নীড় পাতা » পাহাড়ের সংবাদ » অনাবৃষ্টিতে পাহাড়ে ব্যহত হচ্ছে জুমচাষ

অনাবৃষ্টিতে পাহাড়ে ব্যহত হচ্ছে জুমচাষ

Jum-2পাহাড়ে প্রকৃতি নির্ভর একটা সনাতন চাষপদ্ধতি জুম । বৃষ্টি না হলে জুমচাষ করা সম্ভব হয় না। কারণ মাটিকে কর্ষণ ছাড়াই ‘দাও’ বা ‘কাটারি’ দ্বারা সকল প্রকার খাদ্যশস্যের বীজ মাটিতে বপন করতে হয়। আর এ বীজ বপন কাজ বৈশাখের শুরু থেকেই চাষীরা আরম্ভ করে থাকেন। তাই জুমচাষে বৃষ্টিই একমাত্র প্রাকৃতিক মৌলিক উপাদান, যা ব্যতীত এ জুমচাষ কল্পনা করা যায় না বলে জানা গিয়েছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কমবেশি খড়া দেখা গেলেও মাঝে মধ্যে দফায় দফায় বৃষ্টি হওয়ার কারণে মাটি নমর ছিল। ছড়াগুলোতে পানি জন্মেছিল এবং আলো-বাতাস ও আবাহাওয়া ঠান্ডা ছিল বলে যথারীতি জুমিয়া কৃষকরা তাদের চাষাবাদ করতে পেরেছিলেন। কিন্তু চলতি বছর প্রাকৃতিক বিপর্যয়, অতি খড়া বা অনাবৃষ্টির কারণে পাহাড়ে জুমচাষ ব্যহত হয়ে পড়ছে বলে কৃষকরা উদ্বেগ আর হতাশা প্রকাশ করছেন।
তাগলকছড়া পাড়ার চাইচি অং মার্মা (৬০), মংহ্লাপ্র“ মার্মা (৪১) ও উচিচিং মার্মা (৪৩) জানান, প্রতি বছর এ সময়ে কলা, হলুদ, আদা ও সকল শাক-সবজির বীজসমূহ প্রায়ই বপন করা শেষ হয়ে থাকে। কিন্তু এ বছর অনাবৃষ্টির কারণে এখনও কোন ফসল রোপন করা হয়নি। কারণ মাটি শক্ত তাছাড়া এ গরমে মাটিতে বীজ বপন করলে সব বীজ মরে শুকিয়ে যায়। এছাড়াও গরমের হাওয়ায় কাজ করা দূরের কথা বাড়িতে থাকাও মুশকিল হয়ে পড়ছে বলে তারা জানান।
তারা আরও জানান, জুমচাষ একটি লাভজনক মিশ্রণ চাষপদ্ধতি। জুমে প্রধানতঃ ধানসহ, কলা, মরিচ, তুলা, তিল, ভুট্টা, চাল কুমড়া, স্থানীয় বরবটি, মারফা বা শশা, মিষ্টি কুমড়া, পেঁপে, ঢেঁড়স, ধনিয়া, বেগুন চিনাল, কাউন, ভিন্ন প্রজাতির সবজি আলু, মিষ্টি আলু, পুইশাক, চিচিঙ্গা, ঝিংগা, পটল, বহু প্রজাতির কচু, হলুদ ও আদা ইত্যাদি একসাথে মিশ্র চাষাবাদ করা হয় ফলে এটি খুবই লাভজনক।

Micro Web Technology

আরো দেখুন

ভোট প্রত্যাখান করে পুর্ননির্বাচন দাবি কোদাল প্রার্থীর

রাঙামাটি পৌরসভা নির্বাচনে ভোটারদের ভোট প্রদানে বাধাসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ এনে বেসরকারিভাবে ঘোষিত ফলাফল প্রত্যাখান …

Leave a Reply