নীড় পাতা » করোনাভাইরাস আপডেট » অর্থাভাবে বেতন হচ্ছে না বেসরকারি বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের

অর্থাভাবে বেতন হচ্ছে না বেসরকারি বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের

মহামারী নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে প্রায় দেড় বছর ধরে বন্ধ রয়েছে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। বন্ধ রয়েছে বেসরকারি উদ্যোগে পরিচালিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোও। খাগড়াছড়ি জেলার মহালছড়ি উপজেলার বিভিন্ন স্থানে পাড়া-মহল্লায় গড়ে উঠা বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষক-কর্মচারীরা আর্থিক সংকট নিয়ে কঠিন সময় পার করছেন। প্রায় দেড় বছর ধরে স্কুল বন্ধ থাকায় আর্থিকভাবে সংকটে আছেন তাঁরা।

মহালছড়ি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্র জানায়, মহালছড়ি উপজেলায় বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্য রয়েছে ১৪টি। এগুলো হলো. সিঙ্গিনালা আইডিয়াল বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাইসছড়ি চাইল্ড কেয়ার বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মহালছড়ি আদর্শ বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মহালছড়ি শিশুমঞ্চ এনজি স্কুল, উঃ মণিজ্যেতি শিশু সদন বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পশ্চিম ক্যায়াংঘাট বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, লেমুছড়ি শান্তিপুর বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শান্তিনগর আদর্শ বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ক্যায়াংঘাট নতুন বাজার বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ছাতিপাড়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মণিরামপুর বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, হাজাছড়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উল্টাছড়ি চেয়ারম্যান পাড়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মুবাছড়ি কিন্ডার গার্টেন স্কুল। এসব স্কুলের শিক্ষক কর্মচারীর সংখ্যা প্রায় দেড় শতাধিক ।

মহালছড়ি শিশু মঞ্চ এনজিস্কুলের প্রধান শিক্ষক বিশ^জিৎ মজুমদার বলেন, করোনা সংক্রমণ এড়াতে সরকারি নির্দেশনায় গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে মাসিক বেতনটাও নেয়া যায়নি। এছাড়া বেশিরভাগ স্কুলের বিদ্যুৎ বিলও দেয়া হয়নি। বিদ্যালয়ের ফান্ডের জমানো টাকাও শেষ। তাই প্রায় দেড় বছর যাবৎ ১২ জন শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ। উপজেলা প্রশাসন থেকে এ যাবৎ ১ হাজার টাকা করে দুই বার পেয়েছেন। একটা পরিবারে ১ হাজার টাকা দিয়ে কি হয়। লজ্জায় কারও কাছে বলতেও পারছেন না। ফলে স্কুলগুলোর শিক্ষক-কর্মচারীরা করোনাকালে মহাকষ্টে আছেন।

মহালছড়ি আদর্শ বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলমগীর হোসেন জনি ও সিঙ্গিনালা আইডিয়াল বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক উনুমং মারমাও একই অভিযোগ করে বলেন, শিক্ষার্থীদের বেতনেই বেতন পান এসব স্কুলের শিক্ষক-কর্মচারীরা। স্কুল বন্ধ থাকার ফলে চরম সংকটে রয়েছেন এসব স্কুল শিক্ষক-কর্মচারীরা। সংকট কাটিয়ে উঠতে সরকারি সহযোগিতার দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

সিঙ্গিনালা আইডিয়াল বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি থুইহলাঅং মারমা বলেন, করোনার কারণে স্কুল বন্ধ থাকায় শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন দিতে পারছি না। ফলে শিক্ষক-কর্মচারীরা এ করোনা পরিস্থিতিতে কঠিন সময় পার করছেন।

এ বিষয়ে মহালছড়ি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মঈনুল ইসলাম বলেন, বেসরকারি প্রাথমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ব্যাপারে আমাদের কোন নির্দেশনা নেই। তারপরও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের অনুরোধে প্রতিবছর পাঠ্যপুস্তক দিয়ে থাকি। এছাড়া শিক্ষা অফিস থেকে আর কোন কিছুই করার নেই।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

বিদ্যুৎ সুবিধাবঞ্চিত মহালছড়ি সদরের ২ গ্রামের মানুষ

আধুনিক প্রযুক্তির ক্রমবিকাশে পাল্টে যাচ্ছে দুনিয়া। প্রতিনিয়ত উদ্ভাবন হচ্ছে নতুন নতুন আবিষ্কার। মানুষের জনজীবনে পড়ছে …

Leave a Reply