নীড় পাতা » পাহাড়ের রাজনীতি » অনিল তঞ্চঙ্গ্যার অপহরণকারীদের চিহ্নিত করে বিচার দাবি

অনিল তঞ্চঙ্গ্যার অপহরণকারীদের চিহ্নিত করে বিচার দাবি

Anil-pic-03২০১২ সালের ১০ জানুয়ারি কাপ্তাই উপজেলার নিজ বাড়ী থেকে রাঙামাটি শহরে আসার পথে অপহৃত আওয়ামী লীগ নেতা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা অনিল তঞ্চঙ্গ্যার খোঁজ নেই দুইবছরেও। অপহরণের দুই বছর পরও তাই সন্ত্রাসীদের হাতে অপহৃত রাঙামাটি জেলা কৃষকলীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা অনিল চন্দ্র তঞ্চঙ্গ্যার অপহরনকারি ও তার মদদদাতাদের গ্রেফতারের দাবিতে কাপ্তাইয়ে শুক্রবার মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে তার স্ত্রী-পুত্র-পরিবার ও  কাপ্তাই উপজেলার সচেতন নাগরিক সমাজ।
শুক্রবার সকালে কাপ্তাইয়ের বড়ইছড়িস্থ উপজেলা প্রশাসন চত্বরে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে কাপ্তাইয়ে সর্বস্তরের মানুষ অংশগ্রহন করেন। অনিল তঞ্চঙ্গ্যার স্ত্রী সান্তনা চাকমার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কাপ্তাই উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক মোঃ দিলদার হোসেন, কাপ্তাই উপজেলা হেডম্যান সমিতির নেতা থোয়াইঅং মারমা,অনিল তঞ্চঙ্গ্যার দুই ছেলে ঝন্টু তঞ্চঙ্গ্যা ও নান্টু তঞ্চঙ্গ্যা, কাপ্তাই উপজেলা যুবলীগ সভাপতি মোঃ নাসির উদ্দিন প্রমুখ।

সমাবেশে কাপ্তাই উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান দিলদার হোসেন বলেন, দুই বছর আগে বীর মুক্তিযোদ্ধা অনিল চন্দ্র তঞ্চঙ্গ্যাকে অপহরন করা হলেও এখনো তাকে উদ্ধার বা তার কোন খোঁজ মেলেনি,এমনিক তাকে উদ্ধারের ব্যাপারে কোন প্রশাসনিক তৎপরতাও চোখে পড়েনি। ২০১২ সালে অনিল তঞ্চঙ্গ্যাকে অপহরনের পর তাকে উদ্ধারের জন্য কাপ্তাই এলাকার সাধারন জনগন তীব্র বিক্ষোভে ফুঁসে উঠেছিল কিন্ত অনিল তঞ্চঙ্গ্যাকে উদ্ধারের আশ্বাস দিয়ে প্রশাসন সে আন্দোলনকে স্থগিত করে দেয় বলে অভিযোগ করে তিনি বলেন,পার্বত্য চট্টগ্রামে অনেক অপহরনের ঘটনায় মুক্তিপন দাবী করা হয়েছে। কিন্তু অনিল তঞ্চঙ্গ্যাকে অপহরনের পর কোন মুক্তিপনও পর্যন্ত দাবী করা হয় নাই,যা রহস্যের ছাদরে ঢাকা।Anil-pic-02

সমাবেশে অপহৃত অনিল তঞ্চঙ্গ্যার বড় ছেলে ঝুন্টু তঞ্চঙ্গ্যা অভিযোগ করে বলেন, ‘আমার বাবা আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে অপহৃত হয়েছেন। গত ২ বছরে বাবাকে উদ্ধারের ব্যাপারে দলের সিনিয়র নেতাদের কোনপ্রকার সাহায্য সহযোগিতা পাইনি। আমরা এখন মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি। প্রকৃত অপরাধীদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি।
অপহৃত অনিল তঞ্চঙ্গ্যার স্ত্রী সান্তনা চাকমা বলেন, আমি আমার স্বামীর অপহরনকারী এবং মদদদাতাদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

অবিলম্বে অনিল চন্দ্র তঞ্চঙ্গ্যাকে উদ্ধার করে অপহরনকারীদের শাস্তির ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা অনিল চন্দ্র তঞ্চঙ্গ্যার পরিবারসহ কাপ্তাই উপজেলার সর্বস্তরের জনসাধারন। মানববন্ধন ও সমাবেশে কাপ্তাইয়ের বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ১০ জানুয়ারী বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের অনুষ্ঠানে যোগদানের উদ্দেশ্যে রাঙামাটি যাওয়ার পথে ঘাগড়া এলাকা থেকে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা তাকে অপহরন করে নিয়ে যায়। অপহরণের পর আওয়ামী লীগের ক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা আঞ্চলিক পরিষদ কার্যালয় ভাংচুর করে এবং অপহরণ ঘটনার জন্য আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল জনসংহতি সমিতি’কে দায়ী করে। জনসংহতি তাৎক্ষনিকভাবে ওই সময়ই অভিযোগ অস্বীকার করে। পরে অনিল তঞ্চঙ্গ্যার পরিবারের সদস্য ও আওয়ামী লীগের ভেতরের বিভিন্ন সূত্র তার অপহরণ ঘটনার জন্য জেলা আওয়ামী লীগের ক’জন শীর্ষ নেতাকে অভিযুক্ত করে ঘটনার জন্য দলের আভ্যন্তরীন কোন্দন ও বিরোধকে দায়ি ও অপহরণ ঘটনায় দলের সিনিয়র নেতাদের দায়িত্বশীলতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে আসছেন।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

লংগদুতে দুর্যোগ বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা

রাঙামাটির লংগদুতে উপজেলা পর্যায়ে ‘দুর্যোগবিষয়ক স্থায়ী আদেশাবলী (এসওডি)-২০১৯’ অবহিতকরণ প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার লংগদু …

One comment

Leave a Reply

%d bloggers like this: