্পের মাধ্যমে বাস্তবায়িত হয়েছে তার মেয়াদ শেষ হলেও আমরা এই কেন্দ্রটি ধরে রাখতে আরো বিশেষ কিছু উদ্যোগ গ্রহণ করবো। কর্মচারীদের পেনশন ভাতা সম্পর্কে তিনি জানান, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড কর্মচারীদের পেনশন ভাতার কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে আশা করা যাচ্ছে অতি দ্রুত কাজ শেষ হবে।

আলোচনা সভার আগে কেক কেটে এবং ‘কল্যাণ’ নামক স্মরণিকা মোড়ক উন্মেচন করার মাধ্যমে প্রধান অতিথি পরিষদের ৩০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করেন এবং পরে অভ্যন্তরীণ ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার ও কর্মচারীদের মেধাবি সন্তানদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান করা হয়। পরে স্থানীয় শিল্পীদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হয়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

১০ দিনেও সন্ধান মেলেনি অপহৃত ইউপি সদস্যের

রাঙামাটির কাপ্তাইয়ের রাইখালী ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য মংচিং মারমাকে অপহরণের পর দশদিন অতিবাহিত হলেও এখনো …

Leave a Reply