নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » অভিযুক্ত আপীল করবেন,তাই গ্রেফতার করছেনা পুলিশ !

অভিযুক্ত আপীল করবেন,তাই গ্রেফতার করছেনা পুলিশ !

kejai-marmaরাঙামাটির কাউখালিতে আওয়ামী লীগ নেতা কলমপতি ইউপি চেয়ারম্যান চেক জালিয়াতির মামলায় ১ বছরের কারাদন্ড ও ৭ লাখ ৬০ হাজার টাকা অর্থদন্ড অভিযুক্ত হওয়ার তিন মাস অতিবাহিত হলেও ‘তিনি উচ্চ আদালতে আপীল করবেন’ এই কারণে তাকে গ্রেফতার করছেনা পুলিশ ! অথচ কাউখালি থানার মাত্র তিনশ গজ দূরে তার বাসা। সংসদ নির্বাচনের কাজেও ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন  তিনি।
অভিযুক্ত ব্যক্তি কাউখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি ও কলমপতি ইউপি চেয়ারম্যান ক্যজাই মারমা। দুটি চেক জালিয়াতির মামলায় চট্টগ্রাম অতিরিক্ত দায়রা জজ চতুর্থ আদালত গত ১৬ সেপ্টেম্বর তাকে এই শাস্তি দেন।

জানা গেছে,ব্যবসায়িক লেনদেনের পাওনা টাকা পরিশোধে পাওনাদার হাটহাজারী ফতেয়াবাদের ব্যবসায়ি মোঃ শের শাহ্ কে ৩ লাখ ৮০ হাজার টাকার চেক দেন ক্যজাই মারমা। এরমধ্যে সোনালী ব্যাংক কাউখালী শাখার চলতি হিসাব নং-৪১৬ হতে গত ২৬/১/২০১১ তারিখে চেক নম্বর ৩৯০৯৫৪২ এর অনুকূলে ২ লাখ ও ১৫/২/২০১১ এ চেক নম্বর ৩৯০৯৫৪৩ এর অনুকূলে ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা চেক ইস্যু করা হয়।
সোনালী ব্যাংক কাউখালী শাখা হতে প্রত্যাখাত হয়ে ফেরত আসায় গত ২৪/৩/২০১১ তারিখে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিঃ হাটহাজারী চৌধুরীহাট শাখাও প্রাপককে চেক দুটি ডিসঅর্নার হিসাবে ফেরত দেয়। এরফলে ২৩/৫/২০১৩ তারিখে মোঃ শের শাহ চট্টগ্রাম বিজ্ঞ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-১ এ ক্যজাই মারমাকে আসামী করে এন,আই এ্যাক্ট ১৮৮১ সংশোধিত-২০০৬ এর ১৩৮ ধারায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নম্বর সি,আর ৮৪/১১(হাটহাজারী) দায়রা ৪৪৮/১২।

গত ১৬/৯/২০১৩ তারিখে চট্টগ্রাম অতিরিক্ত দায়রা জজ চতুর্থ আদালতের বিচারক শেখ আশফাকুর রহমান মামলায় দোষি সাব্যস্ত করে ক্যজাই মারমাকে ১ বছরের কারাদন্ড ও ৭ লাখ ৬০ হাজার টাকা অর্থদন্ড দেন। গত ১৯/৯/২০১৩ তারিখে স্মারক নম্বর-৬৭৩(২) মূলে একই আদালত থেকে সাজা পরোয়ানা ইস্যু করে রাঙামাটি পুলিশ সুপার ও কাউখালী থানার ওসিকে আদেশ দেয়া হয়।

আসামী কলমপতি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হওয়ায় প্রকাশ্যে চলাফেরা করলেও কাউখালী থানা পুলিশ আসামীর বিরুদ্ধে ইস্যুকৃত সাজা পরোয়ানা তামিল করছেনা। উল্টো বিভিন্ন মিথ্যা মামলায় জড়ানোসহ প্রাণ নাশের হুমকি দিচ্ছে বলে কাউখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে গত ১৪/১১/২০১৩ তারিখে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন বাদী।

কাউখালী থানা পুলিশের অনিহার বিষয়টি অতিরিক্ত দায়রা জজ চতুর্থ আদালতের নজরে আনেন মামলার বাদী শের শাহ। এতে কাউখালী থানার ওসি ব্যতীত অন্য যে কোন এজেন্সীর মাধ্যমে সাজাপ্রাপ্ত আসামী ক্যজাই মারমার বিরুদ্ধে পরোয়ানা ইস্যু করার আবেদন জানান। বিষয়টি আমলে নিয়ে অতিরিক্ত দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমান গত ২৮/১১/২০১৩ তারিখে আদেশ নম্বর ১৫ ও স্মারক নং-৯০৪ এ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য চট্টগ্রাম ডিআইজি এবং রাঙামাটি পুলিশ সুপারকে আদেশ দেন।

নির্বাচনী সভায় সরব উপস্থিতি !

kejai-pic-02
দীপংকর তালুকদারের নির্বাচনী সভায় পেছেনে দাঁড়ানো ক্যজাই মারমা

শনিবার কাউখালী উপজেলা পরিষদ চত্তরে রাঙামাটি আসনের প্রার্থি প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদারের সভামঞ্চে খোশ মেজাজে আলাপ করতে দেখা গেছে সাজা পাওয়া ক্যজাই মারমাকে। মঞ্চ তৈরি, লোক সমাগম, গাড়িভাড়া, আপ্যায়ন সবই হয়েছে তার দায়িত্বে। সভার নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন ওসি নিজেই। এই নির্বাচনী সভার প্রস্তুতির জন্য শুক্রবার বিকালে উপজেলার পোয়াপাড়া মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভাতেও ক্যজাই মারমা বক্তব্য রাখেন। এর আগে দুপুরে চেয়ারম্যান ক্যজাই মারমার ভাড়া বাসায় আয়োজিত দাওয়াতে অংশ নেন ওসি শ্যামল কান্তি বড়ুয়াও।

দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন ক্যজাই !
সাজা পাওয়া ক্যজাই মারমা ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে নিয়মিত উপস্থিত থেকে দিব্যি অফিস-সভা করছেন। স্বাক্ষর করছেন জাতীয়তা সনদসহ বিভিন্ন প্রয়োজনীয় কাগজপত্রে। উপস্থিত থাকছেন উপজেলার মাসিক সমন্বয় সভাতেও। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাঙামাটি আসনের প্রার্থী প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদারের পক্ষে পুরো কাউখালী উপজেলা চষে বেড়াচ্ছেন। এমনকি খোদ ওসি শ্যামল কান্তি বড়ুয়ার সঙ্গে সন্ধ্যার পর উপজেলা সদরের একটি কাপড়ের দোকানে বসে গভীর রাত পর্যন্ত আড্ডাও দিচ্ছেন। থানা ভবন থেকে ৩০০ গজ দূরত্বে উপজেলা পরিষদের মালিকানাধীন ভাড়া বাসা ইছামতি “ঘ” ফ্ল্যাটে স্বপরিবারে বসবাস করছেন ক্যজাই মারমা।

আসামীর পক্ষেই ওসির বয়ান
এদিকে ক্যজাই’কে গ্রেফতারে প্রায় দেড়মাস আগে ওয়ারেন্ট পাওয়ার কথা স্বীকার করলেও কাউখালি থানার ওসি শ্যামল কান্তি বড়ুয়া খোদ আসামীর পক্ষেই সাফাই গেয়ে বলেন,তিনি (ক্যজাই) তিনবার নির্বাচিত চেয়ারম্যান,উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি,মন্ত্রীর(পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার) খাস লোক,তাকেতো চাইলেই গ্রেফতার করা যায়না ! তার উপর তিনি কথা দিয়েছেন জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই উচ্চ আদালতে আপীল করবেন।’ ওসি আরো বলেন,ওনাকে গ্রেফতারে যে ওয়ারেন্ট এসেছে সেখানেও ‘ভেজাল’ আছে,স্পষ্ট করে শাস্তির মেয়াদ লেখা নাই। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকেও তিনি জানিয়েছেন বলে দাবি করেন।
এদিকে অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান ক্যজাই মারমা জানান, কোন অসুবিধা নাই। আপীল করবো,সব ঠিক হয়ে যাবে।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লংগদুতে দুর্যোগ বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা

রাঙামাটির লংগদুতে উপজেলা পর্যায়ে ‘দুর্যোগবিষয়ক স্থায়ী আদেশাবলী (এসওডি)-২০১৯’ অবহিতকরণ প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার লংগদু …

Leave a Reply