নীড় পাতা » খাগড়াছড়ি » ‘অস্ত্র আর ধ্বংসাত্মক রাজনীতি বন্ধ না করলে পাল্টা আঘাত’

‘অস্ত্র আর ধ্বংসাত্মক রাজনীতি বন্ধ না করলে পাল্টা আঘাত’

pic-1UUcখাগড়াছড়ির পানছড়ি উপজেলায় লোগাং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি নব রঞ্জন ত্রিপুরা(৪২)কে হত্যার ঘটনায় পানছড়ি থানায় মামলা হয়েছে। নিহতের স্ত্রী পারুল বালা ত্রিপুরা বাদী হয়ে ইউপিডিএফের ১০/১২ জন নেতাকর্মীকে আসামী করে এই মামলা দায়ের করেন। এদিকে বৃহষ্পতিবার বিকালে খাগড়াছড়ি জেলা সদর হাসপাতালে লাশ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ সময় হাসপাতালে পরিবার ও স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন, বাধা উপেক্ষা করে নির্বাচনে নৌকার পক্ষে কাজ করায় নব রঞ্জন ত্রিপুরাকে হত্যা করা হয়েছে।

নিহত নব রঞ্জন ত্রিপুরার ছোট ভাই লোগাং ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ড মেম্বার সাজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা বলেন, রাত ৮টার দিকে নব কুমার ত্রিপুরা খাওয়া দাওয়া শেষে বাসায় বিশ্রাম করছিলেন। এসময় বাসার চারপাশে ঘিরে রাখা অস্ত্রধারীদের মধ্যে ৩/৪ জন বাসায় ঢুকে তাকে ধরে নিয়ে যায়। এর কিছুক্ষন পর গুলির শব্দ শোনা যায়। পরে পরিবার ও স্থানীয়রা বাসার পাশ্ববর্তী নদী পার হয়ে রাস্তার পাশ থেকে তার গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করে। তিনি বলেন, ইউপিডিএফ নৌকার পক্ষে কাজ না করতে নব রঞ্জনকে বারবার নিষেধ করেছিলেন। তারা হাতির পক্ষে কাজ করার জন্য বারবার চাপ দিচ্ছিলেন। তাদের বাধা উপেক্ষা করে নব রঞ্জন নৌকার পক্ষে কাজ করায় হত্যা করা হয়েছে।

এদিকে ইউপিডিএফকে প্রতিহতের ঘোষনা দিয়েছে ত্রিপুরা সমাজ। অস্ত্র আর ধ্বংসাত্মক রাজনীতি বন্ধ না করলে তাদের বাড়ীঘর, দলীয় অফিস জ্বালিয়ে দেয়ার হুমকি দেয়া হয়। বৃহষ্পতিবার সকালে জেলা শহরের শাপলা চত্বরে ‘জেলার ত্রিপুরা সমাজ’র ব্যানারে আয়োজিত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে এই ঘোষান দেয়া হয়। পার্বত্য জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি মনিন্দ্র লাল ত্রিপুরার সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন আওয়ামীলীগের সদর উপজেলা কমিটির সভাপতি খোকনেশ্বর ত্রিপুরা, বাংলাদেশ ত্রিপুরা স্টুডেন্ট ফোরামের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক তপু ত্রিপুরা, ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ভবেশ্বর রোয়াজা,জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক তাপস ত্রিপুরা প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, দিন যতই যাচ্ছে ইউপিডিএফের নৈরাজ্য ততই বাড়ছে। তারা দিনের পর দিন খুন, অপহরণ, চাদাঁবাজী করে মানুষকে জিম্মি করে রেখেছে। সর্বশেষ নির্বাচনে হাতি মার্কায় কাজ না করায় ইউপিডিএফ সন্ত্রাসীরা আওয়ামীলীগ নেতা নব রঞ্জন ত্রিপুরাকে হত্যা করেছে।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, এখন থেকে ইউপিডিএফের প্রতিটি নাশকতার মোকাবেলা করা হবে। তারা যদি আর কোন ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীকে হত্যা বা অপহরণের চেষ্টা করে তাহলে জ্বালিয়ে দেয়া হবে তাদের বাড়ী ঘর, দলীয় অফিস। জেলা উপজেলার বাজারে আসতে বাধা দেয়া হবে।
এই সমাবেশ শেষে শহরে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি শহরের গুরুত্বপুর্ণ সড়ক প্রদক্ষীণ করে প্রেস ক্লাবে এসে শেষ হয়।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

নারীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় অবদান রাখবে কিশোরী ক্লাব

রাঙামাটির বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা (এনজিও) প্রোগ্রেসিভের বাস্তবায়নে ‘আমাদের জীবন, আমাদের স্বাস্থ্য, আমাদের ভবিষ্যৎ’ এই প্রকল্পের …

Leave a Reply