নীড় পাতা » ব্রেকিং » অবৈধ দোকানের কারণে বনরূপায় যানজট সৃষ্টি হচ্ছে

জেলা উন্নয়ন কমিটির সভায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট

অবৈধ দোকানের কারণে বনরূপায় যানজট সৃষ্টি হচ্ছে

রাঙামাটি পার্বত্য জেলা উন্নয়ন কমিটির সভা রবিবার সকালে অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ সভাকক্ষে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা।

পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা দাউদ হোসেন চৌধুরীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট শিল্পী রানী রায়, রাঙামাটি পৌরসভার প্যানেল মেয়র জামাল উদ্দিনসহ পরিষদের হস্তান্তরিত বিভাগের কর্মকর্তা, জেলা ও উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় সভাপতির বক্তব্যে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা বলেন, স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও জনসেবামূলক মনোভাব নিয়ে সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করতে আমাদের সকলকে কাজ করে যেতে হবে। জেলার উন্নয়নে একে অপরকে সহযোগিতা করতে হবে। সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে সমাধান করতে তিনি সকলকে প্রতিটি জেলা উন্নয়ন সভায় উপস্থিত থাকার আহ্বান জানান।

সভায় রাঙামাটি পুলিশ বিভাগের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, গত মাসে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের দুর্গা পূজা সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে পারায় তিনি সকলকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। তিনি বলেন, চলতি মাসের আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক সভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পার্বত্য মন্ত্রীসহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন দপ্তরের উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। আগামী ৭ ও ৮ নভেম্বর রাঙামাটির সর্ববৃহৎ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান রাজ বন বিহারে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের দানোত্তম কঠিন চীবর দান অনুষ্ঠান সুশৃংখলভাবে সম্পন্ন করতে প্রশাসনের প্রস্তুতি রয়েছে। তিনি বলেন, এ জেলাকে মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত রাখতে পুলিশ প্রশাসনের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। যেকোন অপরাধমূলক কর্মকান্ড ও মাদক বিক্রি ও সেবনের কোন তথ্য থাকলে তা পুলিশ প্রশাসনকে জানিয়ে সহযোগিতা করার অনুরোধ জানান তিনি।

সভায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট শিল্পী রানী রায় বলেন, পর্যটন খ্যাত এই রাঙামাটি জেলার বনরূপার কিছু এলাকায় রাস্তায় দু’পাশ অবৈধভাবে দখল করে দোকানপাট গড়ে তোলা হয়েছে। যার ফলে সর্বক্ষণ যানজট লেগেই থাকে। অবৈধ দোকান উচ্ছেদের বিষয়ে তিনি পৌরসভা ও পুলিশ প্রশাসনকে উদ্যোগ গ্রহণের পরামর্শ দেন এবং জেলা প্রশাসন হতে এ বিষয়ে সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রদানের আশ^াস দেন। তিনি মৎস্য দপ্তরের কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, কাপ্তাই হ্রদে কিছু কিছু জেলে নদীর তলদেশে থাকা গাছের গোড়া কেটে মাছের ডিম পারার স্থল বিনষ্ট করছে যা মোটেই কাম্য নয়। এদের বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ না নিলে ভবিষ্যতে এ হ্রদ থেকে কাতাল, চিতল, বোয়ালসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ বিলুপ্ত হবে। তিনি বলেন, জেলার প্রতিটি বিভাগের কাজ সুসম্পন্ন করতে তার প্রশাসন সবসময় সহযোগিতার করবে।

রাঙামাটি পৌরসভার প্যানেল মেয়র জামাল উদ্দিন বলেন, রাঙামাটি শহরকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে পৌরসভা কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়া ফুটপাত সৌন্দর্য বর্ধনকল্পে পৌরসভার কাজ চলমান রয়েছে।

সভায় উপস্থিত অন্যান্য বিভাগীয় কর্মকর্তাগণ স্ব স্ব বিভাগের কার্যক্রম উপস্থাপন করেন।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

স্বাস্থ্য বিভাগকে সুরক্ষা সামগ্রী দিলো রাঙামাটি রেড ক্রিসেন্ট

নভেল করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে রাঙামাটির ১২টি সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কেন্দ্রসমূহে স্বাস্থ্য …

Leave a Reply