নীড় পাতা » পাহাড়ের অর্থনীতি » আর্থিক ক্ষমতা বাড়লো উন্নয়ন বোর্ডের

আর্থিক ক্ষমতা বাড়লো উন্নয়ন বোর্ডের

01পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের আর্থিক ক্ষমতা আরো বাড়লো। ইতিপূর্বে ২৫ লক্ষ টাকার একক প্রকল্প বরাদ্দ প্রদানের সামর্থ্য সীমাকে ২ কোটি টাকা নির্ধারন করে ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড আইন, ২০১৩’ এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। সোমবার সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এই অনুমোদন দেয়া হয়।
বৈঠক শেষে মন্ত্রী পরিষদ সচিব মোশাররাফ হোসেন ভূঁইয়া জানিয়েছেন, ১৯৭৬ সালে সামরিক শাসনের সময় প্রণীত অধ্যাদেশকে আইনে পরিণত করতে এ অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্প বরাদ্দ বাড়ানো ও অধ্যাদেশ ইংরেজি থেকে বাংলায় করা ছাড়া এতে আর তেমন কোনো পরিবর্তন করা হয়নি বলেও জানান মন্ত্রী পরিষদ সচিব।

প্রসঙ্গত,১৯৭৬ সালে পার্বত্য চট্টগ্রামের আর্থ সামাজিক উন্নয়ন,অবকাঠামো নির্মাণসহ বহুমাত্রিক উন্নয়ন চাহিদা মাথায় রেখে এক অধ্যাদেশ বলে প্রতিষ্ঠা করা হয় ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড’র। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই এই অঞ্চলের তিন জেলা রাঙামাটি,খাগড়াছড়ি এবং বান্দরবানে নানান উন্নয়ন প্রকল্প নিয়ে কাজ করে আসছে প্রতিষ্ঠানটি। তবে শুরু থেকেই এই প্রতিষ্ঠানে চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পেতেন সামরিকবাহিনীর কর্মকর্তারা। ২০০১ সালে বিএনপির শাসনামলে চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পান খাগড়াছড়ি থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য ওয়াদুদ ভূঁইয়া। ১/১১ এর জরুরী সরকারের সময় আবারো সামরিক বাহিনীর কর্মকতা চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তবে ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর আওয়ামী লীগ বান্দরবানের সংসদ সদস্য বীর বাহাদুরকে চেয়ারম্যান হিসেবে মনোনয়ন প্রদান করে।sitelogo

সরকার মনোনিত একজন চেয়ারম্যান,প্রেষনে নিয়োগ দেয়া যুগ্মসচিব পদমর্যাদার এজন সরকারি কর্মকর্তাকে ভাইস চেয়ারম্যান এবং চার উচ্চ পদস্থ সরকারি কর্মকর্তাকে সদস্য (পরিকল্পনা),সদস্য (বাস্তবায়ন),সদস্য (অর্থ) ও সদস্য (প্রশাসন) হিসেবে নিয়োগ ও তিন পার্বত্য রাঙামাটি,খাগড়াছড়ি এবং বান্দরবন জেলার জেলা প্রশাসকদের খন্ডকালিন সদস্য হিসেবে নিয়োগ দিয়েই ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড’ এর কার্যক্রম পরিচালিত হয়। একই সাথে বোর্ডের পৃথক একটি উপদেষ্টা কমিটিও আছে। বোর্ড চেয়ারম্যানকে সভাপতি করে বোর্ডের উপদেষ্টা কমিটিতে তিন পার্বত্য জেলার তিন সার্কেল চীফ বা তাদের প্রতিনিধি, তিন জেলার তিনজন ইউপি চেয়ারম্যান প্রতিনিধি, তিন সার্কেলের তিনজন হেডম্যান প্রতিনিধি এবং তিন পার্বত্য জেলা পরিষদের মূখ্য নির্বাহী কর্মকর্তাদের সদস্য হিসেবে রাখা হয়। এছাড়া সরকারের অনুমোদন সাপেক্ষে একাধিক সদস্য মনোনয়ন দিতে পারেন।

বর্তমানে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের মূল কার্যালয়ে ১৫১ জন কর্মকর্তাকর্মচারিসহ আরো পাঁচটি প্রকল্পে সর্বমোট ৫২২ জন কর্মকর্তা কর্মচারি কর্মরত আছেন। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান কার্যালয় রাঙামাটি শহরে অবস্থিত হলেও বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলায়ও তাদের নিজস্ব কার্যালয় রয়েছে।

02

Micro Web Technology

আরো দেখুন

গুজবের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকার আহ্বান

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়ানো গুজবের বিরুদ্ধে সজাগ থাকার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে। আজ রবিবার …

Leave a Reply

%d bloggers like this: